মানব শারীরতত্ত্ব/পরিপাকতন্ত্র

উইকিবই থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

ভূমিকা[সম্পাদনা]

কোন অঙ্গটি শরীরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ? বেশিরভাগ লোকই বলতে পারে হৃদপিন্ড বা মস্তিষ্ক, তারা সম্পূর্ণরূপে পরিপাকতন্ত্রের এলাকাটি (জিআই ট্র্যাক্ট) উপেক্ষা করে। যদিও এটি নিশ্চিতভাবেই শরীরের সবচেয়ে আকর্ষণীয় অঙ্গ নয়, কিন্তু এটি অবশ্যই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। ৩০+ ফুট লম্বা নল যা মুখ থেকে পায়ু বা মলদ্বার পর্যন্ত বিস্তৃত, সেটি শরীরের বিভিন্ন কাজের দায়িত্ব নেয় যা এই অধ্যায়ে পর্যালোচনা করা হবে। পরিপাক নালী আমাদের সুস্থতা এবং আমাদের আজীবন স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। একটি অ-কার্যকর বা খারাপভাবে কার্যকর পরিপাক নালী অনেক দীর্ঘস্থায়ী স্বাস্থ্য সমস্যার উৎস হতে পারে যা আপনার জীবনযাত্রার মানকে নিম্নমুখী করতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে একজন ব্যক্তির মৃত্যু অন্ত্রের ক্রিয়ার জনই শুরু হয়।

পুরানো প্রবাদ "তুমি যা খাও তুমি তাই" সম্ভবত আরও সঠিক হবে যদি বলা হত "তুমি যা শোষণ এবং হজম কর তুমি তাই"। এখানে আমরা পাচনতন্ত্রের এই দুটি কাজের গুরুত্ব দেখব: হজম এবং শোষণ।

আমাদের পরিপাকতন্ত্র জীবন টিঁকিয়ে রাখার উদ্দেশ্যে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন খাদ্য ও তরলের ভাঙ্গন এবং শোষণের জন্য দায়ী। খাদ্য হজমের ক্ষেত্রে বিভিন্ন অঙ্গের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে, দাঁত দ্বারা যান্ত্রিক ভাবে চর্বন থেকে শুরু করে যকৃৎ দ্বারা পিত্ত (একপ্রকার নির্যাস) সৃষ্টি পর্যন্ত। যকৃতে উৎপাদিত পিত্ত হজমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে: দুবার খাদ্যগ্রহণের মধ্যবর্তী সময়ে পিত্তথলিতে সঞ্চিত ও ঘনীভূত হওয়া থেকে শুরু করে ক্ষুদ্রান্ত্রে নিঃসৃত হওয়া পর্যন্ত এর কাজ চলে। বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গের মধ্যে ক্রিয়া বোঝার জন্য আমরা মানবদেহের মধ্য দিয়ে খাদ্যের যাত্রাপথ অনুসরণ করব। হজমের সময়, দুটি প্রধান প্রক্রিয়া একই সময়ে ঘটে;

  • যান্ত্রিকভাবে হজম: রাসায়নিক হজমের জন্য প্রস্তুত করার সময় খাবারের বড় টুকরো ছোট ছোট টুকরো হয়ে যায়। যান্ত্রিক হজম মুখের মধ্যে শুরু হয় এবং পাকস্থলী পর্যন্ত চলতে থাকে।
  • রাসায়নিক হজম: মুখের মধ্যে শুরু হয় এবং অন্ত্র পর্যন্ত চলতে থাকে। বেশ কিছু ভিন্ন ধরণের উৎসেচক ম্যাক্রো-অণুকে ভেঙ্গে ছোট অণুতে পরিণত করে যেগুলি শোষিত হতে পারে।

পরিপাকতন্ত্রের পথ মুখ থেকে শুরু হয় এবং খাদ্যনালী, পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত্র (পরপর আছে গ্রহণী বা ডিওডেনাম, জেজুনাম, ইলিয়াম) এবং তারপর বৃহদন্ত্র (কোলন) হয়ে মলাশয়ে চলে যায় এবং পায়ুতে শেষ হয়। আপনি সম্ভবত বলতে পারেন মানুষের শরীর একটি বড় ডোনাটের মতো। পরিপাকতন্ত্রের পথ হল সেই ডোনাটের গর্ত। আমরা অগ্ন্যাশয়, যকৃৎ এবং পরিপাকতন্ত্রের আনুষঙ্গিক অঙ্গগুলি নিয়েও আলোচনা করব যারা খাদ্যের সমস্ত উপাদানগুলিকে নিয়ে ক্ষুদ্রান্ত্রে পৌঁছোয়।

পরিপাকতন্ত্রের স্তরগুলি[সম্পাদনা]

পরিপাকতন্ত্রের পথ চারটি স্তর নিয়ে গঠিত যা টিউনিক নামেও পরিচিত। প্রতিটি স্তরের বিভিন্ন কলা এবং কাজ রয়েছে। ভেতর থেকে বাইরে তারা পরপর হল: মিউকোসা বা শ্লৈষ্মিক ঝিল্লি, সাবমিউকোসা আ উপ-শ্লৈষ্মিক ঝিল্লি, মাসকুলারিস এবং সেরোসা।

মিউকোসা: মিউকোসা হল শোষণকারী এবং নিঃসরণকারী স্তর। এটি সরল এপিথেলিয়াম কোষ এবং একটি পাতলা সংযোগকারী কলা দ্বারা গঠিত। মিউকোসার মধ্যে অবস্থিত বিশেষ গবলেট কোষ পুরো পরিপাকতন্ত্রের পথ জুড়ে শ্লেষ্মা নিঃসরণ করে। মিউকোসা স্তরে ভিলি এবং মাইক্রো ভিলি রয়েছে।

সাবমিউকোসা: সাবমিউকোসা তুলনামূলকভাবে পুরু, রসনালী ইত্যাদিতে পূর্ণ এবং মিউকোসাকে সাহায্য করে। মিউকোসার মধ্য দিয়ে যাওয়া শোষিত উপাদানগুলি সাবমিউকোসার রক্তনালী থেকে সংগ্রহ হয়। সাবমিউকোসায় গ্রন্থি এবং স্নায়ু জালকও রয়েছে।

মাসকুলারিস: পরিপাক নালীতে সেগমেন্টাল সংকোচন এবং পেরিস্টালসীয় চলাচলের জন্য মাসকুলারিস দায়ী। মাসকুলারিস দুটি স্তরের পেশী দ্বারা গঠিত: মসৃণ পেশীর একটি অভ্যন্তরীণ বৃত্তাকার স্তর এবং বাইরের অনুদৈর্ঘ্য স্তর। এই পেশীগুলি পরিপাকতন্ত্রের পথ বরাবর হজমকারী উৎসেচকের মধ্যে খাবারকে নড়াচড়া করে এবং মন্থন করে।

সেরোসা: শেষ স্তরটি একটি প্রতিরক্ষামূলক স্তর। এটি রক্তনালীবিহীন সংযোজক কলা এবং সাধারণ স্কোয়ামাস এপিথেলিয়াম দ্বারা গঠিত। এটি পিচ্ছিল সিরাস তরল নিঃসরণ করে। এটি এই তন্ত্রের বাইরের দিকের দৃশ্যমান স্তর।

আনুষঙ্গিক অঙ্গ[সম্পাদনা]

দাঁত, জিহ্বা, এবং লালা গ্রন্থি
১. লালা গ্রন্থি
  • প্যারোটিড গ্রন্থি, সাব-ম্যাক্সিলারি গ্রন্থি, সাবলিঙ্গুয়াল গ্রন্থি
  • বহিঃক্ষরা গ্রন্থি, লালা তৈরি করে যাতে অ্যামাইলেজ থাকে এবং সেটি দিয়ে হজমের প্রক্রিয়া শুরু হয়
২. জিহ্বা
  • চিবোনো/গিলে খাওয়ার জন্য খাবারকে নিপুণতার সঙ্গে নাড়া চাড়া করা
  • প্রধান স্বাদ অঙ্গ, স্বাদ কোরক আবৃত
৩. দাঁত
  • খাবার চিবোনোর জন্য
৪. যকৃৎ
  • চর্বির মিশ্রণ করার জন্য প্রয়োজনীয় পিত্ত উৎপাদন করে এবং নির্গত করে। কিছু পিত্ত সরাসরি ডিওডেনামে চলে যায় এবং কিছু পিত্তথলিতে জমা হয়।
  • প্রোটিন, লিপিড এবং কার্বোহাইড্রেট বিপাক করতে সাহায্য করে।
  • স্তন্যপায়ী প্রাণীর বিপাকের প্রধান শেষ উৎপাদন, ইউরিয়া। এটি গঠিত হয় যকৃতে, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং অ্যামোনিয়ার যৌগ থেকে।
  • ইনসুলিন এবং অন্যান্য হরমোন ভেঙে দেয়।
  • রক্ত জমাট বাঁধার প্রয়োজনীয় উপাদান তৈরি করে।
৫. পিত্তাশয়
  • পিত্তের আধার
৬. অগ্ন্যাশয়
  • বহিঃক্ষরা কার্যকলাপ: পাচনের জন্য উৎসেচক নিঃসরণ।
    • জাইমোজেন (নিষ্ক্রিয় উৎসেচক) সঞ্চয় করে, যখন একজন ব্যক্তি খাদ্যের মাধ্যমে প্রোটিন (অ্যামিনো অ্যাসিড) গ্রহণ করে তখন এটি ক্ষুদ্রান্ত্রে ব্রাশ বর্ডার ঝিল্লি দ্বারা সক্রিয় হয়।
    • ট্রিপসিনোজেন - ট্রিপসিন: প্রোটিন হজম করে।
    • কাইমোটাইপসিনোজেন - কাইমোট্রিপসিন: প্রোটিন হজম করে।
    • কার্বক্সিপেপটিডেস: প্রোটিন হজম করে।
    • লিপেজ-লিপিড: স্নেহ পদার্থ হজম করে।
    • অ্যামাইলেজ: কার্বোহাইড্রেট হজম করে।
  • অন্তঃক্ষরা কার্যকলাপ: হরমোন নিঃসরণ।
    • সোমাটোস্ট্যাটিন: ইনসুলিনের কাজকে বাধা দেয়। শরীরে খুব বেশি গ্লুকোজ এলে উৎপাদিত হয়।
    • গ্লুকাগন: লিভারে সঞ্চিত গ্লাইকোজেনকে গ্লুকোজে রূপান্তরিত করতে উদ্দীপিত করে। শরীরে পর্যাপ্ত গ্লুকোজ না থাকলে উৎপাদিত হয়।
    • ইনসুলিন: অগ্ন্যাশয়ের আইলেটস অফ ল্যাঙ্গারহ্যান্সের বিটা কোষে তৈরি। এই হরমোন রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করে।
৭. ভার্মিফর্ম অ্যাপেন্ডিক্স
  • অ্যাপেন্ডিক্স কি করে তার কিছু তত্ত্ব আছে।
    • বর্তমানে শরীরের অকেজো অঙ্গ
    • অনাক্রম্য কার্যকলাপ
    • আন্ত্রিক অণুজীবসমগ্রের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে

পাচনতন্ত্র[সম্পাদনা]

Digestive system diagram en.svg

পাচনতন্ত্রের প্রথম ধাপ আসলে শুরু হতে পারে মুখে খাবার আসার আগেই। যখন আপনি এমন কিছুর গন্ধ পান বা দেখতে পান যা আপনি খাবেন, তখন খাওয়ার প্রত্যাশায় আপনার মুখে লালা জমা হতে শুরু হয়, এইভাবে হজম প্রক্রিয়া শুরু হয়।

খাদ্য শরীরের জ্বালানীর উৎস। খাদ্যের পুষ্টি শরীরের কোষগুলিকে কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় শক্তির যোগান দেয়। খাদ্যকে শরীরে ব্যবহার করার আগে এটিকে ছোট ছোট টুকরো করতে হবে যাতে এটি শরীর দ্বারা শোষিত এবং ব্যবহৃত হতে পারে। মানুষের শরীরের মধ্যে, প্রোটিনকে অ্যামিনো অ্যাসিডে, শ্বেতসারকে শর্করাতে এবং স্নেহ পদার্থকে স্নেহজ অ্যাসিড ও গ্লিসারলে ভেঙে ফেলা দরকার।

হজমের সময় একই সঙ্গে দুটি প্রধান প্রক্রিয়া ঘটে:

  • যান্ত্রিকভাবে হজম: রাসায়নিক হজমের জন্য প্রস্তুত করার সময় খাবারের বড় টুকরো ছোট ছোট টুকরো হয়ে যায়। যান্ত্রিক হজম মুখের মধ্যে শুরু হয় এবং পাকস্থলী পর্যন্ত চলতে থাকে।
  • রাসায়নিক হজম: বিভিন্ন উৎসেচক ম্যাক্রো অণুগুলিকে ছোট অণুতে ভেঙে দেয় যাতে সেগুলি আরও দক্ষতার সাথে শোষিত হতে পারে। রাসায়নিক হজম মুখের লালা দিয়ে শুরু হয় এবং অন্ত্র পর্যন্ত চলতে থাকে।

পাচনতন্ত্রটি পাকনালী বা পাচনতন্ত্রের নালী এবং উদরের অন্যান্য অঙ্গ দ্বারা গঠিত হয় যা হজমে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। অন্যান্য অঙ্গ গুলির মধ্যে আছে যকৃৎ এবং অগ্ন্যাশয়। পাচনতন্ত্রের নালী হল বিভিন্ন অঙ্গের দীর্ঘ নালী যা মুখ (যেখান থেকে খাদ্য প্রবেশ করে) থেকে শুরু হয়ে পায়ুতে (যেখান দিয়ে অপাচ্য বর্জ্য বার হয়ে যায়) গিয়ে শেষ হয়। পাচনতন্ত্রের নালীর অঙ্গগুলির মধ্যে রয়েছে মুখ (দন্ত দ্বারা চূর্ণনের জন্য), খাদ্যনালী, পাকস্থলী এবং অন্ত্র। প্রাপ্তবয়স্কদের গড় পরিপাক নালী প্রায় ত্রিশ ফুট (৩০') লম্বা হয়। পরিপাক নালীতে থাকাকালীন খাদ্য শরীরে থাকার পরিবর্তে সত্যিই শরীরের মধ্যে দিয়ে যায়। খাদ্য যেমন যেমন শোষণযোগ্য পরমাণু এবং অণুতে ভেঙে যায়, নলাকার পাচক অঙ্গগুলির মসৃণ পেশীগুলি খাদ্যকে দক্ষতার সাথে স্থানান্তরিত করে। শোষণের সময়, খাদ্য থেকে আসা পুষ্টি (যেমন প্রোটিন, স্নেহ পদার্থ, শর্করা, ভিটামিন এবং খনিজ) ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রাচীরের মধ্য দিয়ে গিয়ে রক্ত ​​​​প্রবাহ এবং লসিকার সঙ্গে মিশ্রিত হয়। এরপর সংবহন তন্ত্রের মাধ্যমে শরীরের বাকি অংশে পুষ্টি বিতরিত হয়। বৃহদন্ত্রে জলের পুনঃশোষণ এবং কিছু খনিজ শোষণের পরে বর্জ্য হিসেবে মল তৈরি হয়। মলদ্বার বা পায়ু দিয়ে খাদ্যের যে বর্জ্য অংশগুলো শরীরের বাইরে বেরিয়ে যায় সেগুলোকে মল বলে।

দন্ত দ্বারা চূর্ণন

হজমের প্রক্রিয়া মুখের মধ্যেই শুরু হয়ে যায়। যখন আমরা খাবার দেখি বা চিন্তা করি তখন মস্তিষ্কে তার প্রতিফলন হয়ে লালা প্রবাহ শুরু হয়। লালা খাবারকে আর্দ্র করে এবং দাঁত একে চিবিয়ে নিয়ে গিলে ফেলা সহজ করে। লালায় থাকা হজমকারী উৎসেচক অ্যামাইলেজ, খাবার মুখ থেকে বের হওয়ার আগেই শ্বেতসারকে সহজ শর্করাতে ভাঙ্গতে শুরু করে। লালা নির্গমনের সাথে জড়িত স্নায়বিক পথের জন্য মুখের রিসেপ্টরগুলির উদ্দীপনা, মস্তিষ্কের কাণ্ডে সংবেদনশীল আবেগ এবং লালা গ্রন্থিগুলিতে পরা-অনুকম্পী আবেগের প্রয়োজন হয়।

যখন আপনার জিহ্বা এবং মুখের পেশীর সাহায্যে খাবার গিলে ফেলেন তখন সেটি আপনার গলবিল-এ (ফ্যারিংক্স) পৌঁছোয়। খাদ্য ও বাতাসের প্রবেশপথ, গলবিল, প্রায় পাঁচ ইঞ্চি (৫") লম্বা। এপিগ্লোটিস নামক ত্বকের একটি ছোট ফ্ল্যাপ গলবিলের উপর বন্ধ হয়ে যায় যাতে খাবার শ্বাসনালীতে প্রবেশ করতে না পারে এবং যাতে দম বন্ধ করে দিতে না পারে। গিলে ফেলাটি সঠিকভাবে ঘটাতে ২৫টি পেশীর একটি সংমিশ্রণ একই সময়ে একসাথে কাজ করে। লালা গ্রন্থিগুলি প্রতিদিন আনুমানিক তিন লিটার লালা উৎপাদন করে।

উৎসেচক তৈরি হয় মুক্ত হয় পিএইচ মাত্রা
শর্করা পরিপাক:
লালারসের অ্যামাইলেজ লালা গ্রন্থি মুখ নিরপেক্ষ
অগ্ন্যাশয়ের অ্যামাইলেজ অগ্ন্যাশয় ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষারীয়
মল্টেজ ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষারীয়
প্রোটিন পরিপাক:
পেপসিন পরিপাক গ্রন্থি পাকস্থলী আম্লিক
ট্রিপসিন অগ্ন্যাশয় ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষারীয়
পেপটিডেস ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষারীয়
নিউক্লিক অ্যাসিড পরিপাক:
নিউক্লিজ অগ্ন্যাশয় ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষারীয়
নিউক্লিওসিডেস অগ্ন্যাশয় ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষারীয়
স্নেহ পদার্থ পরিপাক:
লাইপেজ অগ্ন্যাশয় ক্ষুদ্রান্ত্র ক্ষারীয়

