মানব শারীরতত্ত্ব/পেশিতন্ত্র

উইকিবই থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

পেশিতন্ত্র হল মানব দেহের এক জৈবিক ব্যবস্থা যার মাধ্যমে শরীর নড়াচড়া করতে পারে। মেরুদণ্ডী প্রাণীদের মধ্যে পেশিতন্ত্র নিয়ন্ত্রিত হয় স্নায়ুতন্ত্রের মাধ্যমে, যদিও হৃদপেশির মত কিছু পেশি সম্পূর্ণভাবে স্বনিয়ন্ত্রিত হতে পারে। পেশি হল সংকোচনশীল কলা এবং এটি ভ্রূণের জীবাণু কোষের মেসোডার্মাল স্তর (মধ্যঃত্বক) থেকে উদ্ভূত। এর কাজ হল বল তৈরি করা এবং গতি সৃষ্টি করা। এটি হয় চলনের সময় অথবা অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলির মধ্যে নড়াচড়ার সময়। বেশিরভাগ পেশি সংকোচন সচেতন চিন্তা ছাড়াই ঘটে এবং এটি বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয়, যেমন হৃদপিণ্ডের সংকোচন অথবা পেরিস্টালসিস- যখন খাদ্য পরিপাকতন্ত্রের মধ্য দিয়ে এগোতে থাকে, দুটির কোনটিই স্বনিয়ন্ত্রিত নয়। ঐচ্ছিক পেশি সংকোচন শরীরের নড়াচড়ার জন্য ব্যবহৃত হয় এবং একে সূক্ষ্মভাবে অথবা স্থূলভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায়, যেমন আঙুলের নড়াচড়া হল সূক্ষ্ম এবং বাইসেপস ও ট্রাইসেপসের নড়াচড়া হল স্থূল।

পেশির গঠন

পেশি কোষ দ্বারা পেশি গঠিত (কখনও কখনও "পেশি তন্তু"ও বলা হয়)। কোষের মধ্যে মায়োফাইব্রিল থাকে; এগুলিতে অ্যাক্টিন এবং মায়োসিনের সমন্বয়ে গঠিত সারকোমিয়ার রয়েছে। প্রতিটি পেশি কোষে এন্ডোমিসিয়ামের আবরণ রয়েছে। পেশি কোষগুলি পেরিমিসিয়াম দ্বারা একত্রে আবদ্ধ থাকে, যাকে ফ্যাসিকেল বলা হয়। এই ফ্যাসিকেলগুলি তারপর পেশি গঠনের জন্য একত্রিত হয়, এবং এপিমিসিয়াম দ্বারা আবৃত থাকে। সমস্ত পেশি জুড়েই পেশি স্পিন্ডল থাকে এবং কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রকে সংবেদনশীল প্রতিক্রিয়ার তথ্য প্রদান করে। দেহের কঙ্কালের ওপর থাকা ঐচ্ছিক পেশি বা কঙ্কাল পেশি পৃথক গোষ্ঠীতে সজ্জিত থাকে। এর একটি উদাহরণ হল বাইসেপস ব্র্যাচিয়ালিস (দুই মাথাযুক্ত পেশি)। এটি কঙ্কালের হাড়ের সাথে টেন্ডন দ্বারা সংযুক্ত থাকে। বিপরীত দিকে, দেহের প্রায় প্রতিটি অঙ্গে বিভিন্ন মাত্রায় মসৃণ পেশি থাকে, ত্বক থেকে শুরু করে (যেখানে পেশি দ্বারা শরীরের লোমের উত্থান নিয়ন্ত্রিত হয়) রক্তনালী এবং পাচনতন্ত্র পর্যন্ত (যেখানে এটি যথাক্রমে একটি অবকাশিকার (লুমেন) ব্যাস এবং পেরিস্টালসিস নিয়ন্ত্রণ করে)।

ঐচ্ছিক পেশির উপরে-নিচের দৃশ্য

মানবদেহে প্রায় ৬৪০টি ঐচ্ছিক পেশি রয়েছে (মানব দেহের পেশির তালিকা দেখুন)। ব্যায়ামের মাধ্যমে পেশি তন্তুর সংখ্যা বাড়ানো যায় না, যদিও অনেকেই তা বিশ্বাস করেন; প্রকৃতপক্ষে পেশি কোষের আকার বৃদ্ধি পায়। তবে এটা বিশ্বাস করা হয় যে মায়োফাইব্রিলের বৃদ্ধির ক্ষমতা সীমিত এবং অতিবৃদ্ধিতে (হাইপারট্রফি) অতিরিক্ত চাপের ফলে এটি ছিঁড়ে যেতে পারে। শরীরে তিনটি মৌলিক ধরণের পেশি রয়েছে (মসৃণ পেশি, হৃদপেশি এবং ঐচ্ছিক পেশি)। যদিও বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের ভিন্নতা রয়েছে, তারা সকলেই পেশি সংকোচন এবং প্রসারণ তৈরি করতে মায়োসিনের ওপর দিয়ে অ্যাক্টিনের পিছলে যাওয়া ব্যবহার করে। ঐচ্ছিক পেশির ক্ষেত্রে, প্রতিটি কোষে স্নায়বিক স্পন্দন দ্বারা সংকোচন উদ্দীপিত হয়ে স্নায়ু ও পেশির সংযোগস্থলে এসিটাইলকোলিন নিঃসরণ করে, এর ফলে কোষের ঝিল্লি বরাবর ক্রিয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়। সমস্ত ঐচ্ছিক পেশি এবং অনেক মসৃণ পেশির সংকোচন নিউরোট্রান্সমিটার ও অ্যাসিটাইলকোলিনের আবদ্ধতার দ্বারা উদ্দীপিত হয়। পেশির ক্রিয়াকলাপের মাধ্যমেই শরীরের বেশিরভাগ শক্তি খরচ হয়। পেশীগুলি গ্লাইকোজেন আকারে তাদের নিজস্ব ব্যবহারের জন্য শক্তি সঞ্চয় করে, এটি তাদের ভরের প্রায় ১% মত হয়। যখন আরও শক্তি প্রয়োজন তখন গ্লাইকোজেন দ্রুত গ্লুকোজে রূপান্তরিত হতে পারে।

প্রকার[সম্পাদনা]

পেশী তিন প্রকারের হয়:

Illu muscle tissues.jpg

  • মসৃণ পেশি বা "অনৈচ্ছিক পেশি" মাকু আকৃতির পেশি কোষ নিয়ে গঠিত। এগুলি খাদ্যনালী, পাকস্থলী, অন্ত্র, শ্বাসনালী, জরায়ু, মূত্রনালী, মূত্রাশয় এবং রক্তনালীগুলির মত অঙ্গ এবং কাঠামোর গায়ে পাওয়া যায়। মসৃণ পেশি কোষে শুধুমাত্র একটি নিউক্লিয়াস থাকে এবং এতে কোন ডোরাদাগ থাকেনা।
  • হৃদপেশিও একটি "অনৈচ্ছিক পেশি" কিন্তু এটির আকৃতি এবং গঠনে ডোরা থাকে। মসৃণ পেশির মতো, হৃদপেশি কোষে শুধুমাত্র একটি নিউক্লিয়াস থাকে। এই পেশি শুধুমাত্র হৃদযন্ত্রে দেখতে পাওয়া যায়।
  • কঙ্কাল পেশি বা "ঐচ্ছিক পেশি" এটি টেন্ডন দ্বারা হাড়ের সাথে আটকে থাকে এবং কাঠামোর গতিবিধি,- যেমন, চলনকে প্রভাবিত করতে ব্যবহৃত হয়। কঙ্কাল পেশি কোষগুলি বহু নিউক্লিয়াস যুক্ত এবং এর নিউক্লিয়াসগুলি পরিধি বরাবর অবস্থিত। হালকা অণুবীক্ষণ যন্ত্রে দেখলে এর আকৃতিতে অনুদৈর্ঘ্যভাবে ডোরাকাটা দাগ দেখতে পাওয়া যায়, তাই এই পেশিকে 'স্ট্রায়েটেড' বলা হয়। কঙ্কাল পেশির কাজগুলির মধ্যে আছে:
    • শরীরকে ধরে রাখা
    • হাড়ের নড়াচড়ায় সাহায্য করা
    • সারা শরীর জুড়ে একটি অপরিবর্তনীয় তাপমাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করা
    • সংকোচনের মাধ্যমে রক্ত সংবহনতন্ত্র এবং লসিকা নালীর চলাচলে সহায়তা করা
    • অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলিকে সুরক্ষা দেওয়া এবং সন্ধিস্থলের স্থিতিশীলতায় সাহায্য করা

সারকোমিয়ার থাকার কারণে হৃদপেশি ও কঙ্কালের পেশিগুলি ডোরাকাটা হয় এবং পেশিগুলি অত্যন্ত নিয়মিত বিন্যাসে সংঘবদ্ধ থাকে; মসৃণ পেশির এর কোনটিই নেই। ডোরাকাটা পেশিগুলি প্রায়শই ছোট ছোট এবং প্রচুর সংকোচন ও প্রসারণে ব্যবহৃত হয়, যেখানে মসৃণ পেশির সংকোচন দীর্ঘ হয় বা এমনকি প্রায় স্থায়ী সংকোচন বজায় রাখে।

কঙ্কালের পেশি আরও কয়েকটি উপপ্রকারে বিভক্ত:

