কুরআন ও আধুনিক বিজ্ঞান/ভ্রূণবিদ্যা/ভ্রূণের পর্যায়

উইকিবই থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

আর অবশ্যই আমরা মানুষকে সৃষ্টি করেছি মাটির উপাদান থেকে। তারপর আমরা তাকে শুক্রবিন্দুরূপে স্থাপন করি এক নিরাপদ ভাণ্ডারে। পরে আমরা শুক্রবিন্দুকে পরিণত করি ‘আলাকা-তে, অতঃপর ‘আলাকা-কে পরিণত করি গোশতপিণ্ডে, অতঃপর গোশতপিণ্ডকে পরিণত করি অস্থিতে; অতঃপর অস্থিকে ঢেকে দেই গোশত দিয়ে; তারপর তাকে গড়ে তুলি অন্য এক সৃষ্টিরূপে। অতএব, (দেখে নিন) সর্বোত্তম স্রষ্টা আল্লাহ্‌ কত বরকতময়! [২৩:১২–৪]


এই আয়াতে আল্লাহ বলেছেন যে মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে অল্প পরিমাণ তরল থেকে যা একটি বিশ্রামের স্থানে স্থাপন করা হয়, দৃঢ়ভাবে স্থির (সুপ্রতিষ্ঠিত বা স্থিত) যার জন্য আরবি শব্দ কারারিন মাকিন ব্যবহৃত হয়। পিছনের পেশী দ্বারা দৃঢ়ভাবে সমর্থিত মেরুদণ্ডের কলাম দ্বারা জরায়ুটি পশ্চাৎভাগ থেকে ভালভাবে সুরক্ষিত। অ্যামনিওটিক তরল ধারণকারী অ্যামনিওটিক থলি দ্বারা ভ্রূণ আরও সুরক্ষিত। এইভাবে ভ্রূণের একটি ভাল সুরক্ষিত বাসস্থান আছে।


ভ্রূণবিদ্যা 50% developed

নুতফাহ থেকে মানব সৃষ্ট 100% developedসুলালাহ থেকে মানুষ সৃষ্ট 100% developedমানুষ নুতফাতুন আমশাজ থেকে সৃষ্ট 100% developedলিঙ্গ নির্ধারণ 100% developedঅন্ধকারের তিনটি পর্দা দ্বারা ভ্রূণ সুরক্ষিত 100% developedভ্রূণের পর্যায় 50% developedভ্রূণ আংশিকভাবে গঠিত এবং আংশিকভাবে অগঠিত 0% developedশ্রবণ এবং দৃষ্টি সংবেদন 0% developed