অন্ননালী[সম্পাদনা]

Gray1032.png

অন্ননালী বা ইসোফেগাস বা গালেট হল মেরুদণ্ডী প্রাণীর শরীরে অবস্থিত একটি পেশীবহুল নালিকা যার মাধ্যমে গৃহীত খাদ্য গলা থেকে পাকস্থলীতে যায়। কশেরুকার সি৬ স্তরে গলবিলের স্বরযন্ত্রের অংশের সাথে অন্ননালী অবিচ্ছিন্নভাবে থাকে। এটি পাকস্থলীর সাথে গলবিলকে সংযুক্ত করে। গলবিল হল শরীরের একটি গহ্বর যেটি মুখের পেছন দিকে থাকে, এটি পরিপাক তন্ত্র এবং শ্বাসযন্ত্র উভয়ের জন্যই সাধারণ। পাকস্থলীতে বিপাকের দ্বিতীয় পর্যায়ের সূচনা হয় (প্রথম পর্যায়টি মুখের মধ্যে দাঁত ও জিহ্বা দিয়ে খাবার মসৃণ করা এবং লালার সাথে মেশানো দিয়ে শুরু)।

গলা দিয়ে যাওয়ার পর, খাদ্য অন্ননালীতে চলে যায় এবং পেরিস্টালসিস (পাচনতন্ত্রের নালী বরাবর তরঙ্গের মত করে অনৈচ্ছিক পেশী সংকোচন) প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পাকস্থলীতে ঠেলে দেওয়া হয়। খাদ্যনালীর শেষে একটি অবরোধী (স্ফিঙ্কটার) বা পেশীর বেড় থাকে যেটি খাদ্যকে পাকস্থলীতে প্রবেশ করতে দেয় তারপর আবার বন্ধ হয়ে যায় তাই খাদ্য আর খাদ্যনালীতে ফিরে যেতে পারে না।

কলাস্থানবিদ্যা

অন্ননালীতে শ্লেষ্মা ঝিল্লির আবরণ রয়েছে, এবং গিলে ফেলা খাবারকে পাকস্থলীতে নিয়ে যাওয়ার জন্য অন্ননালী পেরিস্টালসিস ক্রিয়া ব্যবহার করে।

অন্ননালীতে একটি স্তরিত স্কোয়ামাস এপিথেলিয়াম এর আবরণ রয়েছে, যা দ্রুত উল্টে যায় এবং একটি প্রতিরক্ষামূলক প্রভাব দেয় যেহেতু পাকস্থলীতে একসঙ্গে অনেকখানি খাদ্য, লালা এবং শ্লেষ্মা স্থানান্তরিত হয়। অন্ননালীতে ল্যামিনা প্রোপ্রিয়া (সংযোজক কলার পাতলা স্তর) অল্পপরিমাণে থাকে। শ্লেষ্মা নিঃসরণকারী গ্রন্থিগুলি সাবমিউকোসায় অবস্থিত এবং এটি "প্যাপিলি" নামক একটি সংযোগকারী কাঠামো।

অন্ননালীর মাসকুলারিস প্রোপ্রিয়া অন্ননালীর উপরের তৃতীয় (উর্ধ্ব) অংশে বিলেখিত (স্ট্রিয়েটেড) পেশী নিয়ে গঠিত। মাঝের তৃতীয়টি মসৃণ পেশী ও স্ট্রিয়েটেড পেশীর সংমিশ্রণে গঠিত এবং নিচের (নিম্ন) তৃতীয়টি শুধুমাত্র মসৃণ পেশী। ঘন বৃত্তাকার পেশীগুলির কারণে অন্ননালীর দূরবর্তী প্রান্তটি কিছুটা সংকীর্ণ হয়। অন্ননালীর এই অংশটিকে নিম্ন অন্ননালীর স্ফিঙ্কটার বলা হয়। এটি খাবারকে নিচের দিকে পাঠাতে এবং আবার ওপর দিকে ফিরে না আসতে সহায়তা করে।

খাদ্যনালীতে একটি সমৃদ্ধ লসিকাবাহী নিষ্কাশন ব্যবস্থাও রয়েছে।

পাকস্থলী[সম্পাদনা]

'পাকস্থলী হল একটি পুরু প্রাচীরযুক্ত অঙ্গ যা খাদ্যনালী এবং ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রথম অংশের (ডিওডেনাম) মধ্যে অবস্থিত। এটি উদর গহ্বরের বাম দিকে আছে, পাকস্থলীর ফান্ডাস অংশটি (পাকস্থলীর ওপরের অংশ, যা একটি স্ফীতি গঠন করে) মধ্যচ্ছদার গায়ে লেগে থাকে। পাকস্থলীর নিচে থাকে অগ্ন্যাশয়। পাকস্থলীর বৃহৎ বক্রতা থেকে বৃহৎ ওমেন্টাম ঝুলে থাকে।

পাকস্থলীর গাত্রে একটি শ্লেষ্মা ঝিল্লির আবরণ আছে যেখানে কিছু গ্রন্থি (প্রধান কোষ সহ) রয়েছে যেগুলি পাচক অম্ল নিঃসরণ করে, প্রতিদিন এই পাচক তরলটির তিন চতুর্থাংশ পর্যন্ত উৎপাদিত হয়। পাকস্থলীতে খাবার প্রবেশের আগেই ভেগাস স্নায়ুর পরা-অনুকম্পী আবেগের কারণে পাচন গ্রন্থিগুলি ক্ষরণ শুরু করে, এর ফলে পাকস্থলী সেই অম্লের একটি আধার হয়ে ওঠে।

পাচক অম্লের নিঃসরণ তিনটি পর্যায়ে ঘটে: সিফালিক, গ্যাস্ট্রিক এবং আন্ত্রিক। সিফালিক পর্যায়টি সক্রিয় হয় খাবারের গন্ধ ও স্বাদ পেলে এবং সেই সঙ্গে গিলে ফেলার সময়। গ্যাস্ট্রিক পর্যায় খাদ্যের রাসায়নিক প্রভাব এবং পাকস্থলীর প্রসারণ দ্বারা সক্রিয় হয়। আন্ত্রিক পর্যায়টি সিফালিক এবং গ্যাস্ট্রিক পর্যায়দুটির প্রভাবকে অবরুদ্ধ করে। গ্যাস্ট্রিক জুস বা পাচক রসে পেপসিন নামে একটি উৎসেচকও থাকে, যা প্রোটিন, হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড এবং শ্লেষ্মা হজম করে। হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড পাকস্থলীর পিএইচ প্রায় ২তে বজায় রাখে, যা খাদ্যের মাধ্যমে পরিপাকতন্ত্রে আসা ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলতে সাহায্য করে।

পাচক রস অত্যন্ত অম্লীয় হয়, এর পিএইচ ১-৩ এর মধ্যে হয়। এটি পাকস্থলীর প্রাচীর বা এর শ্লেষ্মা স্তরের সম্পূর্ণ ক্ষতি করতে পারে, যার ফলে পেপটিক আলসার হয়। পাকস্থলীর অভ্যন্তরে চামড়ার ভাঁজ থাকে যাকে গ্যাস্ট্রিক রুগা বলে। গ্যাস্ট্রিক রুগা থাকার ফলে পাকস্থলী অনেকটা প্রসারিত হতে পারে, বিশেষ করে অনেকটা বেশি খেয়ে নিলে।

Gray1050-stomach.png

পাকস্থলী চারটি ভাগে বিভক্ত, যার প্রতিটিতে আলাদা আলাদা কোষ রয়েছে এবং তাদের কাজও বিভিন্ন। বিভাগগুলি হল: ১) কার্ডিয়াক অঞ্চল, যেখানে অন্ননালীর বাহিত খাদ্য পাকস্থলীতে এসে পড়ে, ২) পাকস্থলীর উপরের বক্রতার দ্বারা গঠিত ফান্ডাস অঞ্চল, ৩) পাকস্থলীর প্রধান কেন্দ্রীয় অঞ্চল এবং ৪) পাইলোরাস বা অলিন্দ, পাকস্থলীর নিচের অংশ যেখান থেকে খাদ্য ক্ষুদ্রান্ত্রে গিয়ে পড়ে। দুটি মসৃণ পেশী কপাটিকা, বা স্ফিঙ্কটার, পাকস্থলীর খাদ্যবস্তু পাচন না হওয়া পর্যন্ত পাকস্থলীতেই রাখে। সেগুলি হল: ১) কার্ডিয়াক বা অন্ননালীর স্ফিঙ্কটার যেটি উপরের নালী থেকে পাকস্থলীকে আলাদা করে এবং ২) পাইলোরিক স্ফিঙ্কটার, ক্ষুদ্রান্ত্র এবং পাকস্থলীকে বিভক্ত করে।

পাকস্থলীতে বোলাস (চিবানো খাবার) আসার পর পেরিস্টালসিস প্রক্রিয়া শুরু হয়; পাচক রসের সাথে মিশ্রিত ও মন্থিত বোলাস পাকমণ্ড (কাইম) নামক আধা-তরল পদার্থে পরিণত হয়। পাকস্থলীর পেশী খাবারকে উৎসেচক এবং অম্লের সাথে মিশ্রিত করে ছোট হজমযোগ্য টুকরা তৈরি করে। পাকস্থলীর বহির্মুখে অবস্থিত আখরোটের আকৃতির পেশীযুক্ত টিউব পাইলোরিক স্ফিঙ্কটার, ক্ষুদ্রান্ত্রে যাওয়ার জন্য সঠিক সামঞ্জস্যে না পৌঁছানো পর্যন্ত পাকমণ্ডকে পাকস্থলীতেই রাখে। খাদ্য পাকস্থলী থেকে বার হয় ছোট ছোট ভাগে, একসঙ্গে পুরোটা যায়না।

জল, অ্যালকোহল, লবণ এবং সাধারণ শর্করা সরাসরি পাকস্থলীর প্রাচীরের মাধ্যমে শোষিত হতে পারে। যাইহোক, আমাদের খাবারের বেশিরভাগ পদার্থের একটু বেশি হজমের প্রয়োজন হয় এবং শোষিত হওয়ার আগে সেগুলি অন্ত্রে চলে আসে। যখন পাকস্থলী খালি থাকে তখন এটি এক কাপ তরলের এক পঞ্চমাংশের আকারের হয়। বেশি খাওয়ার পরে বিস্তৃত এবং সম্প্রসারিত হলে, এটি আট কাপ খাবার ধরে রাখতে পারে।

পাচক গ্রন্থি

অনেকগুলি বিভিন্ন পাচক গ্রন্থি রয়েছে এবং তারা বিভিন্ন রাসায়নিক ক্ষরণ করে। প্যারিটাল কোষগুলি হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড এবং অপরিহার্য রস নিঃসরণ করে; প্রধান কোষগুলি পেপসিনোজেন নিঃসরণ করে; গবলেট কোষ নিঃসরণ করে শ্লেষ্মা; আর্জেন্টাফিন কোষ নিঃসরণ করে সেরোটোনিন এবং হিস্টামিন; এবং জি কোষ নিঃসরণ করে গ্যাস্ট্রিন হরমোন।

রক্তনালী এবং স্নায়ু

তলপেটের স্নায়ুসমূহ।
ধমনী: পাকস্থলীতে যে ধমনীগুলি এসেছে সেগুলি হল হেপাটিক ধমনীর বাম গ্যাস্ট্রিক, ডান গ্যাস্ট্রিক এবং ডান গ্যাস্ট্রোপিপ্লোয়িক শাখা এবং এবং লিনিয়ালর বাম গ্যাস্ট্রোপিপ্লোইক এবং ছোট গ্যাস্ট্রিক শাখা। তারা পেশী আবরণে রক্ত সরবরাহ করে, সাবমিউকাস আবরণে বহুবিভাজিত হয় এবং অবশেষে মিউকাস ঝিল্লি জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে।
কৈশিকনালী সমূহ: ধমনীগুলি পরিপাক নালীর গোড়ায় ভেঙ্গে গিয়ে সূক্ষ্ম কৈশিকনালীর একটি জালিকা গঠন করে, যেগুলি পরিপাক নালীর মধ্যে উপরের দিকে চলে এবং একটু বড় কৈশিক জালিকায় গিয়ে শেষ হয়। এগুলি নালীর মুখকে ঘিরে থাকে এবং নালীগুলির চারপাশে ষড়ভুজাকার জাল তৈরি করে।
শিরা সমূহ: এগুলি থেকে শিরাগুলি উত্থিত হয় এবং নিচের দিকে, নালীগুলির মধ্যে, সাবমিউকাস কলা পর্যন্ত একটি সোজা পথ অনুসরণ করে; এগুলি হয় লিনিয়াল ও উর্ধ্ব মেসেন্টেরিক শিরাগুলিতে গিয়ে শেষ হয় অথবা সরাসরি পোর্টাল শিরায় শেষ হয়।
লসিকানালী: অসংখ্য লসিকানালী আছে: তারা পৃষ্ঠস্থ নালী এবং গভীরে থাকা নালী দ্বারা গঠিত। সেগুলি পাকস্থলীর দুটি বক্রতা বরাবর থাকা লসিকা গ্রন্থিতে চলে যায়।
স্নায়ুসমূহ: স্নায়ু হল ডান এবং বাম মূত্রনালী এবং অন্যান্য অংশের প্রান্তীয় শাখা, এদের মধ্যে প্রথমটি পিছনের অংশে এবং পরেরটি পাকস্থলীর সামনের অংশে ছড়িয়ে আছে। অনুকম্পী সেলিয়াক জালিকা থেকে প্রচুর সংখ্যক শাখাও এখানে আসে। স্নায়ু জালিকাগুলি অন্ত্রের মতই সাবমিউকাস আবরণে এবং মাসকুলারিস আবরণের স্তরগুলির মধ্যে পাওয়া যায়। এই জালিকা থেকে সূক্ষ্ম তন্তুগুলি পেশী কলা এবং মিউকাস ঝিল্লিতে যায়।

পাকস্থলীর ব্যাধি

পাকস্থলীর ব্যাধি খুব সাধারণ। এর বিভিন্ন উপসর্গ সহ বিভিন্ন কারণ হতে পারে। পাকস্থলীর অভ্যন্তরীণ আস্তরণের শক্তির জন্য অম্ল এবং শ্লেষ্মার একটি সতর্ক ভারসাম্য প্রয়োজন। পেটে পর্যাপ্ত শ্লেষ্মা না থাকলে, আলসার, পেটে ব্যথা, বদহজম, অম্বল, বমি বমি ভাব এবং বমি সবই অতিরিক্ত অম্লের কারণে হতে পারে।

ক্ষয়, আলসার এবং টিউমার থেকে রক্তপাত হতে পারে। পাকস্থলীতে রক্ত ​​পড়লে পাকস্থলী তা হজমের প্রক্রিয়া শুরু করে এবং রক্ত কালো হয়ে যায়। যখন এটি ঘটে, তখন ব্যক্তির কালো মল বা বমি হতে পারে। কিছু আলসার খুব ধীরে ধীরে রক্তপাত করে তাই ব্যক্তি রক্তের ক্ষয় হচ্ছে বুঝতে পারে না। সময়ের সাথে সাথে, তার শরীরের লোহা ফুরিয়ে যাবে, যার ফলে তার রক্তাল্পতা হবে।

আলসার থেকে বাঁচার জন্য কোন পরিচিত খাদ্যাভ্যাসের কথা জানা নেই। একটি সুষম, স্বাস্থ্যকর খাদ্যব্যবস্থা সবসময় সুপারিশ করা হয়। ধূমপানও পাকস্থলীর সমস্যার কারণ হতে পারে। তামাক অম্লের উৎপাদন বাড়ায় এবং পাকস্থলীর আস্তরণের ক্ষতি করে। শুধুমাত্র মানসিক চাপের জন্যই আলসার হতে পারে এটা প্রমাণিত সত্য নয়। মানুষের পাকস্থলীর কলাস্থানবিদ্যা

পরিপাক নালীর অন্যান্য অংশের মত, পাকস্থলীর দেয়ালগুলি বেশ কয়েকটি স্তর দিয়ে তৈরি।

ভেতরে স্তর থেকে দেখলে প্রথম প্রধান স্তর হল মিউকোসা। এটি একটি এপিথেলিয়াম নিয়ে গঠিত, নিচে ল্যামিনা প্রোপ্রিয়া এবং একটি পাতলা মসৃণ পেশী যাকে মাসকুলারিস মিউকোসা বলা হয়।

সাবমিউকোসা এর নিচে থাকে এবং তন্তুযুক্ত সংযোজক কলা নিয়ে গঠিত, যা পরবর্তী স্তর, মাসকুলারিস এক্সটার্না থেকে মিউকোসাকে আলাদা করে। পাকস্থলীর মাসকুলারিস পরিপাক নালীর অন্যান্য অঙ্গগুলির থেকে আলাদা। এটিতে দুটির পরিবর্তে তিনটি পেশীর স্তর রয়েছে। এই পেশী স্তরগুলির নিচে আছে অ্যাডভেন্টিটিয়া, যেগুলি ওমেন্টার সাথে অবিচ্ছিন্ন যোজক কলার স্তর।

পাকস্থলীর এপিথেলিয়াম গভীর গহ্বর তৈরি করে, যাকে বলা হয় ফান্ডিক বা অক্সিনটিক গ্রন্থি। গহ্বরের নিচ বরাবর বিভিন্ন ধরণের কোষ বিভিন্ন স্থানে রয়েছে। এই গহ্বরগুলির গোড়ার কোষগুলি হল প্রধান কোষ, পেপসিনোজেন উৎপাদনের জন্য দায়ী। এটি পেপসিনের একটি নিষ্ক্রিয় অগ্রদূত, পেপসিন প্রোটিনকে ভেঙে ফেলে। পেপসিনোজেনের নিঃসরণ পাকস্থলীর কোষের স্ব-বিপাককে বাধা দেয়।