  • প্রকার ১, ধীর জারণকৃত (অক্সিডেটিভ), ধীর স্পন্দন, বা "লাল" পেশিতে কৈশিক নালীগুলি ঘন সন্নিবদ্ধ থাকে এবং এটি মাইটোকন্ড্রিয়া এবং মায়োগ্লোবিনে সমৃদ্ধ, তাই পেশি কলাগুলিকে বিশেষ বৈশিষ্ট্যযুক্ত লাল দেখায়। এটি অনেকখানি অক্সিজেন বহন করতে পারে এবং সবাত কার্যকলাপ বজায় রাখতে পারে।
  • প্রকার ২, দ্রুত স্পন্দন পেশির সংকোচনের গতি বৃদ্ধি অনুযায়ী তিনটি প্রধান প্রকারের হয়:
    • ক) প্রকার ২ক, যা ধীর পেশীর মত, সবাত, মাইটোকন্ড্রিয়া এবং কৈশিক নালী সমৃদ্ধ এবং লাল রঙের আকৃতি যুক্ত।
    • খ) প্রকার ২এক্স (এছাড়াও একে প্রকার ২ঘ বলা হয়), যেখানে কম ঘনত্বে মাইটোকন্ড্রিয়া এবং মায়োগ্লোবিন রয়েছে। এটি মানব দেহের দ্রুততম পেশির ধরন। এটি অক্সিডেটিভ পেশির চেয়ে আরও দ্রুত এবং অধিক পরিমাণ বল সহ সংকোচন করতে পারে, তবে পেশি সংকোচন বেদনাদায়ক হওয়ার আগে শুধুমাত্র সংক্ষিপ্ত, অবাত প্রসারণ বজায় রাখতে পারে (প্রায়শই ল্যাকটিক অ্যাসিড তৈরির জন্য দায়ী)। বিশেষ টীকা- কিছু বই এবং নিবন্ধে মানুষের এই পেশীকে বিভ্রান্তিকরভাবে, প্রকার ২খ বলা হয়।
    • গ) প্রকার ২খ, যেটি অবাত, গ্লাইকোলাইটিক, "সাদা" পেশি, এখানে মাইটোকন্ড্রিয়া এবং মায়োগ্লোবিনের ঘনত্ব আরও কম। ইঁদুর বা খরগোশের মতো ছোট প্রাণীদের মধ্যে প্রধান দ্রুত পেশি হিসেবে এটিই থাকে এবং এর কারণেই তাদের মাংসের রঙ ফ্যাকাশে হয়।

বেশিরভাগ পেশির জন্য, মস্তিষ্কে উদ্ভূত সচেতন প্রচেষ্টার ফলে সংকোচন ঘটে। আমাদের মস্তিষ্ক স্নায়ুতন্ত্রের মাধ্যমে কর্ম সম্ভাবনার সংকেত দিয়ে মোটর স্নায়ুকোষে সংকেত পাঠায়, যা পেশি তন্তুকে বল যোগায়। কিন্তু, কিছু পেশী (যেমন হৃদপিণ্ড) সচেতন প্রচেষ্টার ফলে সংকুচিত হয় না। এগুলিকে স্বয়ংক্রিয় বলা হয়। এছাড়াও, সংকেতগুলি যে সবসময় মস্তিষ্ক থেকেই উদ্ভূত হবে, সেটিও আবশ্যকীয় নয়। দ্রুত প্রতিবর্তী ক্রিয়ার ক্ষেত্রে, অপ্রত্যাশিত শারীরিক উদ্দীপনার কারণে অচেতন পেশী প্রতিক্রিয়া ঘটে। প্রতিবর্তী ক্রিয়ার উদ্দেশ্যে সম্ভাব্য প্রতিক্রিয়া মস্তিষ্কের পরিবর্তে মেরুদন্ডে উদ্ভূত হয়।

পেশি সংকোচনের তিনটি সাধারণ প্রকার রয়েছে, কঙ্কালের পেশি সংকোচন, হৃৎপিণ্ডের পেশি সংকোচন এবং মসৃণ পেশি সংকোচন।

পেশি তন্ত্র শরীরের অন্যান্য তন্ত্রের সাথে কাজ করে[সম্পাদনা]

  • ১. সুস্থিতি (শারীরবিজ্ঞান)
  • ২. সুরক্ষা
  • ৩. ক্যালসিয়াম বিপাক
  • ৪. শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখা

কঙ্কাল পেশি সংকোচন[সম্পাদনা]

কঙ্কালের পেশি সংকোচনের ধাপ:


  • একটি কর্ম সম্ভাবনা মোটর স্নায়ুকোষের অ্যাক্সন পর্যন্ত পৌঁছোয়।
  • সেই কর্ম সম্ভাবনা অ্যাক্সনের উপর ভোল্টেজ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ক্যালসিয়াম আয়নের গতিপথকে সক্রিয় করে এবং ক্যালসিয়াম ভেতরে প্রবেশ করে।
  • অ্যাক্সনের অ্যাসিটাইলকোলিন গুটিগুলি ক্যালসিয়ামের মাধ্যমে ঝিল্লির সাথে দ্রবীভূত হয়ে যায় এবং এর পরে অ্যাক্সন এবং পেশী তন্তুর যে দিকে মোটর প্লেট আছে সেই দিকের ছিদ্রে অ্যাসিটাইলকোলিন মুক্ত হয়।
  • কঙ্কালের পেশি তন্তু নিউরোমাসকুলার সন্ধিস্থলের সাথে সংযুক্ত বৃহৎ মাইলিন স্নায়ু তন্তু দ্বারা উত্তেজিত হয়। প্রতিটি তন্তুর জন্য একটি করে নিউরোমাসকুলার সংযোগস্থল থাকে।
  • অ্যাসিটাইলকোলিন ছিদ্র জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে এবং মোটর প্লেটের নিকোটিনিক গ্রহীতাগুলির সাথে আবদ্ধ হয়, এর ফলে ঝিল্লিতে সোডিয়াম এবং পটাসিয়ামের জন্য রাস্তা খুলে যায়। সোডিয়াম ভেতরে ঢোকে এবং পটাসিয়াম বেরিয়ে যায়। সোডিয়াম বেশি ভেদ্য হওয়ার কারণে, পেশ তন্তু ঝিল্লি আরও ধণাত্মকভাবে তড়িতাহিত হয়ে যায়, যার ফলে একটি কার্য সম্ভাবনা তৈরি হয়।
  • পেশি তন্তুর কর্ম সম্ভাবনার কারণে সারকোপ্লাজমিক রেটিকুলাম ক্যালসিয়াম আয়ন (Ca++) নির্গত করে।
  • এই ক্যালসিয়াম মায়োফাইব্রিলের পাতলা তন্তুতে উপস্থিত ট্রপোনিন প্রোটিনের সাথে আবদ্ধ হয়। ট্রপোনিন তখন অ্যালোস্টেরিকভাবে (উৎসেচকের সক্রিয় অঞ্চল ব্যতীত অন্য কোনও অংশে উৎসেচকের নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে একটি প্রভাবক অণুকে আবদ্ধ করে) ট্রপোমায়োসিনের পরিবর্তন ঘটায়। সাধারণত ট্রপোমায়োসিন ক্রস-ব্রিজের (পেশী সংকোচনের সময় মায়োসিন এবং অ্যাক্টিন তন্তুর মধ্যে একটি অস্থায়ী সংযোগ) জন্য আবদ্ধ স্থানগুলিকে আটকে রাখে; একবার ক্যালসিয়াম ট্রপোনিনের সাথে আবদ্ধ হয়ে গেলে, ট্রপোনিন ট্রপোমায়োসিনকে সরিয়ে দেয় এবং রাস্তা খুলে দেয়।
  • ক্রস-ব্রিজ (যা ইতিমধ্যেই প্রস্তুত অবস্থায় রয়েছে) নতুন উন্মোচিত অংশের সাথে আবদ্ধ হয়। এটি তখন একটি শক্তিশালী অভিঘাত প্রদান করে।
  • এটিপি (অ্যাডিনোসিন ট্রাইফসফেট) ক্রস-ব্রিজকে আবদ্ধ করে, এটিকে এমনভাবে মেনে চলতে বাধ্য করে যাতে অ্যাক্টিন-মায়োসিন বন্ধন ভেঙে যায়। ক্রস ব্রিজটিকে আবার শক্তিশালী করতে আরেকটি এটিপি বিভক্ত হয়।
  • যতক্ষণ পর্যন্ত পাতলা ফিলামেন্টে ক্যালসিয়াম থাকে ততক্ষণ ধাপ ৭ এবং ৮ পুনরাবৃত হতে থাকে।
  • এই পুরো প্রক্রিয়া জুড়ে, সক্রিয়ভাবে ক্যালসিয়ামকে সারকোপ্লাজমিক রেটিকুলামে (পেশি কোষের মধ্যে থাকা একটি ঝিল্লি-আবদ্ধ কাঠামো) চালিত করা হতে থাকে। যখন পাতলা ফিলামেন্ট খালি হয়ে যায়, ট্রপোমায়োসিন আবার তার আগের অবস্থায় ফিরে আসে, যাতে আবদ্ধ স্থানগুলিকে আবার আটকে রাখা যায়। ক্রস-ব্রিজটি তখন পাতলা ফিলামেন্টের সাথে আবদ্ধ হওয়া বন্ধ করে দেয় এবং সংকোচনও বন্ধ হয়ে যায়।
  • যতক্ষণ পর্যন্ত সারকোপ্লাজমে Ca++ প্রচুর থাকে ততক্ষণ পর্যন্ত পেশী সংকোচন থাকে।

