বিষয়বস্তুতে চলুন

রন্ধনপ্রণালী:কাচ্চি বিরিয়ানি

উইকিবই থেকে
কাচ্চি বিরিয়ানি
পরিবেশন ৫-৭ জন
তৈরির সময় ২-৩ ঘন্টা
কষ্টসাধ্য

রন্ধনপ্রণালী সূচিপত্র | প্রস্তুতপ্রণালী | উপকরণ সমূহ

কাচ্চি বিরিয়ানি

কাচ্চি বিরিয়ানি বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় খাবার। এর উৎপত্তি বাংলাদেশের ঢাকা অঞ্চলে। এ জনপ্রিয় খাবারটি সুগন্ধি চাল, ঘি, কাচ্চি বিরিয়ানির মশলা এবং কাঁচা মাংস(গরু/খাসি) মিশিয়ে রান্না করা হয়। বাংলাদেশের সকল জেলা শহরে এই জনপ্রিয় খাবারটি পাওয়া যায়।

উপকরণ ও পরিমাণ[সম্পাদনা]

নাম উপকরণ
মাংস(গরু/খাসি) ১ কেজি
কাচ্চি বিরিয়ানি মশলা ১ প্যাকেট
জর্দা ১/৪ চামচ
বাসমতি/চিনিগুঁড়া চাল ৫০০ গ্রাম
ঘি ৫ টেবিল চামচ
ভোজ্য তেল ১*১/২ চামচ
পেঁয়াজকুচি ১*১/২ কাপ
টক দই ১/২ কাপ
আলুবোখারা ৭-৮ টি
আলু ২টি (বড় আকৃতির)
গুঁড়া দুধ ৬ টেবিল চামচ
পেস্তাবাদাম ১০ টি (পেস্ট)
কাঠবাদম ১০টি (পেস্ট)
কিশমিশ ১/৪ কাপ
সয়া সস ২ টেবিল চামচ
  • ১ কাপ= ২৫০ মিঃলিঃ মাপের কাপ


রন্ধনপ্রণালী/প্রস্তুতপ্রণালী[সম্পাদনা]

  1. মাংস ভালো করে ধুয়ে ১*১/২ টেবিল চামচ লবণ ১ কাপ পানির সাথে মিশিয়ে ৩০ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন।
  2. তেল গরম করে পেঁয়াজকুচি বাদামি করে ভেজে নিন।
  3. একটি বড় পাএে পেঁয়াজ বেরেস্তা, টক দই, সয়া সস, কাঠ বাদাম পেস্ট, পেস্তাবাদাম পেস্ট, ৩ চামচ ঘি, কিশমিশ এবং কাচ্চি বিরিয়ানির মশলা-র প্যাকেটের ভেতরের গুঁড়া মশলা দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর এর মধ্যে মাংস এবং পরিমাণ মতো লবণ দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে ৩০ মিনিট মেরিনেট করুন।
  4. আলু কেটে ভেজে সামান্য জর্দা রং মাখিয়ে রাখুন।
  5. চাল ধুয়ে ৩০ মিনিট পানিতে ভিজিয়ে রাখুন এবং পরে চালনিতে ঢেলে ছেঁকে নিন।
  6. একটি পাএে ২ লিটার পানি নিয়ে এতে ২ টেবিল চামচ লবণ এবং কাচ্চি বিরিয়ানির প্যাকেটের ভেতরে গোটা মশলা দিয়ে পানি ফুটিয়ে চাল আধা সিদ্ধ করুন। এরপর চালনিতে ঢেলে পানি ঝরিয়ে রাখুন।
  7. ১*১/২ কাপ পানিতে ৫ টেবিল চামচ গুঁড়া দুধ এবং ৩ টেবিল চামচ ঘি মিশিয়ে রাখুন।
  8. ১/৪ কাপ পানিতে ২ টেবিল চামচ গুঁড়া দুধ এবং জর্দার রং মিশিয়ে রাখুন।
  9. মেরিনেটের পর মাংসের উপর প্রথমে আলুবোখারা এবং ভাজা আলু ছড়িয়ে দিন। তারপর আধা সিদ্ধ ভাত বিছিয়ে দিয়ে এর চারপাশে ঘি মাখানো দুধ ঢেলে দিন। দুধে মিশানো জর্দা রং ছড়িয়ে দিয়ে ঢেকে নিন। ভালো সুগন্ধের জন্য একটি স্টিল অথবা কাঁসার বাটিতে ৩-৪ পিস কয়লা এবং ২ চামচ ঘি নিয়ে ভাতের উপর বাটিটি বসিয়ে দিন। পাত্রের মুখে ঢাকনা দিয়ে চারপাশ আটা দিয়ে বন্ধ করে দিন।
  10. এরপর চুলার উপর পাত্রটি বসিয়ে প্রথমে বেশি তাপে ৫-৬ মিনিট জ্বাল দিন। এরপর চুলার আঁচ কমিয়ে ১ ঘন্টা ২০ মিনিট থেকে ১ ঘন্টা ৩০ মিনিট দমে রেখে দিন।
  11. তারপর চুলা থেকে উঠিয়ে নিন।
সালাদ(শসা) এবং তেঁতুলের চাটনি দিয়ে পরিবেশন করুন।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]