গহ্বরের আরও ওপরে, প্যারিটাল কোষগুলি পাচক অম্ল এবং একটি গুরুত্বপূর্ণ পদার্থ, ইনট্রানজিক ফ্যাক্টর তৈরি করে। পাচক অম্ল দুভাবে কাজ করে ১) এটি খাবারের বেশিরভাগ ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলে, ক্ষুধাকে উদ্দীপিত করে এবং পেপসিনোজেনকে পেপসিনে সক্রিয় করে, এবং ২) পাকস্থলী এবং ক্ষুদ্রান্ত্রে উৎসেচক ক্রিয়ার মাধ্যমে প্রোটিন হজমের আগে জটিল প্রোটিন অণুর গুণপরিবর্তণ করে। গহ্বরের শীর্ষের কাছে, পাকস্থলীতে আগত খাদ্যের সবচেয়ে কাছে শ্লেষ্মা-উৎপাদনকারী গবলেট কোষ রয়েছে যারা পাকস্থলীকে স্ব-বিপাক থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

মাসকুলারিস এক্সটার্না মসৃণ পেশীর তিনটি স্তর দিয়ে গঠিত। ভিতরের স্তরটি তির্যকভাবে বিস্তৃত: এটি পাচনতন্ত্রের অন্যান্য অংশে দেখা যায় না: এই স্তরটি এমন গতি তৈরি করে যাতে খাদ্য মন্থন হয় এবং শারীরবৃত্তীয়ভাবে ভেঙে যায়। পরবর্তী স্তরগুলি হল বর্গাকার এবং তারপর অনুদৈর্ঘ্য, যা পরিপাক নালীর অন্যান্য অংশের মতই বিদ্যমান। পাইলোরিক এন্ট্রামের দেওয়ালের কোষগুলির ত্বক পুরু হয় এবং সেগুলি ফান্ডাসের চেয়ে বেশি জোরদার সংকোচন করে। পাইলোরাস একটি পুরু বৃত্তাকার পেশীবহুল প্রাচীর দ্বারা বেষ্টিত যা সাধারণত টোনিকলি সংকুচিত হয়ে একটি কার্যকরী (যদি শারীরবৃত্তীয়ভাবে পৃথক না হয়) পাইলোরিক স্ফিঙ্কটার গঠন করে, যা পাকমণ্ডের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ করে।

নিঃসরণ এবং গতিশীলতা নিয়ন্ত্রণ পাকস্থলীতে রাসায়নিক পদার্থের চলাচল এবং প্রবাহ উভয়ই স্নায়ুতন্ত্র এবং পাচনতন্ত্রের বিভিন্ন হরমোন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। গ্যাস্ট্রিন হরমোন পাকস্থলীর প্যারিটাল কোষ থেকে এইচসিএল, পেপসিনোজেন এবং ইনট্রানজিক ফ্যাক্টর নিঃসরণ বৃদ্ধি করে। এটি পাকস্থলীর গতিশীলতাও বৃদ্ধি করে। জি-কোষ থেকে পাকস্থলীতে গ্যাস্ট্রিন নির্গত হয়। এটি সাধারণত ৪ এর কম (উচ্চ অ্যাসিড) পিএইচ দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হয় এবং সেইসাথে সোমাটোস্ট্যাটিন হরমোন দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হয়। কোলেসিস্টোকিনিন (সিসিকে) পিত্তথলিতে সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলে, তবে এটি পাচক রস মুক্ত হওয়াও হ্রাস করে। একটি ভিন্ন এবং বিরল পদ্ধতিতে, ক্ষুদ্রান্ত্রে উৎপাদিত সিক্রেটিন, অগ্ন্যাশয়ের উপর সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলে, তবে পাকস্থলীতে অম্ল নিঃসরণও হ্রাস করে।

গ্যাস্ট্রিক ইনহিবিটরি পেপটাইড (জিআইপি) বা পাচক রস নিরোধক পেপটাইড এবং এন্টারোগ্লুকাগন পাচক রসের গতিশীলতা এবং পেপসিনের নিঃসরণ উভয়ই হ্রাস করে। গ্যাস্ট্রিন ব্যতীত, এই হরমোনগুলি পাকস্থলীর ক্রিয়া বন্ধ করতে কাজ করে। যকৃৎ এবং পিত্তথলিতে যে খাদ্য পণ্যগুলি এখনও শোষিত হয়নি তার প্রতিক্রিয়া হিসাবে এটি হয়। যখন অন্ত্র ব্যস্ত থাকে না তখন পাকস্থলী শুধুমাত্র খাদ্যকে ক্ষুদ্রান্ত্রে ঠেলে দেয়। যখন অন্ত্র পূর্ণ থাকে এবং সম্পূর্ণ খাদ্য পাচিত না হওয়া অবস্থায় থাকে, তখন পাকস্থলী খাদ্যের জন্য একটি সংরক্ষণাগার হিসাবে কাজ করে।

ক্ষুদ্রান্ত্র[সম্পাদনা]

চিত্রে ক্ষুদ্রান্ত্র দেখানো হয়েছে

ক্ষুদ্রান্ত্র হল সেই জায়গা যেখানে বেশিরভাগ রাসায়নিক এবং যান্ত্রিক বিপাক হয়। ক্ষুদ্রান্ত্রের দেওয়ালে থাকা ভিলি নামক ক্ষুদ্র অভিক্ষেপগুলি পাচিত খাদ্য শোষণ করে কৈশিকনালীগুলিকে দেয়। বেশিরভাগ খাদ্য শোষণের কাজ জেজুনাম এবং ইলিয়ামে হয়।

ক্ষুদ্রান্ত্রের কাজগুলি হল প্রোটিনের পরিপাক করে পেপটাইড এবং অ্যামিনো অ্যাসিড তৈরি। এটি প্রধানত পাকস্থলীতে ঘটে তবে কিছুটা ক্ষুদ্রান্ত্রেও ঘটে। পেপটাইডগুলি অ্যামিনো অ্যাসিডে পরিণত হয়; লিপিড (স্নেহ পদার্থ) স্নেহজ অ্যাসিডে এবং গ্লিসারলে পরিণত হয়; এবং শর্করাগুলি সরল চিনিতে পরিণত হয়।

ক্ষুদ্রান্ত্রের তিনটি প্রধান বিভাগ হল গ্রহণী বা ডিওডেনাম, জেজুনাম, ইলিয়াম

ডিওডেনাম

পাচনতন্ত্রের শারীরবৃত্তিতে, ডিওডেনাম হল একটি ফাঁপা সন্ধিযুক্ত নল যা পাকস্থলীকে জেজুনামের সাথে সংযুক্ত করে। এটি ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রথম এবং সব থেকে ছোট অংশ। এটি ডিওডেনাল বাল্ব দিয়ে শুরু হয় এবং ট্রিটজের লিগামেন্টে শেষ হয়। ডিওডেনাম প্রায় সম্পূর্ণভাবে পেরিটোনিয়ালের পেছনে অবস্থিত। ডিওডেনাম দিয়েই পিত্ত এবং অগ্ন্যাশয়ের রস অন্ত্রে প্রবেশ করে।

জেজুনাম

জেজুনাম হল ক্ষুদ্রান্ত্রের একটি অংশ, ডিওডেনামের শেষ প্রান্ত এবং ইলিয়ামের নিকটস্থ অংশের মধ্যে এটি অবস্থিত। জেজুনাম এবং ইলিয়াম একটি বিস্তৃত মেসেন্টারি (ঝিল্লির একটি ভাঁজ যা পেটের প্রাচীরের সাথে অন্ত্রকে সংযুক্ত করে এবং এটিকে ঠিক জায়গায় রাখে।) দ্বারা নিলম্বিত অবস্থায় থাকে, এর ফলে পেটের মধ্যে অন্ত্র একটি গতিশীলতা পায়। জেজুনামের অভ্যন্তরীণ পৃষ্ঠ হল এর শ্লেষ্মা ঝিল্লি। সেটি ভিলি নামক অভিক্ষেপ দ্বারা আচ্ছাদিত। এটি অন্ত্রের মধ্যেকার পাচিত খাদ্য থেকে পুষ্টি শোষণ করার জন্য উপলব্ধ কলার পৃষ্ঠতলের ক্ষেত্রফল বাড়িয়ে দেয়। কম গবলেট কোষ থাকার কারণে এটি ইলিয়াম থেকে আলাদা এবং এতে সাধারণত পেয়ারে'স প্যাচের (সংগঠিত লিম্ফয়েড গুটিকা) অভাব থাকে।

ইলিয়াম

এর কাজ হল ভিটামিন বি১২ এবং পিত্ত লবণ শোষণ করা। প্রাচীরটি নিজেই ভাঁজ দিয়ে তৈরি, যার প্রত্যেকটির পৃষ্ঠতলে ভিলি নামে পরিচিত অনেকগুলি ছোট আঙুলের মতো অভিক্ষেপ রয়েছে। অপরদিকে, যে এপিথেলিয়াল কোষের আবরণে এই ভিলিগুলি থাকে, তাতে আরও বেশি সংখ্যক মাইক্রো ভিলি থাকে। যে কোষগুলি ইলিয়ামকে আবরণী দিয়েছে সেগুলিতে প্রোটিজ এবং কার্বোহাইড্রেট উৎসেচক থাকে যারা প্রোটিন এবং শর্করা বিপাকের চূড়ান্ত পর্যায়ে কাজ করে। এই উৎসেচকগুলি এপিথেলিয়াল কোষের সাইটোপ্লাজমে উপস্থিত থাকে। ভিলিতে প্রচুর পরিমাণে কৈশিকনালী থাকে, খাদ্য বিপাকের মাধ্যমে উৎপাদিত অ্যামিনো অ্যাসিড এবং গ্লুকোজকে তারা হেপাটিক পোর্টাল শিরা এবং যকৃতে নিয়ে যায়।

প্রান্তীয় ইলিয়াম পিত্ত লবণ শোষণ করতে থাকে এবং স্নেহ পদার্থ-দ্রবণীয় ভিটামিন (ভিটামিন এ, ডি, ই এবং কে) শোষণের ক্ষেত্রেও এটি গুরুত্বপূর্ণ। স্নেহ পদার্থ-দ্রবণীয় ভিটামিন শোষণের জন্য, পিত্ত অম্লের উপস্থিতি প্রয়োজনীয়।

বৃহদন্ত্র[সম্পাদনা]

বৃহদন্ত্রের নালী

বৃহদন্ত্র (কোলন) ইলিয়ামের শেষ থেকে পায়ু পর্যন্ত বিস্তৃত। এটি প্রায় ৫ ফুট লম্বা, যা অন্ত্রের নালীর পুরো ব্যাপ্তির এক-পঞ্চমাংশ। এটির ব্যাস সিকামের শুরুতে সবচেয়ে বড় এবং মলাশয় পর্যন্ত ধীরে ধীরে হ্রাস পেয়েছে, আবার পায়ুর ঠিক উপরে এর আকারে যথেষ্ট বিস্তৃতি দেখা যায়। এর ব্যাস ক্ষুদ্রান্ত্রের থেকে বড়, এটি অবস্থানে অনেকটা স্থির থাকে, থলির মত আকার আছে এবং এর বাহ্যিক আবরণে কিছু উপাঙ্গ রয়েছে, সেগুলি হল অ্যাপেন্ডিক্স এবং এপিপ্লোয়িকে। এছাড়াও, এর অনুদৈর্ঘ্য পেশী তন্তুগুলি অন্ত্রের চারপাশে ক্ষুদ্রান্ত্রের মত একটি অবিচ্ছিন্ন স্তর তৈরি করে না, তবে তিনটি অনুদৈর্ঘ্য ফিতার মত টিনিয়া দিয়ে আবৃত।

বৃহদন্ত্রটি সিকাম, কোলন, মলদ্বার এবং পায়ু নালীতে বিভক্ত। এই সম্পূর্ণ পথে, একটি খিলান আকারের গড়ন ক্ষুদ্রান্ত্রকে আবর্তন করে থাকে। এটি দক্ষিণ ইলিয়াক অঞ্চল থেকে একটি প্রসারিত অংশ হিসেবে শুরু হয়, যে অংশের নাম সিকাম। এটি দক্ষিণ কটিদেশ অঞ্চল এবং হাইপোকন্ড্রিয়াক অঞ্চলের মধ্য দিয়ে উঠে যায় লিভারের নীচের পৃষ্ঠতল পর্যন্ত; এখানে এটি বাম দিকে একটি বাঁক নেয় যার নাম ডান কোলিক ফ্লেক্সার; এরপর এপিগ্যাস্ট্রিক এবং নাভি অঞ্চলকে সীমাবদ্ধ করে পেটের উপর দিয়ে তির্যক ভাবে বাম হাইপোকন্ড্রিয়াক অঞ্চল অতিক্রম করে। এটি তারপর আবার বাঁক নেয়, এই অংশের নাম বাম কোলিক ফ্লেক্সার, এবং বাম কটিদেশ এবং ইলিয়াক অঞ্চলের মধ্য দিয়ে শ্রোণীচক্রে নেমে আসে, সেখানে এটি সিগময়েড ফ্লেক্সার নামে একটি বাঁক গঠন করে; এরপর থেকে এটি শ্রোণীচক্রের পেছনের প্রাচীর বরাবর পায়ু পর্যন্ত এগিয়ে যায়।

আমাদের অন্ত্রে কোটি কোটি ব্যাকটেরিয়া, ঈস্ট এবং পরজীবী বাস করে, বেশিরভাগই এই কোলন অঞ্চলে। ৪০০ টিরও বেশি প্রজাতির জীব কোলনে বাস করে। এগুলোর অধিকাংশই আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই সহায়ক, অল্পকিছু সংখ্যক আছে যারা আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর। সহায়ক জীবগুলি বি১২, বায়োটিন এবং ভিটামিন কে এর মত ভিটামিনকে সংশ্লেষিত করে। তারা বিষাক্ত পদার্থগুলিকে ভেঙে দেয় এবং ক্ষতিকারক জীবের বিস্তার বন্ধ করে। তারা অনাক্রম্য তন্ত্রকে উদ্দীপিত করে এবং কোলন কোষের স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয় শর্ট চেইন ফ্যাটি অ্যাসিড (এসসিএফএ) তৈরি করে এবং কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে। অনেক উপকারী ব্যাকটেরিয়া আছে কিন্তু সবচেয়ে সাধারণ এবং গুরুত্বপূর্ণ কিছু হল ল্যাকটোব্যাসিলাস অ্যাসিডোফিলাস এবং বিফিডোব্যাকটেরিয়াম এর বিভিন্ন প্রজাতি। এগুলো অনেক উৎস থেকে "প্রোবায়োটিকস" হিসেবে পাওয়া যায়।

অগ্ন্যাশয়, যকৃৎ এবং পিত্তথলি[সম্পাদনা]

অগ্ন্যাশয়, যকৃৎ এবং পিত্তথলি (গলব্লাডার) বিপাক ক্রিয়ার জন্য অপরিহার্য। অগ্ন্যাশয় যে উৎসেচক তৈরি হয় তা প্রোটিন, স্নেহ পদার্থ এবং শর্করা হজম করতে সাহায্য করে, যকৃৎ পিত্ত তৈরি করে যেটি শরীরকে চর্বি শোষণ করতে সাহায্য করে এবং প্রয়োজন না হওয়া পর্যন্ত পিত্তথলিতে পিত্ত জমা থাকে। এইসব উৎসেচক এবং পিত্ত বিশেষ নালীর মাধ্যমে ক্ষুদ্রান্ত্রে পৌঁছে যায় এবং সেখানে তারা খাদ্যকে ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে।

অগ্ন্যাশয়

অগ্ন্যাশয় পাকস্থলীর পেছনে এবং ডিওডেনামের গা ঘেঁষে অবস্থিত।

মানবদেহে, অগ্ন্যাশয় হল একটি ৬-১০ ইঞ্চি প্রসারিত অঙ্গ যেটি উদরগহ্বরের পেছনে অবস্থিত। এটির প্রধান তিনটি অঞ্চল দেখতে পাওয়া যায়: মাথা, শরীর এবং লেজ। অগ্ন্যাশয়ের মাথার অংশ ডিওডেনামের দ্বিতীয় অংশে থাকে এবং লেজটি প্লীহার দিকে প্রসারিত। অগ্ন্যাশয়ের নালী সম্পূর্ণ অগ্ন্যাশয় জুড়ে প্রসারিত এবং ডিডেনামের দ্বিতীয় অংশ অ্যাম্পুলা অফ ভ্যাটারে নিসৃত উৎসেচক মুক্ত করে। সাধারণ পিত্ত নালী সাধারণত এই বিন্দুতে বা এর কাছাকাছি এসে অগ্ন্যাশয় নালীতে যোগ দেয়।

অগ্ন্যাশয়ে রক্ত সরবরাহ করে প্যানক্রিয়াটিকোডিওডেনাল ধমনী, এগুলি হেপাটিক ধমনীর উর্ধ্ব মেসেন্টেরিক ধমনীর শাখা (উদরের মহাধমনীর সিলিয়াক ট্রাঙ্কের শাখা)। উর্ধ্ব মেসেন্টেরিক ধমনী নিম্ন প্যানক্রিয়াটিকোডিওডেনাল ধমনীতে রক্ত নিয়ে আসে যখন গ্যাস্ট্রোডিওডেনাল ধমনী (হেপাটিক ধমনীর একটি প্রান্তীয় শাখা) উর্ধ্ব প্যানক্রিয়াটিকোডিওডেনাল ধমনীতে রক্ত বহন করে। শিরাস্থ নিষ্কাশন অগ্ন্যাশয় ডিওডেনাল শিরাগুলির মাধ্যমে হয় যা পোর্টাল শিরায় গিয়ে শেষ হয়। প্লীহার শিরা অগ্ন্যাশয়ের পশ্চাদ্ভাগ দিয়ে চলে যায় কিন্তু বলা হয় যে এটি অগ্ন্যাশয় থেকে নিষ্কাশন করে না। পোর্টাল শিরাটি অগ্ন্যাশয়ের দেহের পেছনের উর্ধ্ব মেসেন্টেরিক শিরা এবং প্লীহার শিরার মিলনের মাধ্যমে গঠিত হয়। কিছু মানুষের ক্ষেত্রে (৪০% পর্যন্ত) নিম্ন মেসেন্টেরিক শিরা অগ্ন্যাশয়ের পিছনের প্লীহার শিরার সাথেও মিলিত হয়, অন্যদের মধ্যে এটি পরিবর্তে উর্ধ্ব মেসেন্টেরিক শিরার সাথে যোগ দেয়।