সংকোচনের প্রকার:

  • আইসোমেট্রিক সংকোচন--সংকোচনের সময় পেশি ছোট হয় না এবং মায়োফাইব্রিলগুলির পিছলে যাওয়ার প্রয়োজন হয় না তবে পেশিগুলি শক্ত থাকে।
  • আইসোটোনিক সংকোচন--নড়াচড়া বা কাজ করতে যখন জড়তা ব্যবহৃত হয়। পেশি বেশি শক্তি ব্যবহার করে এবং সংকোচন আইসোমেট্রিক সংকোচনের চেয়ে দীর্ঘস্থায়ী হয়। আইসোটোনিক পেশি সংকোচন দুটি বিভাগে বিভক্ত: এককেন্দ্রিক, যেখানে পেশি সংকোচনের সাথে সাথে পেশি তন্তুগুলি ছোট হয় (অর্থাৎ একটি বাইসেপ কুঞ্চনের উপরের পর্যায়ে বাইসেপস ব্র্যাচিয়ালিস); এবং ভিন্নকেন্দ্রী, যেখানে পেশি তন্তুগুলি সংকুচিত হওয়ার সাথে সাথে লম্বা হয় (অর্থাৎ একটি বাইসেপ কুঞ্চনের নিচের পর্যায়ে বাইসেপস ব্র্যাচিয়ালিস)।
  • আকস্মিক টান--স্নায়ুদ্বারা বা পেশীতে বৈদ্যুতিক উদ্দীপনা প্রেরণ করে পেশীকে উত্তেজিত করা। কিছু তন্তু দ্রুত সংকুচিত হয় যখন অন্যগুলি ধীরে ধীরে সংকুচিত হয়।
  • টনিক--মাধ্যাকর্ষণ শক্তির বিরুদ্ধে ভঙ্গিমার সমন্বয় বজায় রাখা।

পেশী সংকোচনের দক্ষতা:

  • নিবেশিত শক্তির মাত্র ২০% পেশীর কাজে রূপান্তরিত হয়। বাকি রূপান্তরিত হয় তাপ শক্তিতে।
  • খাদ্য থেকে উৎপন্ন ৫০% শক্তি এটিপি গঠনে ব্যবহৃত হয়।
  • যদি একটি পেশি সংকোচন ধীরে বা নড়াচড়া ছাড়া হয়, তাপ বজায় রাখতে শক্তি ব্যয়িত হয়।
  • যদি পেশি সংকোচন দ্রুত হয়, ঘর্ষণ কাটিয়ে উঠতে শক্তি ব্যবহৃত হয়।


পেশী সংকোচনের সঙ্কলন: শক্তিশালী পেশি বিচলনের জন্য স্বতন্ত্র পেশিগুলির আকস্মিক টানের যোগফল।

  • একাধিক মোটর এককের সমাহার--একযোগে সংকুচিত মোটর এককের সংখ্যা বৃদ্ধি।
  • তরঙ্গ সমষ্টি--স্বতন্ত্র মোটর এককের সংকোচনের দ্রুততা বৃদ্ধি।
  • টেটানাইজেশন--উচ্চতর কম্পাঙ্কের ধারাবাহিক সংকোচনগুলি একত্রিত হয় এবং কোন একটিকে অপরের থেকে আলাদা করা যায় না।

স্লাইডিং ফিলামেন্ট তত্ত্ব[সম্পাদনা]

যখন একটি পেশি সংকুচিত হয়, মায়োসিন বরাবর অ্যাক্টিন সারকোমিয়ারের কেন্দ্রের দিকে চালিত হয়, যতক্ষণ না পর্যন্ত অ্যাক্টিন এবং মায়োসিন ফিলামেন্ট সম্পূর্ণরূপে একটি অপরটিকে ঢেকে দেয় (ওভারল্যাপ)। অ্যাক্টিন এবং মায়োসিন ফিলামেন্টের ক্রমবর্ধমান ওভারল্যাপের কারণে 'এইচ' অংশ ক্রমশ ছোট হতে থাকে, এবং পেশি ছোট হয়। এইভাবে যখন পেশী সম্পূর্ণ সংকুচিত হয়, তখন এইচ অংশটি আর দৃশ্যমান হয় না (নীচের ডানদিকের চিত্রের মত)। লক্ষ্য করুন যে অ্যাক্টিন এবং মায়োসিন ফিলামেন্টগুলি নিজেদের দৈর্ঘ্য পরিবর্তন করে না, বরং একে অপরকে অতিক্রম করে।

সারকোমিয়ারের শিথিল (উপরে) এবং সংকুচিত (নিচে) অবস্থা

কঙ্কালের পেশির কোষীয় কার্যকলাপ[সম্পাদনা]

কোষীয় শ্বাস-প্রশ্বাসের সময় কঙ্কালের পেশি কোষের মধ্যে মাইটোকন্ড্রিয়া, এটিপি তৈরির প্রক্রিয়ায় রক্ত ​​থেকে গ্লুকোজকে কার্বন ডাই অক্সাইড এবং জলে রূপান্তরিত করে (দেখুন কোষীয় শারীরতত্ত্ব)। সমস্ত পেশির চলনের জন্য এটিপি প্রয়োজন। কোষগুলি সবাত শ্বসন করে যত এটিপি তৈরি করতে পারে যখন পেশিতে তার থেকে বেশি এটিপির প্রয়োজন হয়, তখন কোষগুলি অবাত শ্বসন প্রক্রিয়ায় অতিরিক্ত এটিপি তৈরি করে নেয়। সবাত শ্বসনের প্রথম ধাপে (গ্লাইকোলাইসিস) প্রতি গ্লুকোজ অণুতে দুটি এটিপি উৎপন্ন হয়। যখন সবাত শ্বসন পথ শেষ হয়ে যায় তখন পাইরুভেট অণু ল্যাকটিক অ্যাসিডে রূপান্তরিত হতে পারে। এই পদ্ধতিতে সবাত শ্বসনের তুলনায় অনেক কম এটিপি উৎপন্ন হয়, কিন্তু এটি দ্রুত হয় এবং পেশিগুলি সবাত শ্বসন থেকে উৎপন্ন এটিপির উপর নির্ভর করে যা কাজ করে তার চেয়ে কিছুটা বেশি করতে পারে। এই পদ্ধতির অসুবিধা হল এই যে, ল্যাকটিক অ্যাসিড জমা হতে থাকে এবং পেশি ক্রমশ ক্লান্ত হয়ে পড়ে। অবশেষে পেশি সংকোচন বন্ধ হয়ে যায় এবং যতক্ষণ না এই জমা হওয়া ল্যাকটিক অ্যাসিড ভেঙে যায় ততক্ষণ পর্যন্ত সংকোচন বন্ধ থাকে। মানুষ যখন বারবার ভারী জিনিস তোলে বা দীর্ঘ দূরত্বে ছোটে তখন তারা এটি সবচেয়ে লক্ষণীয়ভাবে অনুভব করে। শক্তিশালী কাজের পরে কখনও কখনও পেশিতে যন্ত্রনা অনুভব হয়, এবং প্রায়শই এটিকে ল্যাকটিক অ্যাসিড তৈরির ফলাফল হিসাবে ভুল ধারণা তৈরি হয়। এটি একটি ভুল ধারণা কারণ পেশিতে ল্যাকটিক অ্যাসিড তৈরির ফলে ক্লান্তির সৃষ্টি হয় ঠিকই, কিন্তু এটি পেশি কলাতে কলার ভাঙ্গন বা ব্যথার উদ্রেকের জন্য যথেষ্ট সময় ধরে থাকে না। ব্যায়ামের পরে ভারী শ্বাসের সময়, কোষগুলি ল্যাকটিক অ্যাসিডকে আবার গ্লুকোজে রূপান্তরিত করে দেয় বা পাইরুভেটে পরিণত করে এবং সবাত শ্বাস-প্রশ্বাসের অতিরিক্ত ধাপের মাধ্যমে এটিকে প্রেরণ করে দেয়। যতক্ষণে একজন মানুষের শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক হয়ে আসে, ততক্ষণে ল্যাকটিক অ্যাসিড অপসারিত হয়ে যায়। পেশি তন্তুতে ছোটখাটো ছিঁড়ে যাওয়ার জন্য আসলে ব্যথা হয়। তন্তুগুলি সুস্থ হবার পরে সেগুলি আকারে বৃদ্ধি পায়। এটিপির চাহিদা বৃদ্ধি পেলে মাইটোকন্ড্রিয়াও সংখ্যায় বেড়ে যায়। তাই, ব্যায়ামের মাধ্যমে পেশির শক্তি এবং সহনশীলতা উভয়ই বৃদ্ধি পায়। আরেকটি ভুল ধারণা হল পেশির আকার বৃদ্ধি পেলে সাথে সাথে এর তন্তুর সংখ্যাও বাড়ে। এটা সত্য নয়। তন্তুগুলি আকারে বৃদ্ধি পায় কিন্তু তাদের পরিমাণ একই থাকে। অ্যাডিপোজ কলার ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য - চর্বি কোষ সংখ্যায় বাড়ে না, বরং কোষে লিপিডের পরিমাণ (তেল) বৃদ্ধি পায়।