অগ্ন্যাশয়ের কাজ হল এমন উৎসেচক তৈরি করা যা হজমযোগ্য খাবারের সমস্ত বিভাগকে ভেঙে দেয় (বহিঃক্ষরা অগ্ন্যাশয়) এবং এমন হরমোন নিঃসরণ করা যা শর্করা বিপাককে প্রভাবিত করে (অন্তঃক্ষরা অগ্ন্যাশয়)।

  • বহিঃক্ষরা

অগ্ন্যাশয় গঠিত হয়েছে অগ্ন্যাশয়ের বহিঃক্ষরা কোষ দ্বারা, যার নালীগুলিকে অ্যাসিনি (একবচনে অ্যাসিনাস) বলা হয়। কোষগুলি অগ্রবর্তী পাচক উৎসেচক (প্রধানত ট্রিপসিনোজেন, কাইমোট্রিপসিনোজেন, প্যানক্রিয়াটিক লাইপেজ এবং অ্যামাইলেজ) ধারণকারী নিঃসরণকারী গুটিতে ভরা থাকে, উৎসেচকগুলি অ্যাকিনাসের লুমেনে নিঃসৃত হয়। এই গুটিগুলিকে জাইমোজেন গুটি বলা হয় (জাইমোজেন বলতে নিষ্ক্রিয় অগ্রবর্তী উৎসেচকগুলিকে বোঝানো হয়)। স্বয়ংক্রিয় ক্ষয় বা পাচন এড়াতে অগ্ন্যাশয়ে নিষ্ক্রিয় উৎসেচক সংশ্লেষণ করা গুরুত্বপূর্ণ, নাহলে অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ হতে পারে।

অগ্ন্যাশয় যকৃতের কাছাকাছি অবস্থিত, এবং এটি স্নেহ পদার্থ (লিপিড) এবং প্রোটিন হজম করার জন্য উৎসেচকের প্রধান উৎস - অন্ত্রের দেওয়ালে যে উৎসেচক রয়েছে তা পলিস্যাকারাইড বিপাকে সাহায্য করে। অগ্ন্যাশয়ের নালী কোষ থেকে নিঃসৃত উৎসেচকে বাইকার্বোনেট আয়ন থাকে এবং সেটি ক্ষারীয়। পাকস্থলী মন্থন করে যে পাকমণ্ড সৃষ্টি করে সেটি অম্লধর্মী হওয়ায় তাকে প্রশমিত করার জন্য এটি প্রয়োজনীয়। অগ্ন্যাশয়ের বহিঃক্ষরা কার্যকলাপকে নিয়ন্ত্রণ করে গ্যাস্ট্রিন, কোলেসিস্টোকিনিন এবং সিক্রেটিন হরমোন। এগুলি পাকস্থলী এবং ডিওডেনামের কোষ থেকে নিঃসৃত হয়, এগুলি পেট ফাঁপা এবং/অথবা খাবারের প্রতিক্রিয়া হিসাবে নির্গত হয় এবং এটি অগ্ন্যাশয়ের রস নিঃসরণ ঘটায়।

অগ্ন্যাশয়ের দুটি প্রধান প্রোটিজ (যা প্রোটিনকে ছোট পলিপেপটাইড বা একক অ্যামিনো অ্যাসিডে বিভক্ত করার জন্য অনুঘটকের কাজ করে) হল ট্রিপসিনোজেন এবং কাইমোট্রিপসিনোজেন। এই জাইমোজেনগুলি ট্রিপসিন এবং কাইমোট্রিপসিনের নিষ্ক্রিয় রূপ। একবার অন্ত্রে নির্গত হলে, অন্ত্রের শ্লেষ্মায় উপস্থিত উৎসেচক এন্টারোকিনেজ এই ট্রিপসিনোজেনকে বিচ্ছিন্ন করে ট্রিপসিন গঠনের জন্য সক্রিয় করে। মুক্ত ট্রিপসিন তারপর বাকি ট্রিপসিনোজেন এবং কাইমোট্রিপসিনোজেনকে বিদীর্ণ করে তাদের সক্রিয় আকারে নিয়ে আসে।

অগ্ন্যাশয় ক্ষরণগুলি ইন্ট্রালোবুলার নালীতে জমা হয়, সেখান থেকে যায় প্রধান অগ্ন্যাশয় নালীতে, যা সরাসরি ডিওডেনামের মধ্যে নিষ্কাশিত হয়।

অগ্ন্যাশয় এত উৎসেচকের আধার হওয়ার কারণে এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, অগ্ন্যাশয়ে আঘাত লাগা খুবই বিপজ্জনক একটি পরিস্থিতি। অগ্ন্যাশয়ে কোন ছিদ্র হলে সতর্ক চিকিৎসার হস্তক্ষেপের প্রয়োজন হয়।

  • অন্তঃক্ষরা

অ্যাসিনির মধ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অগ্ন্যাশয়ের অন্তঃক্ষরা কোষ, এগুলিকে একসঙ্গে ল্যাঙ্গারহ্যান্সের দ্বীপ (আইলেটস অফ ল্যাঙ্গারহ্যান্স) বলা হয়। তারা হল: ইনসুলিন উৎপাদনকারী বিটা কোষ (আইলেট কোষের ৫০-৮০%) গ্লুকাগন-মুক্তকারী আলফা কোষ (১৫-২০%) সোমাটোস্ট্যাটিন উৎপাদনকারী ডেল্টা কোষ (৩-১০%) অগ্ন্যাশয় পলিপেপটাইডযুক্ত পিপি কোষ (বাকি শতাংশ)

দ্বীপগুলি হল অন্তঃক্ষরা কোষের একটি ঘন সন্নিবদ্ধ সমারোহ যেগুলি গুচ্ছ এবং তন্ত্রীতে সাজানো থাকে এবং তার মধ্যে দিয়ে আড়াআড়িভাবে চলে গেছে কৈশিকনালীর ঘন জাল। দ্বীপের কৈশিকনালীগুলির গায়ে রয়েছে অন্তঃক্ষরা কোষের স্তর, যেগুলি রক্তনালীর সাথে সরাসরি সংযুক্ত এবং বেশিরভাগ অন্তঃক্ষরা কোষগুলি সাইটোপ্লাজমিক প্রক্রিয়া বা সরাসরি সংযোজন দ্বারা রক্তনালীগুলির সাথে যুক্ত থাকে।

যকৃৎ

মানুষ সহ মেরুদণ্ডী প্রাণীর একটি অঙ্গ হল যকৃৎ। এটি বিপাকের ক্ষেত্রে একটি প্রধান ভূমিকা পালন করে এবং গ্লাইকোজেন সংরক্ষণ, প্লাজমা প্রোটিন সংশ্লেষণ এবং ওষুধের বিরূপ প্রভাব থেকে মুক্ত করা সহ শরীরে অনেকগুলি কাজ করে। এটি পিত্ত উৎপাদন করে, যা বিপাকের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এটি প্রচুর পরিমানে বিভিন্ন ধরণের জৈব রাসায়নিক বিক্রিয়া সম্পাদন করে এবং নিয়ন্ত্রণ করে, যার জন্য এখানে বিশেষ কলার প্রয়োজন।

যকৃতের ওজন সাধারণত ১.৩ - ৩.০ কিলোগ্রামের মধ্যে হয় এবং এটি একটি নরম, গোলাপী-বাদামী "বুমেরাং আকৃতির" অঙ্গ। এটি মানবদেহের দ্বিতীয় বৃহত্তম অঙ্গ (সবচেয়ে বড় হল ত্বক) এবং শরীরের বৃহত্তম গ্রন্থি। এর শারীরবৃত্তীয় অবস্থান উদরের ওপরের অংশের ডান দিকে মধ্যচ্ছদার ঠিক নিচে। যকৃৎ থাকে পাকস্থলীর ডান পাশে এবং পিত্ত থলির নিচে বিছানো থাকে।

দুটি প্রধান রক্তনালী যকৃতের ডান খণ্ডে রক্ত সরবরাহ করে: সেগুলি হল হেপাটিক ধমনী এবং পোর্টাল শিরা। হেপাটিক ধমনী সাধারণত সিলিয়াক ধমনী থেকে আসে। পোর্টাল শিরা প্লীহা, অগ্ন্যাশয় এবং ক্ষুদ্রান্ত্র থেকে শিরাস্থ রক্ত ​​নিয়ে আসে, যাতে যকৃৎ পাচিত খাদ্যের পুষ্টি এবং উপজাতগুলি নিয়ে প্রক্রিয়া করতে পারে। হেপাটিক শিরাগুলি নিম্ন মহাশিরায় সরাসরি নিষ্কাশন করে।

যকৃতে উৎপন্ন পিত্ত সংগ্রহ করা হয় পিত্ত ক্যানালিকুলিতে, যা পিত্ত নালী দিয়ে এসে একত্রিত হয়। এগুলি অবশেষে ডান এবং বাম হেপাটিক নালীগুলিতে নিষ্কাশিত হয়, সেগুলি একত্রিত হয়ে সাধারণ হেপাটিক নালী গঠন করে। সিস্টিক নালী (পিত্তথলি থেকে) সাধারণ হেপাটিক নালীর সাথে মিলিত হয়ে সাধারণ পিত্তনালী তৈরি করে। হয় পিত্ত সাধারণ পিত্ত নালীর মাধ্যমে সরাসরি ডিওডেনামে প্রবেশ করে অথবা সিস্টিক নালীর মাধ্যমে সাময়িকভাবে পিত্তথলিতে জমা হতে পারে। সাধারণ পিত্ত নালী এবং অগ্ন্যাশয় নালী অ্যাম্পুলা অফ ভেটারে গিয়ে একসাথে ডিওডেনামে প্রবেশ করে। পিত্ত নালীর শাখাগুলি একটি গাছের অনুরূপ, এবং প্রকৃতপক্ষে এই বিন্যাসে সাধারণত "পিত্তনালী গাছ" শব্দটি ব্যবহৃত হয়। মানব দেহের মধ্যে যকৃৎ এমন কয়েকটি অভ্যন্তরীণ অঙ্গের মধ্যে একটি, যারা নষ্ট হয়ে যাওয়া কলাগুলির প্রাকৃতিক পুনর্নির্মানে সক্ষম: যকৃতের মাত্র ২৫% অবশিষ্ট থাকলেও তার থেকে আবার সম্পূর্ণ যকৃতের পুনর্নির্মান হতে পারে। এটি প্রধানত হেপাটোসাইটের কারণে হয় যেগুলি সমক্ষমতা সম্পন্ন মাতৃ কোষ হিসাবে কাজ করে। জৈব ক্ষমতাযুক্ত কিছু মাতৃ কোষের প্রমাণও রয়েছে, যাদের ডিম্বাকৃতি কোষ বলা হয়, যেগুলি হেপাটোসাইট বা কোল্যাঞ্জিওসাইটে (যে কোষগুলি পিত্ত নালীর গায়ে থাকে) ভেঙে যেতে পারে।

যকৃতীর বিভিন্ন কাজ যকৃৎ কোষ বা হেপাটোসাইট দ্বারা সঞ্চালিত হয়।

  • স্নেহ পদার্থ দ্রবীভূত করার জন্য যকৃৎ প্রয়োজনীয় পিত্ত উৎপাদন করে এবং নির্গত করে। কিছু পিত্ত সরাসরি ডিওডেনামে চলে যায় এবং কিছু পিত্তথলিতে জমা হয়।
  • যকৃৎ কার্বোহাইড্রেট বিপাকে বিভিন্ন ভূমিকা পালন করে:
  • গ্লুকোনিওজেনেসিস (কিছু অ্যামিনো অ্যাসিড, ল্যাকটেট বা গ্লিসারল থেকে গ্লুকোজের গঠন)
  • গ্লাইকোজেনোলাইসিস (গ্লাইকোজেন থেকে গ্লুকোজের গঠন)
  • গ্লাইকোজেনেসিস (গ্লুকোজ থেকে গ্লাইকোজেন গঠন)
  • ইনসুলিন এবং অন্যান্য হরমোনের ভাঙ্গন
  • প্রোটিন বিপাকের প্রধান অবলম্বন হল যকৃৎ।
  • যকৃৎ লিপিড বিপাকেও বিভিন্ন ভূমিকা পালন করে:
  • কোলেস্টেরল সংশ্লেষণ
  • ট্রাইগ্লিসারাইড উৎপাদন (স্নেহ পদার্থ)
  • যকৃৎ তঞ্চনের জন্য ফ্যাক্টর ১ (ফাইব্রিনোজেন), ২ (প্রোথ্রম্বিন), ৫, ৭, ৯, ১০ এবং ১১, সেইসাথে প্রোটিন সি, প্রোটিন এস এবং অ্যান্টিথ্রম্বিন তৈরি করে।
  • যকৃৎ হিমোগ্লোবিন ভেঙ্গে বিপাকীয় পদার্থ সৃষ্টি করে যা রঞ্জক হিসেবে পিত্তে যোগ হয়
  • যকৃৎ বিষাক্ত পদার্থ এবং বেশিরভাগ ঔষধি দ্রব্য ভেঙ্গে ফেলে ওষুধ বিপাক নামক প্রক্রিয়ায়। এটি কখনও কখনও বিষক্রিয়ায় পরিণত হয়, যখন বিপাকীয় পদার্থটি তার পূর্বসূরীর চেয়ে বেশি বিষাক্ত হয়।
  • যকৃৎ অ্যামোনিয়াকে ইউরিয়াতে রূপান্তরিত করে।
  • যকৃৎ গ্লাইকোজেন, ভিটামিন বি১২, লৌহ এবং তামা আকারে গ্লুকোজ সহ প্রচুর পরিমাণে পদার্থ সঞ্চয় করে।
  • প্রথম ত্রৈমাসিকের ভ্রূণে, যকৃৎ হল লোহিত রক্তকণিকা উৎপাদনের প্রধান স্থান। গর্ভাবস্থার ৩২তম সপ্তাহের মধ্যে, অস্থি মজ্জা প্রায় সম্পূর্ণরূপে সেই কাজটি গ্রহণ করে।
  • যকৃৎ অনাক্রম্য প্রভাবের জন্য দায়ী; যকৃতের রেটিকুলোএন্ডোথেলিয়াল তন্ত্রে অনেকগুলি অনাক্রম্যভাবে সক্রিয় কোষ রয়েছে। পোর্টাল সিস্টেমের মাধ্যমে এটিতে বাহিত অ্যান্টিজেনের জন্য সেগুলি একটি 'ছাঁকনি' হিসাবে কাজ করে।

পিত্তথলি

পিত্তথলি হল একটি নাশপাতি আকৃতির অঙ্গ যা প্রায় ৫০ মিলি পিত্ত সঞ্চয় করে রাখে যতক্ষণ না পর্যন্ত বিপাকের কাজে এটি প্রয়োজন। মানবদেহে পিত্তথলি প্রায় ৭-১০ সেমি লম্বা হয় এবং এর বিষয়বস্তুর (পিত্ত) কারণে দেখতে গাঢ় সবুজ হয়, কোন কলার কারণে নয়। এটি পিত্তনালী দ্বারা লিভার এবং ডিওডেনামের সাথে সংযুক্ত থাকে।

পিত্তথলি প্রধান পিত্তনালীর সাথে সংযুক্ত থাকে গলব্লাডার নালীর (সিস্টিক নালী) মাধ্যমে। প্রধান পিত্তনালী যকৃৎ থেকে ডিওডেনাম পর্যন্ত চলে যায় এবং সিস্টিক নালী কার্যকরভাবে একটি "কানাগলি" (কুল ডি স্যাক) হিসেবে কাজ করে, অর্থাৎ এটি দিয়ে পিত্তথলিতে প্রবেশ ও প্রস্থান দুটি কাজই হয়। মধ্য ক্ল্যাভিকুলার রেখা (এমসিএল) এবং নবম পাঁজরের মাথায় থাকা ট্রান্স পাইলোরিক তলের ছেদ দিয়ে পিত্তথলির পৃষ্ঠতলের চিহ্নিতকরণ হয়। সিস্টিক নালীর সমান্তরালভাবে চলা সিস্টিক ধমনী এবং শিরা এখানে রক্ত ​​​​সরবরাহ করে। সিস্টিক ধমনী অত্যন্ত পরিবর্তনশীল, এবং এটি চিকিৎসাগতভাবে প্রাসঙ্গিক কারণ পিত্তথলি অপসারণ করার সময় একে আটকে রেখে কাটা আবশ্যক।

পিত্তথলিতে একটি এপিথেলিয়াল আস্তরণ রয়েছে যা অ্যাসচফের রিসেসেস নামে পরিচিত, যেটি আস্তরণের ভিতরে একটি থলির মত থাকে। এপিথেলিয়ামের নীচে সংযোগকারী কলার একটি স্তর রয়েছে, তার পরে একটি পেশী প্রাচীর রয়েছে যা কোলেসিস্টোকিনিনের প্রতিক্রিয়ায় সংকুচিত হয়, এটি একটি পেপটাইড হরমোন যা ডিওডেনামে সংশ্লেষিত হয়।