পেশী তন্তুগুলি জিনগতভাবে একটি নির্দিষ্ট আকারে পৌঁছানোর জন্য নির্দিষ্ট থাকে এবং তারপর আর সেগুলি বৃদ্ধি পায় না, তাই কঠোর পরিশ্রম করার পরেও একজন ভারোত্তোলক কেবলমাত্র শক্তি এবং সহনশীলতার একটি নির্দিষ্ট স্তরে পৌঁছোতে পারে। কিছু মানুষ স্টেরয়েড গ্রহণ করে এই স্তরে পৌঁছোয়। কৃত্রিম স্টেরয়েড গ্রহণের ফলে ঐ ব্যক্তির নানা ধরণের সমস্যার সৃষ্টি হয়। তারা অ্যাড্রিনাল গ্রন্থির কর্টিকোস্টেরয়েড এবং গ্লুকোস্টেরয়েড উৎপাদন বন্ধ করতে পারে। এতে গ্রন্থির মেডুলার ক্রমাগত ক্ষয়প্রাপ্তি ঘটতে পারে এবং এই হরমোনগুলির উৎপাদনের স্থায়ী ক্ষতির কারণ হয়। স্টেরয়েডের প্রতিক্রিয়ায় অণ্ডকোষেরও ক্রমাগত ক্ষয়প্রাপ্তি হতে পারে। অবশেষে অণ্ডকোষ টেসটোসটেরন এবং শুক্রাণু তৈরি করা বন্ধ করে দেয়, পুরুষ্টি বন্ধ্যা করে যায়।

অস্বাভাবিক পেশির ভর বৃদ্ধির সাথে যুক্ত আরও গুরুতর সমস্যাগুলির মধ্যে একটি হল হৃদযন্ত্রের কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়া। যখন বেশিরভাগ মানুষের কাছে পেশির বৃদ্ধি এবং চর্বির ক্ষয় বাঞ্ছনীয়, একজন ভারোত্তলকের ঝুঁকি হল পেশির ভর অধিক হয়ে গেলে হৃদপিণ্ডের তাকে সামলাতে না পারা। এক পাউন্ড চর্বিতে প্রায় ৩.৫ মাইল রক্তনালী থাকে, কিন্তু এক পাউন্ড পেশিতে প্রায় ৬.৫ মাইল রক্তনালী আছে। অতএব, পেশির ভর অতিরিক্ত হয়ে গেলে রক্ত ​​সরবরাহ করার জন্য হৃদপিণ্ডকে আরও বেশি কাজ করতে হয়। কিছু লোক যাদের অত্যধিক পেশি আছে তারা খুব শক্তিশালী হবে কিন্তু তাদের স্বাস্থ্যকর সবাত সহনশীলতা থাকবে না, আংশিকভাবে এর কারণ এত কলা কোষে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত ​​সরবরাহ করার অসুবিধা।

স্লাইডিং ফিলামেন্ট তত্ত্ব
এই সংযোগটি স্লাইডিং ফিলামেন্ট তত্ত্বের অ্যানিমেশন দেখায়।
স্লাইডিং ফিলামেন্ট তত্ত্বের ব্যাখ্যা এবং চিত্র ব্যাখ্যা সহ তত্ত্বের আরও ভাল প্রদর্শন।
এই সংযোগটিতে এই তত্ত্বের ব্যাখ্যা সহ ভাল প্রদর্শন দেখা যায়।

অনৈচ্ছিক পেশীর চলন[সম্পাদনা]

তড়কা (স্প্যাজম)

যখন মসৃণ পেশি এবং কঙ্কালের পেশি একাধিক খিঁচুনির মধ্য দিয়ে যায় তখন এটিকে অঙ্গবিক্ষেপ বা তড়কা হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

শিরায় টান (ক্র্যাম্প)

কঠোর পরিশ্রমের ফলে দীর্ঘকালীন বেদনাদায়ক খিঁচুনি হতে পারে, এটিকে শিরায় টান (ক্র্যাম্প) হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

আঘাত[সম্পাদনা]

মচকান (স্প্রেইন)

কোন সন্ধিস্থলে আঘাত যার ফলে লিগামেন্ট প্রসারিত হয় বা ছিঁড়ে যায়।

পেশির ধকল (স্ট্রেইন)

যখন কোন পেশি বা পেশিকে হাড়ের সাথে সংযুক্ত কারী টেন্ডন অতিরিক্ত প্রসারিত হয় বা ছিঁড়ে যায়, তাকে বলা হয় পেশির ধকল। পেশির ধকলকে পেশির টানও বলা হয়। কাদের এটি হয়?

যে কেউ পেশির টানের শিকার হতে পারেন। অবশ্য, খেলাধূলা বা অন্যান্য ধরণের শ্রমসাধ্য ব্যায়ামের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের এই পেশির টানের প্রবনতা বেশি থাকে। এর কারণ কি?

পেশি হল কিছু তন্তুর গুচ্ছ যা সংকুচিত হতে পারে। পেশিকে জোর করে শক্ত করার ক্রিয়াকলাপের জন্য পেশির টান ঘটতে পারে। ক্রিয়াকলাপের আগে পেশি ঠিকভাবে প্রসারিত না হওয়ার কারণে বা পেশিকে ঠিকমত উত্তাপিত না করার (ওয়ার্ম আপ) কারণে পেশির টান ঘটে; পেশি খুব দুর্বল হলে ঘটে; বা পেশি ইতিমধ্যে আহত থাকলে এবং সুস্থ হওয়ার সময় না দেওয়া হলেও এমন ঘটে। সুতরাং, ব্যায়াম বা খেলাধুলার সময় অনেক পেশির টান ঘটে। ভারী বস্তু তোলার সময়ও এগুলি ঘটতে পারে। উপসর্গগুলি কি কি?

যখন একটি পেশিতে টান লাগে, এটি ব্যথা করে এবং নড়াচড়া করা কঠিন হয়ে পড়ে। আপনি আহত পেশির অঞ্চলে জ্বলন্ত সংবেদন অনুভবও করতে পারেন বা মনে হতে পারে যেন কিছু "ছিটকে" যাচ্ছে। কখনও কখনও পেশির টানের জায়গাটিতে কালশিটে দাগ পড়ে বা ফুলে গেছে দেখা যায়। পেশির টানের অংশে খিঁচুনি হতে পারে, যার অর্থ পেশিটি হঠাৎ এবং অনিচ্ছাকৃতভাবে সংকুচিত হয়ে গেছে তীব্র ব্যথা সৃষ্টি করছে। এটা কিভাবে নির্ণয় করা হয়?

একটি পেশির টান নির্ণয় করতে, আপনার ডাক্তার বেদনাদায়ক অঞ্চলটি পরীক্ষা করবেন, তিনি জিজ্ঞাসা করবেন কিভাবে এবং কখন আঘাত লেগেছে। এর মধ্যে হাড়ের কোনো আঘাত আছে কি নেই বোঝার জন্য তিনি এক্স-রে এর মত অন্যান্য রোগনির্ণয়সংক্রান্ত পরীক্ষার আদেশ দিতে পারেন।

এর চিকিৎসা কি?

পেশির টানের চিকিৎসা করা হয় বিশ্রাম, বরফ, সংকোচন এবং উচ্চতা বা আরআইসিই (আর বা রেস্ট অর্থাৎ বিশ্রাম, আই বা আইস অর্থাৎ বরফ, সি বা কমপ্রেশন অর্থাৎ সংকোচন বা আহত স্থানটি মুড়ে রাখা এবং ই বা এলিভেশন অর্থাৎ স্থানটি উঁচু করে রাখা) দিয়ে। ব্যথা এবং ফোলা কমাতে আপনাকে আহত স্থানকে বিশ্রাম দিতে বলা হবে। আঘাত যদি পায়ের কোথাও হয়, আপনাকে ক্রাচ ব্যবহার করতে হতে পারে। আঘাতের পর প্রথম কয়েক দিন নিয়মিত বিরতিতে (আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী) বরফের পুঁটুলির সেঁক সুপারিশ করা হয়। বরফ রক্তনালীকে সংকুচিত করে, যাতে করে প্রদাহ এবং ব্যথা কমে যায়। ব্যথা উপশম করতে প্রদাহ নিরোধক ওষুধও ব্যবহার করা যেতে পারে। বেঁধে রাখা এবং আহত স্থানকে উচ্চতায় রাখা ফোলা কমাতে সাহায্য করে। আপনাকে দ্রুত সুস্থ করে তুলতে আপনার ডাক্তার ফিজিও থেরাপিরও সুপারিশ করতে পারেন। পেশি সম্পূর্ণরূপে নিরাময় না হওয়া পর্যন্ত আপনার যে কারণে আঘাত লেগেছিল সেই ধরণের সমস্ত কার্যকলাপ এড়িয়ে যাওয়া উচিত। স্ব-সতর্কতা পরামর্শ

আপনি যে কোনও কঠোর ব্যায়াম বা ভারী উত্তোলনে অংশ নেওয়ার আগে কমপক্ষে ১০ মিনিট আগে থেকে শরীর গরম করে (ওয়ার্ম আপ) পেশির টান প্রতিরোধ করতে পারেন। যখন আপনি শরীর গরম করেন, তখন আপনি পেশীতে রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়ান এবং তাকে ব্যায়ামের জন্য প্রস্তুত করেন। কোন নতুন ব্যায়াম প্রোগ্রাম বা খেলাধুলা শুরু করার সময়, ধীরে ধীরে শুরু করা গুরুত্বপূর্ণ যাতে আপনার পেশিগুলি আগামী কার্যকলাপের জন্য প্রস্তুত হতে পারে।