পিত্তথলি পিত্ত সঞ্চয় করে, যেটি নিঃসৃত হয় যখন চর্বিযুক্ত খাবার পরিপাকতন্ত্রে প্রবেশ করে, এই সময় কোলেসিস্টোকিনিন (সিসিকে) নিঃসরণ উদ্দীপিত হয়। পিত্ত স্নেহ পদার্থ নির্গত করে এবং আংশিকভাবে হজম হওয়া খাবারে অম্লকে প্রশমিত করে। পিত্তথলিতে জমা হওয়ার পরে, পিত্ত যকৃৎ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় যেমন ছিল তার থেকে বেশি ঘনীভূত হয়, এর শক্তি বৃদ্ধি হয় এবং স্নেহ পদার্থের উপর এর প্রভাবকে তীব্র করে।

পায়ু[সম্পাদনা]

Gray1078.png

মানুষের পায়ুপথটি পেরিনিয়ামের পেছনে দুই নিতম্বের মাঝখানে অবস্থিত। এটিতে দুটি পায়ুপথ স্ফিঙ্কটার রয়েছে, একটি অভ্যন্তরীণ, অন্যটি বাহ্যিক। মল জমা না হওয়া পর্যন্ত এগুলি মলদ্বার বন্ধ করে রাখে। একটি স্ফিঙ্কটার মসৃণ পেশী নিয়ে গঠিত এবং এর ক্রিয়া অনৈচ্ছিক; অন্যটি স্ট্রায়েটেড পেশী নিয়ে গঠিত এবং এর ক্রিয়া ঐচ্ছিক। অনেক প্রাণীর মধ্যে পায়ুপথ পায়ু থলি দিয়ে ঘেরা থাকে। মলদ্বারের ভূমিকা হল যখন মলাশয় পূর্ণ হয়, তখন পায়ুর অন্তঃস্থ চাপ বৃদ্ধি পেয়ে পায়ু পথের দেওয়ালকে চাপ দেয় এবং মল পদার্থ পায়ুপথে প্রবেশ করে। মলাশয় ছোট হয়ে যায় কারণ মল পদার্থ পায়ুপথে প্রবেশ করে এবং পেরিস্টালটিক তরঙ্গ পায়ু থেকে মল বের করে দেয়। পায়ুপথের অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিক স্ফিঙ্কটারগুলি পায়ুকে ওপর দিকে টেনে পেশীর পাশ দিয়ে যাওয়া মল পদার্থকে বার করে দেয়।

অন্ননালীকে প্রভাবিত করার অবস্থা[সম্পাদনা]

অন্ননালীকে প্রভাবিত করতে পারে এমন দুটি ভিন্ন ধরনের অবস্থা রয়েছে। প্রথম প্রকারকে বলা হয় জন্মগত: মানে একজন মানুষ এটি নিয়েই জন্মগ্রহণ করে। দ্বিতীয় প্রকারটিকে জন্মগত নয়: যার অর্থ জন্মের পরে মানুষের শরীরে এটির বিকাশ হয়। এর কয়েকটি উদাহরণ হল:

ট্র্যাকিওসোফেগিয়াল ফিসচুলা এবং ইসোফেগিয়াল অ্যাট্রেসিয়া

এই দুটি অবস্থাই জন্মগত। ট্র্যাকিওসোফেগিয়াল ফিসচুলাতে অন্ননালী এবং বায়ু নলের (শ্বাসনালী) মধ্যে একটি সংযোগ রয়েছে যেটি থাকা উচিত নয়। ইসোফেগিয়াল অ্যাট্রেসিয়াতে নবজাতকের অন্ননালী পাকস্থলীর সাথে সংযুক্ত থাকে না, পাকস্থলীর ঠিক আগে এসে বন্ধ হয়ে যায়। উভয় অবস্থারই সংশোধনমূলক অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হয় এবং সাধারণত শিশুর জন্মের পরপরই এটি সনাক্ত করা যায়। কিছু ক্ষেত্রে, শিশুর জন্মের আগেও এটি সনাক্ত করা যেতে পারে।

ইসোফ্যাগাইটিস

ইসোফ্যাগাইটিস হল খাদ্যনালীর প্রদাহ এবং এটি জন্মগত অসুস্থতা নয়। ইসোফ্যাগাইটিস নির্দিষ্ট কিছু ওষুধের কারণে বা সংক্রমণের কারণে হতে পারে। এটি গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স ডিজিজ (জার্ড) এর কারণেও হতে পারে। এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে অন্ননালীর স্ফিঙ্কটার পাকস্থলীর অম্লীয় পদার্থকে অন্ননালীতে ফিরে যেতে আটকায় না। গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স রোগের চিকিৎসা ওষুধ দিয়ে করা যেতে পারে, তবে ব্যক্তি যা খায় তার পরিবর্তন করেও এটি সংশোধন করা যেতে পারে।

পাকস্থলী এবং অন্ত্রকে প্রভাবিত করে এমন অবস্থা[সম্পাদনা]

প্রত্যেকেরই তাদের জীবদ্দশায় কোষ্ঠকাঠিন্য কিম্বা উদরাময় হয়েছে। কোষ্ঠকাঠিন্যের ক্ষেত্রে, বৃহদন্ত্রে জমা পদার্থ যথেষ্ট দ্রুত গতিতে চলে না এবং বর্জ্য পদার্থ বৃহদন্ত্রে এতক্ষণ থাকে যে প্রায় সমস্ত জল বর্জ্য থেকে বের হয়ে যায় এবং সেটি শক্ত হয়ে যায়। উদরাময়ের ক্ষেত্রে ঠিক এর বিপরীত প্রতিক্রিয়া হয়: বর্জ্য খুব দ্রুত চলে যায় এবং বর্জ্যটি ঠেলে দেওয়ার আগে বৃহদন্ত্র জল শোষণ করার সময় পায় না। সাধারণ আন্ত্রিক অণুজীবসমগ্র অনেক গুরুতর সমস্যা প্রতিরোধে সহায়তা করে। এখানে পাকস্থলী এবং অন্ত্রের সাধারণ ব্যাধিগুলির আরও কিছু উদাহরণ রয়েছে:

তীব্র অ্যাপেন্ডিসাইটিস: একটি ১০ ​​বছর বয়সী ছেলের মধ্যে তীব্র অ্যাপেন্ডিসাইটিসের একটি উদাহরণ। অ্যাপেন্ডিক্স অঙ্গটি বড় হয়ে গেছে এবং সসেজের মতো (বটুলিফর্ম) দেখতে হয়েছে। এই অনুদৈর্ঘ্য খণ্ডটিতে একটি অনিয়মিত লুমিনাল পৃষ্ঠের সাথেলাল স্ফীত মিউকোসা দেখা যাচ্ছে। রোগের প্রথম দিকে নির্ণয় করা হয়েছে এবং অপসারণ করা হয়েছে, এই ধরণের অ্যাপেন্ডিক্সটি ট্রান্সমুরাল নেক্রোসিস, ছিদ্র, এবং ফোড়া গঠনের মত দেরিতে জটিলতা দেখায় না

অ্যাপেন্ডিসাইটিস

অ্যাপেন্ডিসাইটিস হল অ্যাপেন্ডিক্সের প্রদাহ, এটি সেকাম থেকে প্রসারিত একটি অঙ্গ যা আসলে আঙুলের মত দেখতে একটি থলি। এর সবচেয়ে সাধারণ উপসর্গ হল পেটে ব্যথা, ক্ষুধা হ্রাস, জ্বর এবং বমি। শিশু এবং কিশোর-কিশোরীরা অ্যাপেন্ডিসাইটিসের সবচেয়ে সাধারণ শিকার, অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এর সংশোধন করা আবশ্যক। যদিও হালকা ক্ষেত্রে চিকিৎসা ছাড়াই সমাধান হতে পারে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ল্যাপারোটমি বা ল্যাপারোস্কোপির মাধ্যমে স্ফীত অ্যাপেনডিক্স অপসারণের প্রয়োজন হয়। চিকিৎসা না করা হলে মৃত্যুর হার বেশি, প্রধানত পেরিটোনাইটিস এবং শকের কারণে।

সিলিয়াক রোগ

সিলিয়াক রোগ হল পাচনতন্ত্রের একটি একটি ব্যাধি। এতে একজন ব্যক্তির গ্লুটেন নামক একটি প্রোটিনের প্রতি শরীরের প্রতিরোধ ব্যবস্থার প্রতিক্রিয়া দ্বারা পাচনতন্ত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই প্রোটিন রাই, গম এবং বার্লিতে ছাড়াও প্রাতঃরাশের খাদ্যশস্য ও পিজা ক্রাস্টের মতো খাবারেও পাওয়া যায়। যাদের এই ব্যাধি আছে তারা গ্লুটেনযুক্ত খাবার খেলে পেটে ব্যথা, উদরাময়, পেট ফাঁপা, ক্লান্তি এবং বিষণ্ণতা অনুভব করে। তাদের খাবার হজম করতেও অসুবিধা হয়। সিলিয়াক রোগ এক পরিবারে বেশি দেখা যায় এবং ভাইরাল সংক্রমণ বা অস্ত্রোপচারের মত কিছু ধরণের ধকলের পরে সক্রিয় হয়ে ওঠে। গ্লুটেন মুক্ত খাদ্যাভ্যাস অনুসরণ করলে সমস্যাগুলি নিয়ন্ত্রণে রাখা যেতে পারে। ডাক্তাররা সম্পূর্ণ মেডিকেল ইতিহাস নিয়ে বা রক্ত ​​পরীক্ষা করে এই অবস্থা নির্ণয় করতে পারেন।

ডাইভার্টিকুলাইটিস

বিনাইন গ্যাস্ট্রিক আলসার

ডাইভার্টিকুলাইটিস অন্ত্রের একটি সাধারণ রোগ, বিশেষ করে এটি বৃহদন্ত্রের একটি অসুখ। ডাইভার্টিকুলাইটিস শুরু হয় ডাইভার্টিকুলোসিস থেকে, এই রোগে কোলনের বাইরের দিকে থলির (ডাইভার্টিকুলা) মত অংশ তৈরি হয়। এই ডাইভার্টিকুলাগুলির কোন একটিতে প্রদাহ শুরু হলে তা ডাইভার্টিকুলাইটিসে পরিণত হয়। জটিল ডাইভার্টিকুলাইটিসে, যদি একটি স্ফীত ডাইভার্টিকুলা ফেটে যায় তাহলে ব্যাকটেরিয়া পরবর্তীকালে কোলনের বাইরেও সংক্রমিত হতে পারে। যদি সংক্রমণটি পেটের গহ্বরের (পেরিটোনিয়াম) আস্তরণে ছড়িয়ে পড়ে তবে এটি একটি মারাত্মক ক্ষমতাসম্পন্ন পেরিটোনাইটিস হতে পারে। কখনও কখনও স্ফীত ডাইভার্টিকুলা অন্ত্রের সংকীর্ণতা সৃষ্টি করতে পারে, যাতে বাধা সৃষ্টি হয়। এছাড়াও, কোলনের প্রভাবিত অংশটি মূত্রাশয় বা শ্রোণী গহ্বরের অন্যান্য অঙ্গকে আঁকড়ে থাকতে পারে, যার ফলে ফিসচুলা হতে পারে অথবা কোলন এবং সংলগ্ন অঙ্গের মধ্যে অস্বাভাবিক যোগাযোগ হতে পারে।

গ্যাস্ট্রাইটিস এবং পেপটিক আলসার

পাকস্থলী দ্বারা উৎপাদিত শক্তিশালী অম্লের কারণে সাধারণত পাকস্থলী এবং ডিওডেনামে জ্বালা হয়না। কিন্তু কখনও কখনও হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরি নামে একটি ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমনে অথবা কোন নির্দিষ্ট ওষুধের দীর্ঘস্থায়ী ব্যবহারে পাকস্থলী এবং ডিওডেনামকে আবৃতকারী শ্লেষ্মা স্তর দুর্বল হয়ে যায়, ফলে অম্ল নিচের সংবেদনশীল আস্তরণের মধ্য দিয়ে চলে যেতে পারে। এটি পাকস্থলীর আস্তরণে জ্বালা এবং প্রদাহ সৃষ্টি করতে পারে, যাকে গ্যাস্ট্রাইটিস বলা হয়। এছাড়া পেপটিক আলসার হতে পারে, যা পাকস্থলী ও ডিওডেনামের আস্তরণে গর্ত বা ঘা তৈরি করে এবং ব্যথা ও রক্তপাত ঘটায়। এই অবস্থার চিকিৎসার সর্বোত্তম উপায় ওষুধের ব্যবহার।

পরিপাক নালীর সংক্রমন

পরিপাক নালীর সংক্রমণ হতে পারে ক্যাম্পাইলোব্যাক্টর, সালমোনেলা, ই. কোলাই বা শিগেলার মত ব্যাকটেরিয়ার কারণে। এগুলি ভাইরাস দ্বারা বা অ্যামেবিয়াসিস এবং জিয়ার্ডিয়াসিসের মতো অন্ত্রের পরজীবী দ্বারাও হতে পারে। পরিপাক নালীর সংক্রমণের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণগুলি হল পেটে ব্যথা ও খিল ধরা, উদরাময় এবং বমি। এই অবস্থাগুলি সাধারণত নিজেই ঠিক হয়ে যায় এবং চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না।

প্রদাহজনিত পেটের রোগ

প্রদাহজনিত পেটের রোগ হল অন্ত্রের দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহ, যা সাধারণত বয়স্ক শিশু, কিশোর এবং প্রাপ্তবয়স্কদের প্রভাবিত করে। এর দুটি প্রধান প্রকার আছে, আলসারেটিভ কোলাইটিসক্রোহন'স রোগ এবং অনির্দিষ্ট কোলাইটিস। শেষেরটি ১০-১৫% রোগীর মধ্যে ঘটে। আলসারেটিভ কোলাইটিস সাধারণত শুধুমাত্র মলাশয় এবং বৃহদন্ত্রকে প্রভাবিত করে, কিন্তু ক্রোহন'স রোগ শরীরের অন্যান্য অংশের সাথে মুখ থেকে পায়ু পর্যন্ত পুরো পরিপাক নালীকে প্রভাবিত করতে পারে। এই রোগে আক্রান্ত রোগীরা সন্ধিস্থলে ব্যথা এবং লাল চোখ সহ উদরের বাইরের উপসর্গগুলিও ভোগ করে, যা এই রোগের বিস্তারের সংকেত হতে পারে। এই রোগে ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করা হয় এবং প্রয়োজনে, অন্তঃশিরা ওষুধ দেওয়া হয়, বা আরও গুরুতর ক্ষেত্রে, অন্ত্রের ক্ষতিগ্রস্থ স্থানগুলি অপসারণের জন্য অস্ত্রোপচার করা হয়।

পলিপ

পলিপ হল একটি শ্লেষ্মা ঝিল্লি থেকে প্রক্ষিপ্ত কলার অস্বাভাবিক বৃদ্ধি (টিউমার)। যদি এটি একটি সংকীর্ণ প্রসারিত বৃন্ত দ্বারা পৃষ্ঠতলের সাথে সংযুক্ত থাকে তবে এটিকে বৃন্তযুক্ত বলা হয়। যদি কোনো বৃন্ত না থাকে তাহলে বলা হয় বৃন্তহীন। পলিপ সাধারণত কোলন, পাকস্থলী, নাক, মূত্রথলি এবং জরায়ুতে হতে দেখা যায়। এগুলি শরীরের অন্য কোন অংশে যেখানে শ্লেষ্মা ঝিল্লি থাকে, যেমন জরায়ুমুখ এবং ক্ষুদ্রান্ত্রের মত অঞ্চলেও ঘটতে পারে থাকে।

অগ্ন্যাশয়, যকৃৎ এবং পিত্তথলির ব্যাধি[সম্পাদনা]

অগ্ন্যাশয়, যকৃৎ এবং পিত্তথলির ব্যাধিগুলি হজমে সাহায্যকারী উৎসেচক এবং অম্ল তৈরি করার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে। এই ব্যাধির উদাহরণ :

সিস্টিক ফাইব্রোসিস

সিস্টিক ফাইব্রোসিস হল একটি দীর্ঘস্থায়ী, উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত অসুস্থতা যেখানে অস্বাভাবিকভাবে পুরু শ্লেষ্মা তৈরির ফলে অগ্ন্যাশয়ের নালী বা পথগুলি আটকে যায় এবং পাচক তরলগুলিকে অন্ত্রে প্রবেশ করতে বাধা দেয়, যার ফলে এই ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তির প্রোটিন এবং স্নেহ পদার্থ হজম করা কঠিন হয়ে পড়ে, ফলে গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিগুলির বিপাক না হয়েই শরীর থেকে বেরিয়ে যায়। এই ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তিরা তাদের হজমের সমস্যাগুলির সমাধান করতে সহায়তা করার জন্য পরিপূরক এবং পাচক উৎসেচক গ্রহণ করে।

হেপাটাইটিস

হেপাটাইটিস একটি ভাইরাল অবস্থা যার কারণে একজন ব্যক্তির যকৃতে প্রদাহের সৃষ্টি হয় যার ফলে এটি কাজ করার ক্ষমতা হারাতে পারে। ভাইরাল হেপাটাইটিস, যেমন হেপাটাইটিস এ, বি এবং সি, অত্যন্ত সংক্রামক। হেপাটাইটিস এ, যা হেপাটাইটিসের একটি হালকা রূপ, বাড়িতে তার চিকিৎসা করা যেতে পারে, তবে আরও গুরুতর ক্ষেত্রে যেখানে যকৃতের ক্ষতি হয়, সেখানে হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হতে পারে।

কোলেসিস্টাইটিস

পিত্তথলির কারণে পেটে ব্যথা হলে তীব্র বা দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহ হয়। তীব্র কোলেসিস্টাইটিসের ৯০% ক্ষেত্রে পিত্তথলিতে পাথরের উপস্থিতির কারণে ঘটে। প্রকৃতপক্ষে একটি বাধাযুক্ত পিত্তথলিতে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের কারণে প্রদাহ হয় এবং এই বাধাটি হয় পিত্তথলিতে পাথর সৃষ্টি হয়ে। পিত্তথলির অসুস্থতা বাচ্চাদের এবং কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে খুব বিরল তবে এটি ঘটতে পারে যখন বাচ্চা বা কিশোরের সিকেল সেল অ্যানিমিয়া থাকে বা বাচ্চাদের দীর্ঘমেয়াদী ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করা হয়।

কোলেস্টেসিস

কোলেস্টেসিস হল পরিপাক নালীতে পিত্ত সরবরাহে বাধা। এটি "ইন্ট্রাহেপাটিক" (যকৃতের মধ্যেই বাধা) বা "এক্সট্রাহেপাটিক" (যকৃতের বাইরে বাধা) হতে পারে। এর কারণে জন্ডিস হতে পারে, এবং উচ্চ মাত্রার বিলিরুবিন স্তরের উপস্থিতি, যা প্রধানত সংযোজিত, তার দ্বারা এটি চিহ্নিত করা যায়।

পিত্তশূল

যখন একটি পিত্তপাথর সাধারণ পিত্ত নালী বা পিত্তথলি থেকে পিত্ত যাওয়ার নালীকে বন্ধ করে দেয়, এটি তখন হয়। এই অবস্থার কারণে ওপরের পেটের ডান দিকে এবং কখনও কখনও ওপরের পিঠ পর্যন্ত তীব্র ব্যথা হয়। অনেক ডাক্তার এটিকে প্রসব বেদনা এবং হার্ট অ্যাটাকের ব্যথার মধ্যে বিদ্যমান সবচেয়ে গুরুতর ব্যথা হিসাবে বর্ণনা করেছেন। অন্যান্য উপসর্গগুলি হল গা-গোলানোভাব, বমি, উদরাময়, ক্রমাগত বমির কারণে রক্তপাত এবং বমি বমি ভাব ও উদরাময়ের কারণে জলশূন্যতা (ডিহাইড্রেশন)। আরেকটি গুরুতর জটিলতা হল পিত্ত নালীর সম্পূর্ণ অবরোধ যা জন্ডিসের দিকে পরিচালিত করে। এটি যদি স্বাভাবিকভাবে বা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সংশোধন না করা হয় তবে এটি মারাত্মক হতে পারে, কারণ এটি যকৃতের ক্ষতি করে। একমাত্র দীর্ঘমেয়াদী সমাধান হল পিত্তথলি অপসারণ।

পরিপাক নালীর স্বাভাবিক কাজে প্রতিবন্ধকতা[সম্পাদনা]

আমাদের বয়স বাড়ার সাথে সাথে শরীরে উৎপাদিত পাচক উৎসেচকের পরিমাণ কমে যায়। এর ফলে হজম করার ক্ষমতা কমে যায় এবং ধীর হয়ে যায়, পুষ্টির শোষণ ধীরে হয় এবং অন্ত্রের নালীতে মল পদার্থ জমে থাকে। অপাচ্য খাদ্য উপাদান এবং বিপাকীয় বর্জ্যও ধীরে গতিতে নির্গত হওয়ার কারণে এখানে জমে যায়, যার ফলে দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য সমস্যা শুরু হয়।

হজমশক্তি ধীর হয়ে গেলে, সেটি অন্ত্রকে একটি বিষাক্ত পরিবেশে পরিণত করে। সহায়ক জীবাণু বিষাক্ত পরিবেশে বাস করতে পারে না। যখন উপকারী অণুজীব মারা যায় তখন তাদের প্রতিস্থাপন করে ক্ষতিকারক অণুজীব, যেমন ইস্ট এবং পরজীবী। এদের মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ হল ক্যানডিডা অ্যালবিকান। এর ফলে অন্ত্রের প্রাচীর গাত্রে পরিবর্তন ঘটে যায় যা লিকি গাট সিন্ড্রোম তৈরি করে। এর ফলে রক্ত ​​​​প্রবাহে অনেক বিষাক্ত রাসায়নিক প্রবেশ করে। ফলস্বরূপ, শরীরের সম্পূর্ণ বিষাক্ত বোঝা বেড়ে যায়, যার ফলে যকৃৎ, বৃক্ক এবং শরীরের অন্যান্য অঙ্গগুলির উপর একটি চাপ পড়ে। যখন এটি ঘটে তখন যে অঙ্গগুলি সাধারণত বর্জ্য অপসারণ এবং পরিপাক নালীতে পুষ্টি সরবরাহের জন্য ব্যবহৃত হয় সেখানে ক্রমশ বর্জ্য জমে উঠতে থাকে। এই সমস্যা আরও বেড়ে যায় সঠিক প্রেসক্রিপশন ছাড়া ওষুধ কিনে খেয়ে, অ্যান্টিবায়োটিকের অতিরিক্ত ব্যবহারে এবং তন্তু যুক্ত খাদ্য খুব কম খেয়ে বা 'জাঙ্ক ফুড' (চিনি এবং/অথবা স্নেহ পদার্থ থেকে উচ্চ ক্যালোরি, কিন্তু অল্প তন্তু, প্রোটিন, ভিটামিন, খনিজ যুক্ত বা অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টির অভাব সহ খাদ্য) আছে এমন খাদ্য গ্রহণ করে।

বেশীরভাগ মানুষ তাদের পরিপাক নালী সম্পর্কে চিন্তা করে না। আমরা আমাদের শরীরের বাইরের চেহারা কেমন তা নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকি, কিন্তু আমরা সম্পূর্ণরূপে শরীরের অভ্যন্তরীণ অবস্থাকে উপেক্ষা করি। আমাদের শরীর খুবই সহনীয় হওয়ার কারণে পরিপাকতন্ত্রের অবনতিএ কোনো লক্ষণ বা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই বছরের পর বছর চলতে পারে। যখন উপসর্গগুলি অবশেষে দেখা দেয় তখন সাধারণত খুব অ-নির্দিষ্ট হয়, তার মধ্যে আছে: শক্তি হ্রাস, মাথাব্যথা, উদরাময়, কোষ্ঠকাঠিন্য, অম্বল এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্স (বুকজ্বালা)। বছরের পর বছর ধরে এই লক্ষণগুলি আরও গুরুতর হয়ে ওঠে, যার মধ্যে রয়েছে: হাঁপানি, খাবারের অ্যালার্জি, আর্থ্রাইটিস এবং ক্যান্সার।

দুর্বল হজম, দুর্বল শোষণ, এবং ব্যাকটেরিয়ার ভারসাম্যহীনতাকে অনেক দীর্ঘস্থায়ী অবস্থার জন্য চিহ্নিত করা যেতে পারে। শরীরের প্রতিটি অঙ্গ পরিপাক নালী থেকে পুষ্টি গ্রহণ করে; যদি পরিপাক নালীটি খারাপ হয় তবে পুরো শরীর ভুগবে।

হজমশক্তির উন্নতি, সঠিক পরিমাণে তন্তুযুক্ত খাদ্য গ্রহণ এবং জাঙ্ক ফুড ও পরিশোধিত চিনি বাদ দিয়ে পরিপাক নালীর সুস্বাস্থ্য ফিরিয়ে আনা সম্ভব।

আপনি তন্তু পরিপূরক এবং ভিটামিন (বিশেষ করে বি১২ এবং ভিটামিন কে) গ্রহণ করে অন্ত্রের কার্যকারিতা উন্নত করতে পারেন। কিছু ডাক্তার কোষ্ঠকাঠিন্যের উপশম এবং পরিষ্কার করতে এবং "পেরিস্টালটিক মুভমেন্ট" উদ্দীপিত করতে সাহায্য করার জন্য ভেষজ বা ভিটামিন এনিমা পরামর্শ দেন যা অন্ত্রকে নড়াচড়া করতে সাহায্য করে।

উপদাহী অন্ত্র সংলক্ষণ

উপদাহী অন্ত্র সংলক্ষণ বা ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম (আইবিএস) হল এমন একটি ব্যাধি, সাধারণত যার লক্ষণগুলি হল পেটফাঁপা, পেটে ব্যথা ও খিঁচুনি, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং উদরাময়। আইবিএস হলে পেটে ব্যথা এবং অস্বস্তির সৃষ্টি হয়। এটি অন্ত্রের স্থায়ী ক্ষতি করে না এবং ক্যান্সারের মতো গুরুতর রোগে পরিনত হয় না। আইবিএস-এ আক্রান্ত বেশিরভাগ মানুষই চাপ ব্যবস্থাপনা (স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট), খাদ্যসংযম এবং প্রেসক্রিপশনের ওষুধ দিয়ে তাদের উপসর্গ নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। কিন্তু অনেকেই আইবিএস এর জন্য দুর্বল হয়ে যেতে পারে, তারা কর্মক্ষেত্রে যেতে, ভ্রমণ করতে, সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বা এমনকি অল্প সময়ের জন্য বাড়ি ছেড়ে যেতেও অসুবিধাগ্রস্ত হতে পারে।

প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার প্রায় ২০ শতাংশের আইবিএসের কিছু উপসর্গ রয়েছে, অর্থাৎ অন্ত্রের ব্যাধিগুলির মধ্যে এটি চিকিৎসকদের দ্বারা নির্ণয় করা সবচেয়ে সাধারণ একটি ব্যাধি। এটি মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের মধ্যে বেশি দেখা যায় এবং আক্রান্ত প্রায় ৫০ শতাংশ মানুষের মধ্যে এটি প্রায় ৩৫ বছর বয়সে শুরু হয়।

ঠিক কী কারণে আইবিএস হয় গবেষকরা তা খুঁজে পাননি। একটি ধারণা হল যে আইবিএস আক্রান্ত ব্যক্তিদের অন্ত্র (কোলন) আকারে বড় হয় যা নির্দিষ্ট খাবার এবং চাপের প্রতি সংবেদনশীল। অনাক্রম্যতা তন্ত্রও এর সাথে জড়িত থাকতে পারে। এটাও বলা হয়েছে যে সেরোটোনিন পরিপাক নালীর স্বাভাবিক কার্যকারিতার সাথে যুক্ত। শরীরের সেরোটোনিনের ৯৫ শতাংশ পরিপাক নালীতে অবস্থিত (অন্য ৫ শতাংশ মস্তিষ্কে)। আইবিএস আক্রান্ত ব্যক্তিদের রিসেপ্টর কার্যকলাপ হ্রাস পায়, যার ফলে পরিপাক নালীতে সেরোটোনিনের অস্বাভাবিক মাত্রা দেখা দেয়। এই কারণে, আইবিএস রোগীরা মলত্যাগ, গতিশীলতা এবং তাদের পরিপাক নালী আরও সংবেদনশীল ব্যথা রিসেপ্টর থাকার সংবেদন নিয়ে সমস্যা অনুভব করে। অনেক আইবিএস রোগী হতাশা এবং উদ্বেগে ভোগে যা লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করে তুলতে পারে।

আইবিএসের কোন প্রতিকার নেই, তবে ওষুধ গ্রহণ করে উপসর্গগুলির কিছুটা উপশমে হয় এবং সেটি এই চিকিৎসার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। ফাইবার সাপ্লিমেন্ট বা জোলাপ কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য সহায়ক। উদরাময় প্রতিরোধী ওষুধ যেমন ইমোডিয়াম উদরাময় হলে সাহায্য করতে পারে। একটি খিঁচুনি প্রতিরোধি ওষুধ সাধারণত কোলন পেশীর খিঁচুনি কমানোর জন্য দেওয়া হয়। উদ্বেগমূলক ব্যাধি এবং ব্যথা কমানোর ওষুধও সাধারণত নির্ধারিত হয়। [১২]

গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল স্ট্রোমাল টিউমার

গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল স্ট্রোমাল টিউমার বা জিআইএসটি হল পরিপাক নালীর (অন্ননালী, পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত্র এবং কোলন) একটি অস্বাভাবিক ধরনের ক্যান্সার। এই ধরনের ক্যান্সার স্নেহ পদার্থ, পেশী, স্নায়ু, তরুণাস্থি ইত্যাদির মত সংযোজক কলায় শুরু হয়।

জিআইএসটি স্ট্রোমা কোষে উদ্ভূত হয়। স্ট্রোমা কোষগুলি পরিপাক নালী বরাবর সন্নিবদ্ধ থাকে এবং এরা এই তন্ত্রেরই অংশ। কখন পাচনতন্ত্রের মাধ্যমে খাদ্যকে পাঠাতে হবে সেটি এরা শরীরকে জানতে সাহায্য করে। অর্ধেকেরও বেশি জিআইএসটি পাকস্থলীতে হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে চল্লিশ থেকে আশি বছর বয়সের লোকেদের মধ্যে এই অসুখটি দেখা যায়, তবে এটি যে কোনও বয়সের ব্যক্তির মধ্যেই ঘটতে পারে।

যেকোন আকার বা অবস্থানের সমস্ত জিআইএসটি ছড়িয়ে পড়ার ক্ষমতা রাখে। এমনকি যদি একটি জিআইএসটি অস্ত্রোপচার করে সরানো হয়, তবে এটি একই এলাকায় আবার দেখা দিতে পারে, বা এমনকি পরিপাক নালীর বাইরেও ছড়িয়ে পড়তে পারে।

প্রাথমিক পর্যায়ে, জিআইএসটি নির্ণয় করা কঠিন কারণ প্রাথমিক পর্যায়ে লক্ষণগুলি সনাক্ত করা যায় না। পরবর্তী পর্যায়ে একজন ব্যক্তির পেটে অনির্দিষ্ট ব্যথা, বমি, পেটে রক্তক্ষরণ যা মল বা বমিতে দেখা যায়, রক্ত কমে গিয়ে রক্তাল্পতা সৃষ্টি করে, এবং ক্ষুধা কমে যাওয়ার প্রাথমিক অনুভূতি হতে পারে।

জিআইএসটি এখন একটি আগ্রাসনপ্রবণ ক্যান্সার হিসেবে স্বীকৃত যা শরীরের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়তে সক্ষম। জিআইএসটি-তে আক্রান্ত ব্যক্তিদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চিকিৎসা করা উচিত।

খাদ্যে এ্যালার্জী

যে কোনও ধরণের খাবারে একটি নির্দিষ্ট প্রোটিনকে যখন অনাক্রম্য তন্ত্র মনে করে একটি বহিরাগত পদার্থ এবং সে এটির বিরুদ্ধে লড়াই করার চেষ্টা করে তখন খাদ্য অ্যালার্জি ঘটে।

মাত্র আট শতাংশ শিশু এবং দুই শতাংশ প্রাপ্তবয়স্কদের প্রকৃতপক্ষে খাদ্য অ্যালার্জি রয়েছে। একজন ব্যক্তির যেকোনো ধরনের খাবারে অ্যালার্জি হতে পারে, তবে সবচেয়ে সাধারণ খাদ্য অ্যালার্জি দেখা যায় বাদাম, গরুর দুধ, ডিম, সয়া, মাছ এবং খোলক সহ মাছ জাতীয় খাদ্যে। যাদের খাবারের অ্যালার্জি আছে তাদের বেশিরভাগ লোকই চারটিরও কম ভিন্ন ভিন্ন খাবারে অ্যালার্জি থাকে।

খাবারের অ্যালার্জির সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণগুলি হল আমবাত, ফোলাভাব, চুলকানি ত্বক, চুলকানি, মুখের মধ্যে তীব্র যন্ত্রনা-বোধ বা ফোলাভাব, কাশি, শ্বাসকষ্ট, উদরাময় এবং বমি। খাদ্য অ্যালার্জির সাথে যুক্ত দুটি সবচেয়ে সাধারণ দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা হল একজিমা এবং হাঁপানি।

খাদ্য অ্যালার্জি মারাত্মক হতে পারে যদি তারা অ্যানাফিল্যাক্সিস (চুলকানিযুক্ত ফুসকুড়ি, গলা ফোলা, এবং নিম্ন রক্তচাপ) নামক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। এই প্রতিক্রিয়া ব্যক্তির শ্বাস নিতে কষ্ট হয়। এপিনেফ্রিন ইনজেকশন দ্বারা এই প্রতিক্রিয়ার চিকিৎসা করা যেতে পারে।

জিইআরডি, বুকজ্বালা, অ্যাসিড রিফ্লাক্স

জিইআরডি বা গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স ডিজিজ হয় যখন নিম্ন খাদ্যনালীর স্ফিঙ্কটার সঠিকভাবে বন্ধ করা যায় না। যখন এটি ঘটে, তখন পাকস্থলীর অম্ল মিশ্রিত খাদ্য, যাকে রিফ্লাক্স বলা হয়, তা খাদ্যনালী এবং পাকস্থলীতে ফিরে আসে।

যখন পাকস্থলী থেকে প্রতিপ্রবাহ হয়, তখন পাকস্থলীর অম্ল খাদ্যনালীর আবরণ স্পর্শ করে এবং এর ফলে গলা বা বুকে জ্বালাপোড়া অনুভূত হয়। একেই বলে বুকজ্বালা বা অম্বল। যখন আপনি আপনার গলার পিছনে তরল স্বাদ গ্রহণ করেন, তখন তাকে অম্ল বদহজম বলা হয়। একজন ব্যক্তির মাঝে মাঝে বুকজ্বালা হওয়া সাধারণ, কিন্তু যখন এটি সপ্তাহে দুবারের বেশি হয় তখন এটিকে জিইআরডি বলে বিবেচনা করা যেতে পারে। জিইআরডি শিশু সহ সকল বয়সের মানুষের মধ্যে ঘটতে পারে।

জিইআরডি-এর কিছু উপসর্গের মধ্যে রয়েছে বুকে ব্যথা হওয়া, গলা কর্কশ হয়ে যাওয়া, গিলতে সমস্যা হওয়া বা গলায় খাবার আটকে যাওয়ার অনুভূতি হওয়া। প্রধান উপসর্গগুলি হল ক্রমাগত অম্বল এবং অম্ল ওগরানো। জিইআরডি এছাড়াও নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ এবং শুষ্ক কাশির কারণ হতে পারে।