স্টেরয়েড[সম্পাদনা]

প্রাথমিক পুরুষ যৌন হরমোন টেস্টোস্টেরনের কৃত্রিম সংস্করণ, অ্যানাবলিক স্টেরয়েডের ইনজেকশন দেওয়া যেতে পারে, খাওয়া যেতে পারে বা ত্বকের মধ্যে (ট্রান্সডার্মালি) ব্যবহার করা যেতে পারে। এই ওষুধগুলি অত্যন্ত নিয়ন্ত্রিতভাবে ব্যবহার করতে হয়। এইডস আক্রান্ত শরীরের ক্ষয় হওয়া রোগীর চিকিৎসার জন্য এবং অন্যান্য রোগে, যাদের শরীরে অস্বাভাবিকভাবে কম পরিমাণে টেস্টোস্টেরন তৈরি হয়, তাদের চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত হতে পারে। যাইহোক, এই অবস্থার চিকিৎসার জন্য যে মাত্রা নির্ধারিত হয়, তা কর্মক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ব্যবহৃত মাত্রার তুলনায় ১০ থেকে ১০০ ভাগ কম।

পরিষ্কার করে বুঝে নিন:- অ্যানাবলিক স্টেরয়েড নির্দিষ্ট ধরনের কর্মক্ষমতা বা আকার উন্নত করতে পারে, কিন্তু তারা বিপজ্জনক ওষুধ, এবং যখন সঠিকভাবে সেগুলি ব্যবহার না করা হয়, তখন গুরুতর, দীর্ঘস্থায়ী এবং প্রায়শই অপরিবর্তনীয় ক্ষতিকর স্বাস্থ্যের পরিণতি ঘটতে পারে। এই ওষুধগুলি বর্ধনশীল কিশোর-কিশোরীদের উচ্চতা কমিয়ে দিতে পারে, মহিলাদের মধ্যে পুরুষত্ব আনতে পারে এবং পুরুষদের যৌন বৈশিষ্ট্যের পরিবর্তন করতে পারে। অ্যানাবলিক স্টেরয়েড ব্যবহারের ফলে অকালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হওয়া, স্ট্রোক, যকৃতের (লিভার) টিউমার, বৃক্ক (কিডনি) নষ্ট হওয়া এবং গুরুতর মানসিক সমস্যা হতে পারে। উপরন্তু, যেহেতু স্টেরয়েডগুলি প্রায়শই ইনজেকশনের মাধ্যমে দেওয়া হয়, ব্যবহারকারীদের এইচআইভি বা হেপাটাইটিস সংক্রামিত হওয়ার বা সংক্রমণ ছড়ানোর ঝুঁকি থাকে।

অ্যানাবলিক স্টেরয়েডের অপব্যবহার অন্যান্য অবৈধ পদার্থের অপব্যবহারের থেকে আলাদা কারণ অ্যানাবলিক স্টেরয়েডের প্রাথমিক ব্যবহারে তাৎক্ষণিকভাবে উচ্ছাস হয় না যা কোকেন, হেরোইন এবং মারিজুয়ানার মত বেশিরভাগ ওষুধের অপব্যবহারে সময় ঘটে, কিন্তু স্টেরয়েড ব্যবহারকারীর ইচ্ছা মত তাদের চেহারা এবং কর্মক্ষমতার পরিবর্তন করতে পারে, যা কিশোর-কিশোরীদের বৈশিষ্ট্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। স্টেরয়েডের এই প্রভাব আত্মবিশ্বাস এবং শক্তি বাড়িয়ে তুলতে পারে, তাই এই পদার্থগুলি থেকে হতে পারে এমন সম্ভাব্য গুরুতর দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতিকে ব্যবহারকারী উপেক্ষা করতে পারে। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অন ড্রাগ অ্যাবিউজ (এনআইডিএ) এর মতো সরকারি সংস্থাগুলি কিছু গবেষণায় সহায়তা করে যেগুলি স্টেরয়েড ব্যবহারের প্রভাব সম্পর্কে আমাদের বোধগম্যতা বাড়ায় এবং এই ওষুধগুলির অপব্যবহার প্রতিরোধ করার ক্ষেত্রে আমাদের ক্ষমতাকে উন্নত করে। উদাহরণ স্বরূপ, এনআইডিএ-এর অর্থায়ন দুটি অত্যন্ত কার্যকর প্রোগ্রামের বিকাশকে পরিচালিত করে যেটি শুধুমাত্র পুরুষ এবং মহিলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়াবিদদের মধ্যে অ্যানাবলিক স্টেরয়েড অপব্যবহার প্রতিরোধ করে তাই নয়, অন্যান্য স্বাস্থ্যকর আচরণ এবং মনোভাবেরও প্রচার করে। অ্যাটলাস (পুরুষ ক্রীড়াবিদদের লক্ষ্য করে) এবং অ্যাথেনা (মহিলা ক্রীড়াবিদদের লক্ষ্য করে) কর্মসূচিদুটি ২৯টি রাজ্য এবং পুয়ের্তো রিকোর স্কুলগুলি গ্রহণ করেছে৷ 'কংগ্রেস' এবং 'পদার্থের অপব্যবহার এবং মানসিক স্বাস্থ্য পরিষেবা প্রশাসন' উভয়ই অ্যাটলাস এবং অ্যাথেনা কে মডেল প্রতিরোধ কর্মসূচি হিসাবে অনুমোদন করেছে, যা সারা দেশে আরও বেশি সম্প্রদায়ে প্রয়োগ করা যেতে পারে এবং করা উচিত।

এই প্রতিরোধ কর্মসূচি এবং অন্যান্য গবেষণা প্রচেষ্টা ছাড়াও, স্টেরয়েড অপব্যবহারের বিপদ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য জনশিক্ষার প্রচেষ্টায় বিনিয়োগ করেছে। স্টেরয়েড অপব্যবহার সম্পর্কে আমাদের ওয়েবসাইট www.steroidabuse.gov-এ উপাদান রয়েছে এবং ২০০৫ সালের এপ্রিলে আমরা আবার একটি "গেম প্ল্যান" পাবলিক সার্ভিস ঘোষণা করা হবে যা অ্যানাবলিক স্টেরয়েডের অপব্যবহারের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য তৈরি করা হয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে যে অ্যানাবলিক স্টেরয়েডের অনুপযুক্ত ব্যবহারে বিপর্যয়কর চিকিৎসাগত, মানসিক এবং আচরণগত পরিণতি হতে পারে। আমি আশা করি যে শিক্ষার্থী, পিতামাতা, শিক্ষক, প্রশিক্ষক এবং অন্যান্যরা অ্যানাবলিক স্টেরয়েড অপব্যবহারের বিষয়ে আমাদের ওয়েবসাইটের তথ্যের সুবিধা গ্রহণ করবেন এবং আমাদের প্রতিরোধ ও শিক্ষা প্রচেষ্টায় আমাদের সাথে যোগ দেবেন। খেলাধুলায় অংশগ্রহণ করার অনেক উপযোগিতা আছে, কিন্তু তরুণ এবং প্রাপ্তবয়স্কদের জেতার প্রচেষ্টায় অপ্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য ঝুঁকি নেওয়া উচিত নয়। (নোরা ডি. ভলকো, এমডি)

- পুরুষ যৌন হরমোন সম্পর্কিত মানুষের তৈরি পদার্থ।

কিছু ক্রীড়াবিদ কর্মক্ষমতা বাড়ানোর জন্য অ্যানাবলিক স্টেরয়েডের অপব্যবহার করে। অ্যানাবলিক স্টেরয়েডের অপব্যবহারের ফলে গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে, যার মধ্যে কিছু তো অপরিবর্তনীয়।

প্রধান পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে যকৃৎ টিউমার এবং ক্যান্সার, জন্ডিস, উচ্চ রক্তচাপ, বৃক্কের টিউমার, গুরুতর ব্রণ সমস্যা এবং শরীরে কাঁপুনি থাকতে পারে। পুরুষদের ক্ষেত্রে, পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে অণ্ডকোষ সঙ্কুচিত হতে পারে এবং স্তনের বিকাশ ঘটতে পারে। মহিলাদের ক্ষেত্রে, পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে মুখের লোমের বৃদ্ধি, ঋতুস্রাবের পরিবর্তন এবং কণ্ঠস্বরের পরিবর্তন হতে পারে। কিশোর বয়সে, বৃদ্ধি অকালে এবং স্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

স্টেরয়েডের চিকিৎসাগত ব্যবহার ডাক্তাররা এমনভাবে করেন যাতে রোগী এবং ডাক্তার উভয়েই তার উপকার বুঝতে পারেন।

এমওয়াইওডি এবং অন্যান্য পেশি সম্পর্কিত কারণ[সম্পাদনা]