কেউ জানে না কেন মানুষ জিইআরডি পায়। কিছু জিনিসের জন্য জিইআরডি হতে পারে যেমন অ্যালকোহল ব্যবহার, গর্ভাবস্থা, অতিরিক্ত ওজন এবং ধূমপান। কিছু কিছু খাবারের জন্যও এটি হতে পারে যেমন লেবু জাতীয় ফল, ক্যাফিন, মশলাদার, চর্বিযুক্ত এবং শুকনো খাবার এবং পুদিনার স্বাদ।

ওভার-দ্য-কাউন্টার অ্যান্টাসিড বা ওষুধ যা অম্ল উৎপাদন বন্ধ করতে সাহায্য করে এবং পেশীগুলিকে পেট খালি করতে সাহায্য করে, সেগুলি সাধারণত জিইআরডি-এর চিকিত্সার জন্য ব্যবহৃত হয়।

কোষ্ঠকাঠিন্য

সকলের মলত্যাগের সময় একই থাকে না। ব্যক্তির উপর নির্ভর করে, একটি "স্বাভাবিক" সময়সূচী দিনে তিনবার থেকে সপ্তাহে তিনবার হতে পারে। আপনি যদি আপনার নিজের ব্যক্তিগত সময়সূচীর চেয়ে কম বার মলত্যাগ শুরু করেন, তাহলে সেটি কোষ্ঠকাঠিন্যের লক্ষণ হতে পারে।

কোষ্ঠকাঠিন্য হল সেই অসুখ যখন আপনার মলত্যাগে সমস্যা হয়। মল খুব শক্ত হয়ে যায় এবং এটি ত্যাগ করা কষ্টকর হয়ে ওঠে এবং একজন ব্যক্তির চাপ সৃষ্টি করে। মলত্যাগ করার পরেও আপনি মনে করতে পারেন যে আপনার আবার বেগ এসেছে।

যখন আপনি খাবার হজম করেন, তখন পেশী সংকুচিত হয়ে বর্জ্য পদার্থ আপনার অন্ত্রের মধ্য দিয়ে যায়। বৃহদন্ত্রে, বর্জ্য পণ্য থেকে বেশিরভাগ জল এবং লবণ পুনরায় শোষিত হয় কারণ এগুলি আমাদের দৈনন্দিন কাজের জন্য শরীরের প্রয়োজন। একজন ব্যক্তির কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে যদি খুব বেশি জল শোষিত হয়, বা যদি বর্জ্য পদার্থ খুব ধীরে ধীরে এগোয়।

পর্যাপ্ত তরল না পাওয়া, কম আঁশযুক্ত খাবার খাওয়া, বয়স, শারীরিকভাবে সক্রিয় না থাকা, বিষণ্ণতা, মানসিক চাপ এবং গর্ভাবস্থা সবই কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ হতে পারে। ওষুধ এবং মাদকদ্রব্যের জন্যও একজন ব্যক্তির কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য যকৃতের সমস্যা যেমন ইউরিয়া চক্রের ব্যাধির লক্ষণ হতে পারে।

একজন ব্যক্তির জন্য কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসার সর্বোত্তম উপায় হল নিশ্চিত করা যে তারা পর্যাপ্ত তরল এবং সেইসাথে তন্তুযুক্ত খাবারে পাচ্ছে। এটি করার মাধ্যমে, তাদের মলের বেশিরভাগ অংশ বৃদ্ধি করা হয় এবং নরম করা হয়, যাতে এটি অন্ত্রের মধ্য দিয়ে আরও সহজে চলাচল করতে পারে। আরও সক্রিয় হওয়া এবং প্রতিদিনের ব্যায়াম বাড়ানোও অন্ত্রের গতিবিধি নিয়ন্ত্রিত রাখতে সাহায্য করে।

হেমোরয়েড

হেমোরয়েড (এটি অর্শরোগ বা পাইলস নামেও পরিচিত) হল মলাশয় এবং পায়ুর শিরাগুলির পেঁচানো, বর্ধিত (ভ্যারিকোসিটি) হয়ে যাওয়া বা ফুলে যাওয়া এবং প্রদাহ।

অর্শ্বরোগের সবচেয়ে সাধারণ ধরনের দুটি প্রকার হল বাহ্যিক এবং অভ্যন্তরীণ অর্শ্বরোগ।

  • বাহ্যিক অর্শ্বরোগ এগুলি পায়ুর মুখের বাইরে ঘটে (পায়ুপথের দূরবর্তী প্রান্ত)। এগুলি কখনও কখনও বেদনাদায়ক হয়, এর সঙ্গে ফোলা এবং জ্বালাও থাকতে পারে। চুলকানি থাকলে সেটি সাধারণত ত্বকের জ্বালার কারণে হয়, যদিও প্রায়ই সেটি বাহ্যিক অর্শ্বরোগের উপসর্গ বলে মনে করা হয়।
    • যদি শিরা ফেটে যায় এবং রক্ত ​​জমাট বেঁধে যায়, তাহলে হেমোরয়েডটি "থ্রম্বোজড হেমোরয়েড" হয়ে যায়।
  • অভ্যন্তরীণ অর্শ্বরোগ হয় মলাশয়ের ভেতর। যেহেতু এই এলাকায় ব্যথা সংবেদনশীল রিসেপ্টরের অভাব রয়েছে, অভ্যন্তরীণ হেমোরয়েডগুলি সাধারণত বেদনাদায়ক হয় না এবং বেশিরভাগ লোকই জানে না যে তাদের এটি আছে। অভ্যন্তরীণ হেমোরয়েডে জ্বালা হলে রক্তপাত হতে পারে।
  • চিকিৎসা না করা অভ্যন্তরীণ অর্শ্বরোগ দুটি গুরুতর অর্শ্বরোগের কারণ হতে পারে: স্থানচ্যুত এবং স্ট্র্যাংগুলেটেড হেমোরয়েড।
    • স্থানচ্যুত হেমোরয়েড হল একধরণের অভ্যন্তরীণ হেমারয়েড যা এতটাই বিস্তৃত যে পায়ুর বাইরে বেরিয়ে আসে।
    • যদি মলদ্বারের স্ফিঙ্কটার পেশীর খিঁচুনি হয় এবং পায়ুমুখের বাইরে একটি স্থানচ্যুত হেমোরয়েড তাতে আটকে যায়, তবে তাতে রক্তের সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায় এবং সেই হেমোরয়েড একটি স্ট্র্যাংগুলেটেড হেমোরয়েড হয়ে যায়।

পরিপাক নালীতে রক্তপাত[সম্পাদনা]

পরিপাক নালীতে রক্তপাতের মানে সবসময় এই নয় যে আপনার কোন রোগ আছে, এটি সাধারণত হজম সমস্যার একটি উপসর্গ। রক্তপাতের কারণটি গুরুতর নাও হতে পারে, এটি এমন কিছু হতে পারে যা নিরাময় বা নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে যেমন হেমোরয়েড। যাইহোক, রক্তপাতের উৎস সনাক্ত করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পরিপাক নালীতে অন্ননালী, পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত্র, বৃহদন্ত্র বা কোলন, মলাশয় এবং পায়ুর মতো অনেক গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ রয়েছে। এই রক্তপাত এক বা একাধিক এলাকা থেকে হতে পারে, যেমন পাকস্থলীর একটি ছোট আলসার থেকে বা কোলনের প্রদাহের মত একটি বড় পৃষ্ঠতল থেকে। কখনও কখনও একজন ব্যক্তি এমনকি জানেও না যে তার রক্তপাত হচ্ছে। যখন এটি ঘটে, তখন একে লুকোনো বা গোপন রক্তপাত বলা হয়। সহজ পরীক্ষা দিয়ে মলের মধ্যে লুকোনো রক্ত ​​সনাক্ত করা যেতে পারে।

পরিপাক নালীতে রক্তপাতের কারণ কী

অন্ননালীর রক্তপাত ম্যালোরি-ওয়েইস উপসর্গের কারণে হতে পারে যা অন্ননালী ছিঁড়ে যাবার কারণে হয়। ম্যালোরি-ওয়েইস উপসর্গ সাধারণত অতিরিক্ত বমি বা প্রসবের কারণে হতে পারে, হায়াটাল হার্নিয়া বা কাশির কারণে পেটে চাপ বেড়ে যায়। বিভিন্ন ওষুধের কারণে পাকস্থলীর আলসার বা প্রদাহ হতে পারে। অ্যাসপিরিন বা অ্যালকোহলযুক্ত ওষুধ এবং অন্যান্য বিভিন্ন ওষুধ (প্রধানত বাতের জন্য ব্যবহৃত) এগুলোর কিছু উদাহরণ।

নিরীহ টিউমার অথবা পাকস্থলীর ক্যান্সারের কারণেও রক্তপাত হতে পারে। এই ব্যাধিগুলি থেকে সাধারণত প্রচুর রক্তপাত হয় না। রক্তপাতের সবচেয়ে সাধারণ উৎস সাধারণত ডিওডেনামের আলসার থেকে ঘটে। গবেষকরা বিশ্বাস করেন যে এই আলসারগুলি পাকস্থলীর অতিরিক্ত অম্ল এবং হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরি নামক ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট হয়।

নিম্ন পরিপাক নালীতে, রক্তপাতের সবচেয়ে সাধারণ উৎস হল বৃহদন্ত্র এবং মলাশয়। পাচনতন্ত্রে রক্তপাতের সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল হেমোরয়েড। হেমোরয়েড হল মলদ্বারের বর্ধিত শিরা যেখান থেকে উজ্জ্বল লাল রক্ত পড়ে। এটি মলত্যাগের পর টয়লেটে বা টয়লেট পেপারে দেখতে ​​পাওয়া যায়।

আপনি কিভাবে পরিপাক নালীতে রক্তপাত চিনবেন

পরিপাক নালীতে রক্তপাতের লক্ষণগুলি রক্তপাতের স্থান এবং তীব্রতার উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। মলাশয় থেকে রক্ত ​​পড়লে তা উজ্জ্বল লাল রক্ত ​​হবে। যদি এটি কোলনের ওপরের অংশ বা ক্ষুদ্রান্ত্র থেকে আসে, তাহলে রক্ত ​​গাঢ় রঙের হবে। পাকস্থলী, খাদ্যনালী বা ডিওডেনাম থেকে যখন রক্ত ​​আসে তখন মল কালো ও আলকাতরা তুল্য হয়ে যায়।

যদি রক্তপাত লুকানো থাকে, বা গোপন থাকে, একজন ব্যক্তি মলের রঙের পরিবর্তন হয়তো লক্ষ্য করতে পারবে না। যদি ব্যাপক রক্তপাত হয়, একজন ব্যক্তির মাথা ঘুরতে পারে, সে অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে, দুর্বলতা, শ্বাসকষ্ট বা পেটে খিঁচুনি ব্যথা অনুভব করতে পারে, তার উদরাময় হতে পারে। দ্রুত স্পন্দন, রক্তচাপ কমে যাওয়া এবং প্রস্রাব করতে অসুবিধার সাথে শকও হতে পারে। রক্তস্রাব ধীর হলে রক্তশূন্যতা থেকে ক্লান্তি, অলসতা আসতে পারে এবং ফ্যাকাশে হয়ে যেতে পারে। রক্তে লৌহ সমৃদ্ধ পদার্থ হিমোগ্লোবিন কমে গেলে রক্তাল্পতা হয়।

পরিপাক নালীতে রক্তপাতের সাধারণ কারণ

  • হেমোরয়েড
  • গ্যাস্ট্রাইটিস (প্রদাহ)
  • প্রদাহ (আলসারেটিভ কোলাইটিস)
  • কোলো রেকটাল পলিপস
  • কোলো রেকটাল ক্যান্সার
  • গ্রহণীসংক্রান্ত ঘাত
  • বর্ধিত শিরা
  • খাদ্যনালীর প্রদাহ (অন্ননালীর প্রদাহ)
  • ম্যালোরি-ওয়েইস সিনড্রোম
  • আলসার

লৌহ এবং বীট সবজিও মলকে লাল বা কালো করে দিতে পারে, যা দেখে ভুল সন্দেহ হতে পারে।


পরিপাক নালীতে রক্তপাত কিভাবে নির্ণয় করা হয়

পরিপাক নালীতে রক্তপাত নির্ণয়ের জন্য রক্তপাতকে অবশ্যই সনাক্ত করতে হবে, এছাড়া সম্পূর্ণ ইতিহাস জানা এবং শারীরিক অবস্থা বোঝা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখানে কিছু পদ্ধতি রয়েছে যা দিয়ে রক্তপাতের কারণ নির্ণয় করা যায়।

এন্ডোস্কোপি

এন্ডোস্কোপি বা অভ্যন্তরবীক্ষণ হল একটি সাধারণ রোগনির্ণয়সংক্রান্ত পদ্ধতি যার মাধ্যমে রক্তপাতের স্থান সরাসরি দেখতে পাওয়া যায়। যেহেতু এন্ডোস্কোপ ক্ষত সনাক্ত করতে পারে এবং রক্তপাতের অনুপস্থিতি বা উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারে, তাই ডাক্তাররা প্রায়ই তীব্র রক্তপাত নির্ণয়ের জন্য এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করেন, এন্ডোস্কোপটি রক্তপাতের কারণের চিকিৎসার জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে।

এন্ডোস্কোপ হল একটি নমনীয় যন্ত্র যা মুখ বা মলাশয় দিয়ে ঢোকানো যায়। এই যন্ত্রের মাধ্যমে ডাক্তারদের খাদ্যনালী, পাকস্থলী, ডিওডেনাম (এসোফ্যাগোডিওডেনোস্কোপি), সিগময়েড কোলন (সিগমায়েডোস্কোপি) এবং মলাশয় (রেক্টোস্কোপি) থেকে কলার ছোট নমুনা সংগ্রহ করা ও ছবি তোলা যায়। এছাড়াও এর মাধ্যমে রক্তপাত বন্ধ করার ব্যবস্থা নেওয়া যায়। নতুন এক পদ্ধতি রয়েছে যাতে একটি দীর্ঘ এন্ডোস্কোপ ব্যবহার করা হয়, যেটি ক্ষুদ্রান্ত্রে রক্তপাতের উৎস সনাক্ত করতে অস্ত্রোপচারের সময় ঢোকানো যেতে পারে।

ক্যাপসুল এন্ডোস্কোপি

ক্যাপসুল এন্ডোস্কোপি ডাক্তারদের পরিপাক নালীর মাঝখানের অংশের আস্তরণ দেখতে এবং পরীক্ষা করতে সাহায্য করে, যার মধ্যে ক্ষুদ্রান্ত্রের তিনটি অংশ রয়েছে (ডিওডেনাম, জেজুনাম, ইলিয়াম)। ক্যাপসুলটি একটি ছোট বড়ি আকারের ভিডিও ক্যামেরা যাকে এন্ডোস্কোপ বলা হয়। এটির নিজস্ব লেন্স এবং আলো রয়েছে যা ছবিগুলিকে একটি মনিটরে স্থানান্তরিত করে যাতে ডাক্তার তাদের শরীরের বাইরে দেখতে পারেন। এই প্রক্রিয়াটিকে ক্ষুদ্রান্ত্রের এন্ডোস্কোপি, ক্যাপসুল এন্ডোস্কোপি বা বেতার এন্ডোস্কোপি হিসাবেও উল্লেখ করা হয়।

ক্যাপসুল এন্ডোস্কোপি করার সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল ক্ষুদ্রান্ত্র থেকে রক্তপাতের কারণগুলি সন্ধান করা। এটি আলসার, টিউমার এবং ক্রোহন'স রোগ সনাক্ত করতেও সহায়তা করতে সক্ষম।

অ্যাঞ্জিওগ্রাফি

অ্যাঞ্জিওগ্রাফি এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে রক্তনালীগুলিকে লক্ষণীয় করতে রঞ্জক ব্যবহার করা হয়। এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করা হয় যখন রোগীর যথেষ্ট পরিমাণে রক্তপাত হয়। এই প্রক্রিয়ায় রক্তপাতের স্থানে রঞ্জকটিকে রক্তনালী থেকে বেরিয়ে আসে এবং স্থানটি সনাক্ত করা যায়। কিছু পরিস্থিতিতে, অ্যাঞ্জিওগ্রাফির মাধ্যমে রোগীকে ওষুধের ইনজেকশন দেওয়া যায় যার ফলে রক্তপাত বন্ধ করা যেতে পারে।

রেডিওনিউক্লাইড স্ক্যানিং

রেডিওনিউক্লাইড স্ক্যানিং হল একটি বিনা ক্ষত সৃষ্টি করে স্ক্রীনিং প্রক্রিয়া যা তীব্র রক্তপাতের স্থানগুলি সনাক্ত করতে ব্যবহৃত হয়, বিশেষ করে নিম্ন পরিপাক নালীতে। এই পদ্ধতিতে অল্প পরিমাণে তেজস্ক্রিয় পদার্থ ইনজেকশন করা হয় যা মানুষের লোহিত রক্ত ​​কণিকায় সংযুক্ত থাকে বা রক্তে ভেসে থাকে। বিশেষ ছবি তোলা হয় যার সাহায্যে ডাক্তাররা দেখতে পায় রক্ত কোথা থেকে ​​বেরিয়ে যাচ্ছে। বেরিয়াম এক্স-রে, অ্যাঞ্জিওগ্রাফি এবং রেডিওনিউক্লাইড স্ক্যানগুলি দীর্ঘস্থায়ী গোপন রক্তপাতের স্থানগুলি সনাক্ত করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

মল এবং বমিতে রক্ত ​​কীভাবে চিনবেন

  • মলের উপর উজ্জ্বল লাল রক্তের আবরণ
  • মলের সাথে ​​মিশে থাকা গাঢ় রক্ত
  • কালো বা আলকাতরার মত মল
  • বমিতে উজ্জ্বল লাল রক্ত
  • বমিতে দানাদার চেহারা

তীব্র রক্তপাতের লক্ষণ

  • দুর্বলতা
  • নিঃশ্বাসের কষ্ট
  • মাথা ঘোরা
  • তলপেটে ব্যথা
  • মাথা হালকা বোধ করা
  • উদরাময়

দীর্ঘস্থায়ী রক্তপাতের লক্ষণ

  • ক্লান্তি
  • নিঃশ্বাসের কষ্ট
  • অলসতা
  • ফ্যাকাশে ভাব

কোলনোস্কোপি[সম্পাদনা]

একটি কোলনোস্কোপি হল কোলনের ভেতরের অংশ দেখার জন্য একটি পরীক্ষা। কোলনের রোগগুলি পরীক্ষা করার জন্য প্রত্যেকেরই ৫০ বছর বয়সের মধ্যে একটি কোলনোস্কোপি করা উচিত। কোলোরেক্টাল ক্যান্সারের প্রাথমিক সনাক্তকরণে কোলনোস্কোপি ব্যবহার সবচেয়ে বেশি পরিচিত, এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ক্যান্সারের মৃত্যুর দ্বিতীয় প্রধান কারণ। কোলন ক্যান্সার অন্ত্রের প্রাচীরের মধ্যে পলিপের মতো বৃদ্ধি থেকে বিকাশ লাভ করে। এই বৃদ্ধিগুলি সাধারণত লক্ষণ ছাড়াই বিকাশ হতে ৫-১০ বছর সময় নেয়। যদি আপনার কোনো নিকটাত্মীয় থাকে যার এই রোগ হয়েছে, তাহলে আপনার এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি। সাধারণত ৫০ বছর বয়সের পরে পলিপ তৈরি হয়। তাই আমেরিকান কলেজ অফ গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি (বিপাক বিশেষজ্ঞ) এই বয়সের পরে এই ক্যান্সার-সৃষ্টিকারী বৃদ্ধিগুলির প্রাথমিক সনাক্তকরণ এবং অপসারণের জন্য প্রতি ৫ বছরে একবার স্ক্রিনিং পরীক্ষার পরামর্শ দেয়। অজুহাত তৈরি করবেন না! এটি এত খারাপ নয় এবং এটি আপনার জীবন বাঁচাতে পারে!