মায়োব্লাস্ট নির্ধারণ প্রোটিন বা এমওয়াইওডি হল একটি প্রোটিন এবং প্রতিলিপিকরণ ফ্যাক্টর। এটি নির্দিষ্ট নিয়ন্ত্রক জিনের প্রতিলিপি চালু করে পেশি কোষের পৃথকীকরণ সক্রিয় করে। এটি স্টেম কোষগুলিকে (মাতৃকোষ) মায়োব্লাস্টে পরিণত করে, মায়োব্লাস্ট হল এমন একটি কোষ যা অনেকগুলি পেশি কোষে পরিণত হতে পারে, যাকে "পেশি স্টেম কোষ"ও বলা হয়। এমওয়াইওডি প্রোটিনের একটি পরিবারের অন্তর্গত, যেটি মায়োজেনিক রেগুলেটরি ফ্যাক্টর (এমআরএফ) নামে পরিচিত। এমওয়াইওডি তার নিজস্ব নিয়ন্ত্রক জিনের প্রতিলিপিও চালু করতে পারে (এমওয়াইওডি প্রোটিন কোডিং জিন), এবং এর মানে হল যে এটি নিজেকেই আরও বেশি করে উৎপাদন করতে পারে। ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া অন্যান্য পেশী প্রোটিন, সেল সাইকেল ব্লকার এবং মাইক্রোআরএনএ-২০৬ এর প্রতিলিপিকরণ চালু করে। এমওয়াইওডি-এর অন্যতম প্রধান কাজ হল পি২১-এর প্রতিলিপিকরণ বাড়ানোর মাধ্যমে কোষ চক্র থেকে কোষ অপসারণ করা, মেসোডার্ম কোষকে কঙ্কালের পেশিতে পাঠানো। এটি পেশি মেরামতকেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।

দ্বিমুখী সংকেত প্রেরণ- পেশি কোষ এবং স্নায়ু কোষ একে অপরকে আগে পিছে সংকেত পাঠায়। অ্যামিওট্রফিক ল্যাটারাল স্ক্লেরোসিস (এএলএস) হল মোটর নিউরনের একটি ক্ষতি এবং এটি স্নায়ু ও পেশির সংযোগ গঠনে বাধা দেয়। অতএব, কোন পেশির বৃদ্ধি হয়না, যার অর্থ পক্ষাঘাত হওয়ার সম্ভাবনা। স্টিফেন হকিং এই রোগে ভুগেছেন।

পেশি সুস্থিতি[সম্পাদনা]

মাইক্রোআরএনএ-২০৬ পরোক্ষভাবে মোটর স্নায়ুর সাথে স্নায়ু ও পেশির সংযোগ গঠন করে। এই সন্ধিস্থল এমওয়াইওডি-তে সিনাপটিক (একটি স্নায়ুকোষ থেকে আরেকটি স্নায়ুকোষে সংকেত পাঠানো) সংকেত পাঠায় এবং এটি এমওয়াইওডিকে আটকে দেয়। এতে পেশির বিকাশ বন্ধ বা সীমিত হয়। মায়োস্ট্যাটিন একটি প্রোটিন, সেটিও এমওয়াইওডিকে আটকায়। মায়োস্ট্যাটিন না থাকলে পেশীর বিকাশ বৃদ্ধি পায়।

ভেড়ার মধ্যে মায়োস্ট্যাটিন পরিব্যক্তি: তাদের একটি মিউট্যান্ট (পরিব্যক্তির ফলে গঠিত নতুন জৈব) মায়োস্ট্যাটিন থাকতে পারে যা মাইক্রোআরএনএ-২০৬ মায়োস্ট্যাটিন প্রতিলিপিকরণকে আটকায়। মানুষের মধ্যে মায়োস্ট্যাটিন পরিব্যক্তি: মিউট্যান্ট মায়োস্ট্যাটিন সহ মানুষের পেশির প্রচুর বিকাশ ঘটবে (যেমন একজন শরীর গঠনকারী)। মায়োস্ট্যাটিন উৎপাদনকে আটকায় এমন একটি ওষুধ তৈরি করা সম্ভব।

মসৃণ পেশি সংকোচন[সম্পাদনা]

  • ক্যালসিয়ামের অন্তঃপ্রবাহ দ্বারা সংকোচন শুরু হয়, ক্যালসিয়াম ক্যালমোডুলিনের (ক্যালসিয়াম-মডুলেটেড প্রোটিন) সাথে আবদ্ধ হয়।
  • ক্যালসিয়াম-ক্যালমোডুলিন যৌগ মায়োসিন লাইট-চেইন (মায়োসিনের হালকা শৃঙ্খল) কিনাসের (উৎসেচক) সাথে আবদ্ধ হয় এবং তাকে সক্রিয় করে।
  • মায়োসিন লাইট-চেইন কিনেস এটিপি ব্যবহার করে মায়োসিন লাইট-চেইনকে ফসফরিলেটস (একটি ফসফেট গ্রুপকে এর সাথে আবদ্ধ করে) করে, যার ফলে তারা অ্যাক্টিন ফিলামেন্টের সাথে যোগাযোগ করতে পারে।
  • শক্তিশালী আঘাত।
  • রিসেপ্টর নিয়ন্ত্রিত নালিকা দ্বারা ক্যালসিয়ামকে সক্রিয়ভাবে কোষ থেকে বার করে দেওয়া হয়। একটি দ্বিতীয় বার্তাবাহক, আইপি৩, এই কাজটি করে।
  • ক্যালসিয়াম অপসারণ হওয়ার সাথে সাথে ক্যালসিয়াম-ক্যালমোডুলিন যৌগ মায়োসিন লাইট-চেইন কিনেস থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, ফসফোরিলেশন বন্ধ করে।
  • মায়োসিন ফসফেটেস মায়োসিনকে ডিফসফোরিলেট করে। যদি মায়োসিন একটি অ্যাক্টিন অণুর সাথে আবদ্ধ থাকে, তবে নিঃসরণ ধীর হয়, একে ল্যাচ অবস্থা বলে। এই পদ্ধতিতে, মসৃণ পেশি অনেক এটিপি ব্যবহার ছাড়াই কিছু সময়ের জন্য সংকুচিত থাকতে সক্ষম হয়। যদি মায়োসিন একটি অ্যাক্টিন শৃঙ্খলে আবদ্ধ না থাকে তবে এটি অ্যাক্টিনের সাথে আর এটির সম্বন্ধ থাকেনা।

এটা জানা দরকার যে ক্রসব্রিজ চক্র চালানোর জন্য এটিপি এখনও প্রয়োজন, এবং ক্রিয়েটাইন ফসফেটের মতো কোনও সঞ্চয় থাকেনা। বেশিরভাগ এটিপি সবাত বিপাক থেকে তৈরি হয়, তবে কম অক্সিজেন ঘনত্বের সময়ে অবাত উৎপাদন হতে পারে।

হৃদপেশি[সম্পাদনা]

হৃদপেশি মানুষের হৃদযন্ত্রে পাওয়া যায়।

মানবদেহে এটিপি[সম্পাদনা]

সমস্ত কোষের মতই পেশী কোষও শক্তির উৎস হিসাবে এটিপি ব্যবহার করে। যে কোনো সময়ে মানবদেহে এটিপি-এর মোট পরিমাণ প্রায় ০.১ মোল। মানব কোষ দ্বারা ব্যবহৃত শক্তির জন্য দৈনিক ২০০ থেকে ৩০০ মোল এটিপি এর হাইড্রোলাইসিস (আর্দ্র বিশ্লেষণ) প্রয়োজন। এর অর্থ হল এই যে প্রতিটি এটিপি অণু এক দিনে ২০০০ থেকে ৩০০০ বার পুনর্ব্যবহৃত হয়। এটিপি সংরক্ষণ করা যায় না, তাই এর সংশ্লেষণের সঙ্গে সঙ্গেই এর ব্যবহার হয়ে যায়। প্রতি ঘন্টার হিসেবে, ১ কিলোগ্রাম এটিপি তৈরি হয়, প্রক্রিয়াজাত করা হয় এবং তারপরে শরীরে পুনর্ব্যবহার করা হয়। একে অন্যদিক দিয়ে দেখলে, একটি একক কোষ তার বিপাকীয় চাহিদা মেটাতে প্রতি সেকেন্ডে প্রায় ১ কোটি এটিপি অণু ব্যবহার করে এবং প্রতি ২০-৩০ সেকেন্ডে তার সমস্ত এটিপি অণু পুনর্ব্যবহার করে।

ল্যাকটিক অ্যাসিড[সম্পাদনা]

বিপাকীয় পথ ধরে কার্বোহাইড্রেটের বিশ্লেষণ গ্লাইকোলাইসিস নামে পরিচিত। গ্লাইকোলাইসিসের শেষ পর্যায়ে উৎপন্ন হয় পাইরুভেট। এটি সবাত বা অবাত অবস্থার উপর নির্ভর করে বিভিন্ন দিকে যেতে পারে। সবাত প্রক্রিয়ায় এটি ক্রেবস চক্রের মধ্য দিয়ে যায় এবং অবাত প্রক্রিয়ায় এটি কোরি চক্রের মধ্য দিয়ে যায়। কোরি চক্রে পাইরুভেট ল্যাকটেটে রূপান্তরিত হয়, এটি ল্যাকটিক অ্যাসিড গঠন করে, ল্যাকটিক অ্যাসিড পেশিকে অবসন্ন করে। সবাত পরিস্থিতিতে পাইরুভেট ক্রেবস চক্রের মধ্য দিয়ে যায়। ক্রেবস চক্র সম্পর্কে আরও জানতে অধ্যায় ২ এর কোষীয় শারীরতত্ত্ব পড়ুন।

পেশির ব্যাধি[সম্পাদনা]

ডার্মাটোমায়োসাইটিস এবং পলিমায়োসাইটিস[সম্পাদনা]

ডার্মাটোমায়োসাইটিস এবং পলিমায়োসাইটিস পেশির প্রদাহ সৃষ্টি করে। এগুলি বিরল ব্যাধি, যা প্রতি বছর ১,০০,০০০ জনের মধ্যে একজনকে প্রভাবিত করে। পুরুষদের তুলনায় মহিলারা বেশি আক্রান্ত হয়। যদিও ব্যাধির সূচনার সর্বোচ্চ বয়স ৫০-এর দশকে, কিন্তু ব্যাধিগুলি যে কোনও বয়সে ঘটতে পারে।

লক্ষণ ও উপসর্গ — রোগীরা পেশি দুর্বলতার অভিযোগ করেন যটি সাধারণত কয়েক মাস ধরে চলতে থাকে, যদিও কিছু ক্ষেত্রে লক্ষণগুলি হঠাৎ আসে। আক্রান্ত পেশীগুলি শরীরের মধ্যভাগে থাকে (কব্জি বা পায়ে নয়), যেমন নিতম্ব, কাঁধ বা ঘাড়ের পেশি। শরীরের উভয় পাশের পেশি সমানভাবে প্রভাবিত হয়। কিছু ক্ষেত্রে, পেশিতে কালশিটে দেখা যায় বা পেশি কোমল হয়ে যায়। কিছু রোগীর গলনালী (গলা) বা খাদ্যনালীর (গলা থেকে পেটে যাওয়ার নালিকা) পেশি জড়িত থাকে, যার ফলে তাদের গিলতে সমস্যা হয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে, এর ফলে খাদ্যনালী থেকে খাবার ফুসফুসে চলে যায়, যার ফলে মারাত্মক নিউমোনিয়া হয়।

ডার্মাটোমায়োসাইটিসে, ত্বকে ফুসকুড়ি দেখা যায়, যদিও কখনও কখনও পেশির সমস্যা শুরু হওয়ার আগেই ফুসকুড়ি ঠিক হয়ে যায়। বিভিন্ন ধরণের ফুসকুড়ি হতে পারে, আঙ্গুল, বুকে এবং কাঁধে বা উপরের চোখের পাতায় ফুসকুড়ি দেখা যায়। বিরল ক্ষেত্রে, ডার্মাটোমায়োসাইটিসের ফুসকুড়ি দেখা যায় তবে মায়োপ্যাথি আর হয়না।

কখনও কখনও এই রোগগুলির সাথে যুক্ত অন্যান্য সমস্যাগুলির মধ্যে রয়েছে জ্বর, ওজন হ্রাস, আর্থ্রাইটিস, হাতের বা পায়ের আঙ্গুলগুলিতে ঠান্ডায় রঙের পরিবর্তন (রেনড উপসর্গ), এবং হার্ট বা ফুসফুসের সমস্যা।

পেশির ক্ষয়[সম্পাদনা]

বিকল্প নাম : পেশির অবক্ষয়, পেশি ক্ষয়, ক্ষয়

সাধারণ মানুষের ক্ষেত্রে বেশিরভাগ পেশি ক্ষয় অপব্যবহারের ফলে হয়। যারা বসে বসে কাজ করে তাদের এবং প্রবীণ নাগরিকদের পরিশ্রম কম হওয়ার ফলে পেশীর গঠন নষ্ট হতে পারে এবং তাতে উল্লেখযোগ্য ক্ষয় সৃষ্টি হতে পারে। প্রচুর ব্যায়াম করলে পেশির এই ক্ষয় পূরণ হতে পারে। শয্যাশায়ী ব্যক্তিদের উল্লেখযোগ্য পরিমানে পেশি ক্ষয় হতে পারে। পৃথিবীর মহাকর্ষীয় টান থেকে মুক্ত মহাকাশচারীরা মাত্র কয়েক দিন ওজনহীন থাকার পরে তাদের হাড়ের ক্যালসিয়াম হ্রাস পায় এবং পেশীর গঠন নষ্ট হয়।

রোগের ফলে যে পেশি ক্ষয় হয় তা সাধারণত দুই ধরনের হয়। একটি হল পেশিতে সংকেত সরবরাহকারী স্নায়ুর ক্ষতির ফলে ক্ষয়, এবং দ্বিতীয়টি পেশির নিজেরই অসুস্থতা। পেশিকে নিয়ন্ত্রণ করে এমন কিছু স্নায়ুর অসুখের উদাহরণ হল পোলিওমাইলাইটিস, পেশির পার্শ্ব কাঠিন্য (এএলএস বা লু গেহরিগের অসুখ), এবং গুলেন বারি সিনড্রোম। প্রাথমিকভাবে পেশিকে প্রভাবিত করে এমন কিছু অসুখের উদাহরণের মধ্যে আছে পেশিগত পুষ্টির অভাব (মাসকুলার ডিস্ট্রোফি), মায়োটোনিয়া কনজেনিটা এবং মায়োটোনিক ডিস্ট্রোফি। এছাড়া পাশাপাশি অন্যান্য জন্মগত, প্রদাহজনিত বা বিপাকীয় মায়োপ্যাথি পেশির অসুখের অন্তর্ভুক্ত।

এমনকি সামান্য পেশি ক্ষয়ের ফলেও সাধারণত কিছু গতিশীলতা বা শক্তি হ্রাস পায়।

সাধারণ কারণ

  • কিছু ক্ষয় যা সাধারণত বার্ধক্যের সাথে ঘটে
  • সেরিব্রোভাসকুলার দুর্ঘটনা (স্ট্রোক)
  • সুষুম্না কাণ্ডে আঘাত
  • প্রান্তস্থ স্নায়ুর আঘাত (পেরিফেরাল নিউরোপ্যাথি)
  • অন্য আঘাত
  • দীর্ঘদিন শয্যাশায়ী থাকা
  • অস্টিওআর্থারাইটিস (হাড়ের বাত)
  • রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস
  • দীর্ঘদিনের কর্টিকোস্টেরয়েড চিকিৎসা
  • বহুমূত্ররোগ (ডায়াবেটিক নিউরোপ্যাথি)
  • পুড়ে যাওয়া
  • পোলিওমাইলাইটিস (পোলিও)
  • পেশির পার্শ্ব কাঠিন্য (এএলএস বা লু গেহরিগের অসুখ)
  • গুলেন বারি সিনড্রোম
  • পেশিগত পুষ্টির অভাব (মাসকুলার ডিস্ট্রোফি)
  • মায়োটোনিয়া কনজেনিটা
  • মায়োটোনিক ডিস্ট্রোফি
  • মায়োপ্যাথি

পেশিগত পুষ্টির অভাব (মাসকুলার ডিস্ট্রোফি)[সম্পাদনা]

মাসকুলার ডিস্ট্রোফি (এমডি) হল বিরল উত্তরাধিকারসূত্রে পাওয়া পেশির রোগের একটি বর্গ যেখানে পেশি তন্তুগুলি ক্ষতির প্রতি অস্বাভাবিকভাবে সংবেদনশীল। প্রাথমিকভাবে ঐচ্ছিক পেশী ক্রমাগত দুর্বল হয়ে পড়ে। পেশীগত ডিস্ট্রোফির শেষ পর্যায়ে, পেশী তন্তুগুলি প্রায়ই চর্বি এবং সংযোগকারী কলা দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়। কিছু ধরণের পেশিগত ডিস্ট্রোফিতে, হৃৎপিণ্ডের পেশী, অন্যান্য অনৈচ্ছিক পেশি এবং কিছু অঙ্গ প্রভাবিত হয়।

পেশি প্রোটিন ডিস্ট্রোফিনের জিনগত ঘাটতির কারণে পেশিগত ডিস্ট্রোফির সবচেয়ে সাধারণ ধরন দেখা যায়। পেশিগত ডিস্ট্রোফির কোন নিরাময় নেই, তবে ওষুধ এবং চিকিৎসা রোগের গতিপথকে ধীর করে দিতে পারে।

চিকিৎসাক্ষেত্রে রহস্য[সম্পাদনা]

ঘুমের মধ্যে আকস্মিক টান[সম্পাদনা]

ঘুমের প্রাথমিক পর্যায়ে পেশিতে যে আকস্মিক টানের ঘটনা ঘটে তাকে বলা হয় একটি বিশাল হিপনিক জার্ক বা শুধুমাত্র হিপনিক জার্ক। এটিকে ঘুমের শুরু হিসাবেও উল্লেখ করা হয়েছে। এই বিষয় নিয়ে সামান্যই গবেষণা হয়েছে, কিন্তু এই নিয়ে কিছু তত্ত্ব উত্থাপন করা হয়েছে। জেগে থাকা অবস্থা থেকে সবে ঘুমোতে যাওয়ার অবস্থার মধ্যে, শরীরের তাপমাত্রা, শ্বাস-প্রশ্বাসের হার এবং পেশির গঠন সম্পর্কিত শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তন ঘটে। হিপনিক জার্ক পেশির শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তনের ফলাফল হতে পারে। আরেকটি তত্ত্ব বলে যে জেগে থাকা থেকে ঘুমন্ত অবস্থায় রূপান্তর শরীরকে শিথিল করার সংকেত দেয়। কিন্তু মস্তিষ্ক এই শিথিলতাকে পতনের চিহ্ন হিসাবে ধারণা করতে পারে এবং তারপরে হাত ও পাকে জেগে ওঠার সংকেত দিতে পারে। ইলেক্ট্রোএনসেফালোগ্রাম গবেষণায় দেখা গেছে যে এই ঘুম শুরু হওয়া নিয়মিতভাবে প্রভাবিত করে জনসংখ্যার প্রায় ১০ শতাংশকে, মাঝে মাঝে ৮০ শতাংশকে এবং কদাচিৎ অন্য ১০ শতাংশকে।