একটি অসুস্থতার অধ্যয়ন[সম্পাদনা]

ববের শরীরের অন্ত্র অঞ্চলে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার ইতিহাস ছিল এবং এটি কেন হচ্ছে তা নিশ্চিত ছিল না। তার ডাক্তার অনুমান করেছিলেন এটা কি হতে পারে এবং ববকে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়েছিলেন, তাতে কাজ হয়েছিল। এমন হয়েছিল যে বব যখনই পপকর্ন বা বাদাম খেত তখনই সে এই ব্যথা পেত। কখনও কখনও এটি নিজেই চলে যেত... অন্য সময় তাকে অ্যান্টিবায়োটিক নিতে হত। ডাক্তার কিছু পরীক্ষা করার উপদেশ দিয়েছিলেন এবং ববকে বলেছিলেন যে তাকে বাদাম, পপকর্ন, টমেটো, স্ট্রবেরি এবং যাতে বীজ বা সেইরকম কোন শক্ত অংশ আছে তেমন খাদ্য না খেতে; তার অন্ত্রে এমন কিছু আছে যে জন্য ঐ খাবার সহ্য হয় না। বব যথেষ্ট স্বাস্থ্যকর খাদ্য খেত তাই সে বুঝতে পারেনি কি ঘটছে। কয়েক বছর পরে, ববের আবারও একটি বেদনাদায়ক পর্ব শুরু হয়। যন্ত্রণা এতটাই প্রচন্ড ছিল যে, বব প্রায় দাঁড়াতেই পারত না, কাজে যাওয়া অসম্ভব ছিল। এবার ডাক্তার আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানতে পারলেন যে তার তলপেট প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। অস্ত্রোপচারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। ববের কি হয়েছিল?

শব্দকোষ[সম্পাদনা]

অ্যামিবিয়াসিস
এন্টামেবা হিস্টোলাইটিকা (এক ধরনের অ্যামিবা) দ্বারা সংক্রমিত হওয়ার কারণে অন্ত্রের একটি প্রদাহ, রক্ত ​​এবং শ্লেষ্মা দ্বারা ঘন ঘন পাতলা পায়খানা দ্বারা চিহ্নিত করা হয়।
অ্যামাইলেজ
অগ্ন্যাশয় এবং লালা গ্রন্থিতে একটি উৎসেচক উৎপন্ন হয় যা শ্বেতসার হজমে সাহায্য করে।
পিত্ত
একটি তিক্ত, ক্ষারীয়, বাদামী-হলুদ বা সবুজ-হলুদ তরল যা যকৃৎ থেকে নিঃসৃত হয়, পিত্তথলিতে সঞ্চিত হয় এবং ডিওডেনামে গিয়ে পড়ে। এটি স্নেহ পদার্থের ইমালসিফিকেশন, হজম এবং শোষণে সহায়তা করে।
বায়োটিন
বায়োটিন কোষের বৃদ্ধি, স্নেহজ অ্যাসিড উৎপাদন, স্নেহ পদার্থ বিপাক এবং অ্যামিনো অ্যাসিডের জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি ক্রেবস চক্রে একটি ভূমিকা পালন করে। বায়োটিন রক্তে শর্করার স্থিতিশীল মাত্রা বজায় রাখতেও সহায়ক। এটি প্রায়ই চুল এবং নখ শক্তিশালী করার জন্য সুপারিশ করা হয়।
বি১২
লাল রক্ত ​​কণিকার স্বাভাবিক গঠন এবং স্নায়ু কলার স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি ভিটামিন। এর অভাব সনাক্ত না হওয়া এবং তার চিকিৎসা না করার কারণে রক্তাল্পতা এবং স্নায়ু ও মস্তিষ্কের স্থায়ী ক্ষতি হতে পারে
ক্যান্ডিডা অ্যালবিকানস
প্রাণী এবং মানুষের মধ্যে পাওয়া যায়। মানুষের ত্বক এবং শ্লেষ্মা থেকে বিচ্ছিন্ন করা গেছে, তবে পাতা, ফুল, জল এবং মাটি থেকেও উদ্ধার করা হয়েছে। অ্যালার্জেনিক বলে রিপোর্ট করা হয়েছে। পৃষ্ঠতলে সংক্রমন, মুখ এবং যোনির সংক্রমন, পচন এবং ছড়িয়ে পড়া রোগের একটি সাধারণ কারণ। জীবের কোষগুলি সাধারণত বায়ুবাহিত হয় না এবং মুখের, শরীরের এবং অন্যান্য শ্লেষ্মা ঝিল্লির স্বাভাবিক অণুজীব উপাদান হিসাবে বিবেচিত হয়।
রাসায়নিক হজম
মুখের মধ্যে থাকা অবস্থায় খাবারের রাসায়নিক ভাঙ্গন (মুখ গহ্বর)। লালার পাচক রস নিঃসরণ যা খাবারকে আর্দ্র করে, পাচক রস এবং উৎসেচকগুলি বার হওয়ায় সহায়তা করে যেগুলি কার্বোহাইড্রেটের মত কিছু নির্দিষ্ট ম্যাক্রো-পুষ্টির উদ্দীপনায় উৎপাদিত হয়। মুখের লালায় অ্যামাইলেজ নামক উৎসেচক থাকে যে কার্বোহাইড্রেট ভেঙ্গে দেয়।
কোলেসিস্টোকিনিন (সিসিকে)
কোলেসিস্টোকিনিন (যাকে প্যানক্রিওজাইমিনও বলা হয়), এটি ক্ষুদ্রান্ত্রের কোষের (অন্ত্রের মিউকোসা) একটি হরমোন যা খাবারের প্রতিক্রিয়ায় উৎপাদিত হয়। এই হরমোনটি অনেক অঙ্গের নিঃসরণকে নিয়ন্ত্রণ করে যারা হজমে সাহায্য করে, যেমন, অগ্ন্যাশয় থেকে বাইকার্বনেট পাচন রসের অম্লতা কমায়। পাকস্থলী থেকে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড (এইচসিএল) মিশ্রিত পাকমণ্ড ক্ষুদ্রান্ত্রে প্রবেশ করলে তা এই বাইকার্বনেট দ্বারা প্রশমিত হয়।
কাইলোমিক্রন
লিপিড শোষণের পর প্রথমে লাইপোপ্রোটিন তৈরি হয়।
কাইম বা পাকমণ্ড
আংশিকভাবে হজম হওয়া ঘন আধা তরল খাবার যা পাকস্থলী থেকে ডিওডেনামে চলে যায়।
ক্রোন'স রোগ
বৃহদন্ত্রে এবং ক্ষুদ্রান্ত্রে স্কিপ ক্ষত হিসাবে বর্ণনা করা হয়, এটি একটি ত্রুটিপূর্ণ শোষণ ব্যাধি যা মুখ থেকে পায়ু পর্যন্ত পরিপাক নালীকে প্রভাবিত করতে পারে।
ডিমিনেশন
যখন একটি অ্যামিনো অ্যাসিড গ্রুপ অন্য একটি অ্যামিনো অ্যাসিড ভেঙে অ্যামোনিয়া এবং কেটো অ্যাসিডের একটি অণু তৈরি করে।
ইমালসিফায়ার
দুটি অমিশ্রণীয় (অমিশ্রণযোগ্য) পদার্থের মিশ্রণ।
গ্যাস্ট্রিন
পাকস্থলীর শ্লেষ্মা থেকে গ্যাস্ট্রিন নামক একটি হরমোন নিঃসৃত হয় যা পাচক রসের নিঃসরণ বাড়ায়।
জিআই ট্র্যাক্ট
গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ট্র্যাক্ট বা পরিপাক নালী, মুখ থেকে পায়ু পর্যন্ত প্রসারিত নল যেখানে মাংসপেশির নড়াচড়ার সঙ্গে হরমোন এবং উৎসেচকগুলির সাহায্যে খাদ্য পাচিত হয়।
হাইড্রোক্লোরিক
রাসায়নিক পদার্থ হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড হল হাইড্রোজেন ক্লোরাইড (এইচসিএল) গ্যাসের জল-ভিত্তিক দ্রবণ। এটি একটি শক্তিশালী অম্ল, পাকস্থলীর অম্লের প্রধান উপাদান এবং শিল্পে ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা হয়।
ল্যাকটোব্যাসিলাস অ্যাসিডোফিলাস
মানুষের ক্ষুদ্রান্ত্র, বৃহদন্ত্র, মুখ এবং যোনিতে বসবাসকারী গুরুত্বপূর্ণ অণুজীব বাসিন্দা। প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক পদার্থ নিঃসৃত করে যা শরীরকে বিভিন্ন রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণুর বিরুদ্ধে শক্তিশালী করে
লিকি গাট উপসর্গ
অন্ত্রের ব্যাপ্তিযোগ্যতার অস্বাভাবিক স্তর
লিঙ্গুয়াল লাইপেজ
একটি উৎসেচক যা শুধুমাত্র শৈশবেই উৎপন্ন হয় যা লম্বা-শৃঙ্খল স্নেহজ অ্যাসিডের হজমে সাহায্য করে।
লাইপেজ
অণুজীব দ্বারা উৎপাদিত একটি উৎসেচক যা স্নেহ পদার্থের অণুগুলিকে স্নেহ অ্যাসিডে বিভক্ত করে, এটি খাদ্যের স্বাদ এনে দেয়।
যান্ত্রিক হজম
জিহ্বার ছন্দোবদ্ধ নড়াচড়ার দ্বারা ও দাঁতের দ্বারা চূর্ণ করা, দাঁত খাদ্য ছিঁড়তে ও চূর্ণ করতে সাহায্য করে, জিহ্বা পেরিস্টালসিস (নাড়াচাড়া) করে খাদ্যকে অন্ননালীতে নামতে সাহায্য করে।
মাইসেলস
লিপিড এবং পিত্তের একটি উৎপাদন যা লিপিড শোষণে সহায়তা করে।
মাইক্রোভিলি
ক্ষুদ্রান্ত্রের ভিলিতে মিভরোভিলি থাকে, ব্রাশ বর্ডার মাইক্রোভিলি নামক এই অভিক্ষেপগুলি ডিস্যাকারাইড আর্দ্র বিশ্লেষণের জন্য নির্দিষ্ট উৎসেচক নিঃসরণ করে, এগুলি আরও একটি মনোস্যাকারাইড তৈরি করে কার্বোহাইড্রেট শোষণে সহায়তা করে যা পরবর্তীতে পোর্টাল সঞ্চালনের মাধ্যমে যকৃতের সঞ্চালনে যেতে পারে। অবিলম্বে শক্তি হিসেবে ব্যবহারের জন্য বা গ্লাইকোজেন সঞ্চয়ের জন্য প্রক্রিয়া করা হয়।
পেরিস্টালসিস
অন্ত্র বা অন্যান্য নলাকার কাঠামোর তরঙ্গতুল্য পেশী সংকোচন যা পরপর সংকোচন এবং শিথিলকরণের মাধ্যমে খাদ্যবস্তুকে এগিয়ে নিয়ে যায়।
গলবিল
খাদ্য ও বাতাসের প্রবেশপথ
বিস্তার
কোষের প্রজনন বা বিভাজনের প্রক্রিয়া
প্রোটিজ
প্রোটিন এনজাইম
রেনিন
শুধুমাত্র শৈশবকালে উৎপাদিত হয় এবং এটি একটি পাচক প্রোটিজ, এটি ক্যালসিয়ামের সাথে কাজ করে দুধের প্রোটিন কেসিনের সাথে জমাট বাঁধতে, দুধের চলনকে ধীর করে যাতে বিপাক দীর্ঘায়িত হয়।
সেরোটোনিন
মস্তিষ্কে রাসায়নিক বার্তাবাহক যা আবেগ, আচরণ এবং চিন্তাভাবনাকে প্রভাবিত করে
সংশ্লেষন
সহজ, কাঁচামাল থেকে শরীরে রাসায়নিকের মতো কিছু তৈরি করা
আলসারেটিভ কোলাইটিস
ভিলি
শ্লেষ্মা ঝিল্লি থেকে উদ্ভূত একটি ক্ষুদ্র অভিক্ষেপ, বিশেষত ক্ষুদ্রান্ত্রের নালীর মধ্যে অভিক্ষেপগুলির মধ্যে একটি।
ভিটামিন কে
একটি পদার্থ যা রক্ত ​​জমাট বাঁধতে সাহায্য করে

অসুস্থতার অধ্যয়নের উত্তর ববের ডাইভার্টিকুলাইটিস হয়েছে। ডাক্তার ভয় পেয়েছিলেন যে যদি তার আরেকটি খারাপ সংক্রমণ হয় তাহলে ক্ষত যুক্ত কলা শেষ পর্যন্ত তার কোলনকে সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করে দেবে এবং তার ফলে কোলন ফেটে যাবে, যার জন্য একটি কোলোস্টোমি প্রয়োজন হবে। ববকে তার কোলনের ক্ষতিগ্রস্ত অংশ অপসারণের জন্য অস্ত্রোপচার করতে হয়েছিল। ডাক্তার ববের বৃহদন্ত্রের প্রায় ১৮ ইঞ্চি অপসারণ করেছেন। বব এখন ভাল আছে এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, সে এখন তার প্রিয় খাবার - বাদাম খেতে পারে! দ্রষ্টব্য: কখনও কখনও তন্তু সমৃদ্ধ খাবার আপনাকে এই ভয়ঙ্কর সমস্যা এড়াতে সাহায্য করতে পারে। কখনও কখনও এই সমস্যা হওয়ার প্রবণতা পরিবারে থাকে, ববের ক্ষেত্রে যেমন হয়েছিল। তার ভাইবোন এবং তার বাবা সবাই এই একই অসুস্থতায় ভুগেছেন। স্ট্রেস আরেকটি কারণ যা এই রোগটিকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে। তাই.. চিন্তা করবেন না, খুশি থাকুন এবং তন্তু সমৃদ্ধ খাবার খান!

বাহ্যিক সংযোগ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

১: চেন টিএস, চেন পিএস। গ্যাস্ট্রোইন্টেস্টাইন্যাল অটোইনটক্সিকেশন: এ গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল লিটমোটিভ: জার্নাল ক্লিনিক্যাল গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি

২: আর্নস্ট ই. কলোনিক ইরিগেশন অ্যান্ড দ্য থিওরি অফ অটোইনটক্সিকেশন: এ ট্রায়াম্ফ অফ ইগনোরেন্স ওভার সায়েন্স। জার্নাল অফ গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি

৩: আলভারেজ ডব্লিউসি। তথাকথিত স্বয়ংক্রিয় নেশার লক্ষণগুলির উৎস।

৪: ডোনাল্ডসন এএন। কোষ্ঠকাঠিন্যের সাথে অন্ত্রের নেশার সম্পর্ক।

৫: কেনি জেজে। ফিট ফর লাইফ: সাম নোটস অন দ্য বুকস অ্যাণ্ড ইটস রুটস। নিউট্রিশন ফোরাম

৬: এনিমা ব্যবহার সীমিত। এফডিএ ভোক্তা

৭: অ্যামেবিয়াসিস অ্যাসোসিয়েটেড উইথ কোলোনিক ইরিগেশন - কলোরাডো। অসুস্থতা এবং মৃত্যুর সাপ্তাহিক প্রতিবেদন

৮: ইস্ট্রে জিআর এবং অন্যান্যরা। অ্যান আউটব্রেক অফ অ্যামেবিয়াসিস স্প্রেড বাই কোলোনিক ইরিগেশন অ্যাট এ চিরোপ্র্যাকটিক ক্লিনিক

৯: বেঞ্জামিন আর এবং অন্যান্য। দ্য কেস এগেইন্সট কোলোনিক ইরিগেশন

১০: আইজেল জেডব্লিউ, রে ডিটি। কফি এনিমা সম্পর্কিত মৃত্যু

১১: জার্ভিস ডব্লিউটি। কোলোনিক ইরিগেশন। স্বাস্থ্য জালিয়াতির বিরুদ্ধে জাতীয় কাউন্সিল।

১২: ন্যাশানাল ডাইজেস্টিভ ডিজিজ ইনফরমেশন ক্লিয়ারিংহাউস (এনডিডিআইসি)