পেশির নড়াচড়া বা মোচড়ও র‍্যাপিড আই মুভমেন্ট (দ্রুত চোখের চলাচলের ঘুম) বা রেম ঘুমের পর্যায়ে ঘটতে পারে। এই সময় মানুষ স্বপ্নও দেখে। রেম পর্বের সময়, পেশির গঠন বন্ধ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সমস্ত ঐচ্ছিক পেশির কার্যকলাপ বন্ধ হয়ে যায়, কিন্তু কিছু ব্যক্তি সামান্য চোখের পাতা নড়া বা কান কুঁচকে যাওয়া বা সামান্য ঝাঁকুনি অনুভব করতে পারে। রেম আচরণগত ব্যাধি বা আরবিডি সহ কিছু মানুষ ঘুমের সময় আরও প্রচণ্ড পেশি ঝাঁকুনি এবং পেশির পূর্ণাঙ্গ কার্যকলাপ অনুভব করতে পারে। এর কারণ হল ঘুমের সময় তাদের পেশি শিথিল হয় না এবং ফলস্বরূপ, স্বপ্ন অনুযায়ী কাজ করতে থাকে। গবেষকরা মনে করেন, যে স্নায়বিক আত্মরক্ষামূলক বেড়া ঘুমের বিভিন্ন স্তরকে সংজ্ঞায়িত করে আরবিডি আক্রান্ত ব্যক্তিদের সেই বেড়া থাকেনা। মায়ো ক্লিনিক দ্বারা করা নতুন গবেষণা এবং স্লিপ মেডিসিনের ২০০৩ সালের জুলাইতে প্রকাশিত সংখ্যায় বলা হয়েছে যে মেলাটোনিন আরবিডি উপসর্গ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

উৎস সমূহ:

ঘুমের মধ্যে আকস্মিক টান, বা মায়োক্লোনিক ঝাঁকুনি এই ওয়েবসাইটে সহজে বোধগম্য ভাষায় ব্যাখ্যা করা হয়েছে।
রেম আচরণগত ব্যাধি বা আরবিডি এবং আক্রান্তদের চিকিৎসা সম্পর্কে আরও জানুন।
বিভিন্ন ঘুমের ব্যাধি যেমন অনিদ্রা, অ্যাপনিয়া এবং নারকোলেপসি সম্পর্কে তথ্য দেখুন।

জীবাণুবিজ্ঞান[সম্পাদনা]

ক্লোস্ট্রিডিয়াম টিটানি
টিটেনাস
সাধারণত একটি স্নায়ু আবেগ একটি পেশী সংকোচন শুরু করে। একই সময়ে, পাল্টা একটি প্রতিরোধক পেশী শিথিল করার সংকেত পায় যাতে সংকোচনের বিরোধিতা না হয়। টিটেনাস টক্সিন শিথিলতা অবরুদ্ধ করে, তাই দুরকম পেশিই সংকুচিত হয়। টিটানির স্বাভাবিক কারণ হল ক্যালসিয়ামের অভাব, তবে অতিরিক্ত ফসফেট (ফসফেট-ক্যালসিয়াম অনুপাত উচ্চ) খিঁচুনি শুরু করতে পারে।
ক্লোস্ট্রিডিয়াম বটুলিনাম
শিশুদের বটুলিসম (ফ্লপি বেবি উপসর্গ) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বটুলিসমের চারটি রূপের মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ বটুলিসম (ব্যাকটেরিয়া কর্তৃক উৎপাদিত ব্যাধি)।
এটি মূলত খাদ্যবাহিত রোগ। যদি মুখে যায়, অধিবিষটি (টক্সিন) অন্ত্রে শোষিত হয়, সেখান থেকে রক্তে মেশে এবং তারপর স্নায়ুতন্ত্রে পৌঁছে যায়। এটি প্রান্তীয় স্নায়ুতন্ত্রের উপর কাজ করে। সাধারণত স্নায়ুতন্ত্র দ্বারা বাহিত স্পন্দনকে এটি আটকে দেয়। এই স্পন্দন মোটর স্নায়ু দিয়ে পেশিতে গিয়ে পেশি সংকোচনকে সংকেত দেয়। স্পন্দনের রাস্তা বন্ধ হওয়ার ফলে পেশি শিথিল হয়ে কাজ করা বন্ধ করে দেয় এবং তার ফলে পক্ষাঘাত হয়।

শব্দকোষ[সম্পাদনা]

অ্যাক্টিন
একটি প্রোটিন যা মাইক্রোফিলামেন্ট নামে একটি দীর্ঘ পলিমার রড গঠন করে; পেশীর নড়াচড়া করতে মায়োসিনের সাথে বিক্রিয়া করে।
এটিপি
"অ্যাডিনোসিন ট্রাইফসফেট" একটি নিউক্লিওটাইড যা অ্যাডেনোসিন থেকে আসে এবং পেশি কলায় স্থান পায়: কোষীয় প্রতিক্রিয়ার জন্য শক্তির একটি বড় উৎস এটি।
হৃদপেশি
এটি একটি "অনৈচ্ছিক পেশি" হলেও এটি বিশেষ ধরণের একটি পেশী যা শুধুমাত্র হৃদযন্ত্রের মধ্যেই পাওয়া যায়।
ক্লোস্ট্রিডিয়াম বটুলিনাম
এক ধরণের ব্যাকটেরিয়া বটুলিসম সৃষ্টি করে, গ্রাম রঞ্জনে স্পষ্টরূপে বর্ণিত (পজিটিভ), এর অঙ্গসংস্থান রড আকৃতির, অবাত পরিস্থিতিতে বৃদ্ধি পায় এবং বীজগুটি (স্পোর) তৈরি করে।
ক্লোস্ট্রিডিয়াম টেটানি
একটি ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ধনুষ্টঙ্কারের (লক জ) কারণ, গ্রাম রঞ্জনে স্পষ্টরূপে বর্ণিত, অঙ্গসংস্থান হল টেনিস র‍্যাকেট আকৃতির রড, অবাত পরিস্থিতিতে বৃদ্ধি পায় এবং বীজগুটি (স্পোর) তৈরি করে।
কোরি চক্র
অবাত শ্বসনের সময় ল্যাকটিক অ্যাসিড তৈরি করে।
শিরায় টান
একটি স্থানীয় পেশির খিঁচুনি যা কঠিন পরিশ্রমের পরে ঘটে।
গ্লাইকোজেন
গ্লুকোজ যা শক্তি সঞ্চয়ের জন্য রূপান্তরিত হয়েছে। পেশিগুলি এই আকারে তাদের নিজস্ব ব্যবহারের জন্য শক্তি সঞ্চয় করে।
ল্যাকটিক অ্যাসিড
পেশিতে ক্লান্তি সৃষ্টি করে।
পেশি
সংকোচনশীল কলা যা ভ্রূণের জীবাণু কোষের মেসোডার্মাল স্তর থেকে উদ্ভূত হয়।
পেশিগত ডিস্ট্রোফি
একটি বংশগত রোগ যা পেশী তন্তুগুলির ক্রমবর্ধমান ক্ষয় দ্বারা চিহ্নিত করা হয়
মায়োসিন
তন্তুযুক্ত মোটর প্রোটিন যা অ্যাক্টিন ফিলামেন্টের সাথে চলাচল করতে এটিপি ব্যবহার করে।
সারকোপ্লাজমিক রেটিকুলাম
মসৃণ-তলযুক্ত নলগুলি প্রতিটি মায়োফাইব্রিলের চারপাশে একটি জালক গঠন করে যা ক্যালসিয়াম আয়ন (CA+২) এর জন্য সংরক্ষণাগার এবং মুক্তি ক্ষেত্র হিসাবে কাজ করে।
কঙ্কালের পেশি
এই "ঐচ্ছিক পেশি" টেন্ডন দ্বারা হাড়ের সঙ্গে যুক্ত হয় এবং কঙ্কালের গতিবিধি যেমন চলনকে প্রভাবিত করতে ব্যবহৃত হয়।
মসৃণ পেশী
এই "অনৈচ্ছিক পেশি" অন্ননালী, পাকস্থলী, অন্ত্র, ব্রঙ্কি, জরায়ু, মূত্রনালী, মূত্রাশয় এবং রক্তনালীগুলির মতো অঙ্গ এবং কাঠামোর দেয়ালের মধ্যে পাওয়া যায়।
মচকান
এমন আঘাত যা একটি প্রসারিত বা ছেঁড়া লিগামেন্টের কারণে হয়।
পেশির ধকল
পেশি বা টেন্ডন সংযুক্তিতে আঘাত

চ্যারিটিন; পেশি বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে ব্যবহৃত এক ধরণের ওষুধ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • ভ্যান ডি গ্রাফ (২০০২) হিউম্যান অ্যানাটমি ষষ্ঠ সংস্করণ। ম্যাকগ্রা-হিল হায়ার এডুকেশন
  • উইন্ডমায়ার, পি.ডব্লিউ. রাফ, এইচ. স্ট্র্যাং, টি.এস. (২০০৪) ভ্যান্ডার, শেরম্যান অ্যাণ্ড লুসিয়ানো'জ হিউম্যান ফিজিওলজি, দ্য মেকানিজম অফ বডি ফাংশন ৯ম সংস্করণ। ম্যাকগ্রা-হিল

নিল এ. ক্যাম্পবেল, জেন বি. রিস "বায়োলজি ৮ম সংস্করণ"