বিষয়বস্তুতে চলুন

কোভিড-১৯ টিকা বিতরণ

উইকিবই থেকে

ভুমিকা[সম্পাদনা]

টিকা উন্নয়নের তিনটি প্রধান পর্যায় আছে: গবেষণা ও উন্নয়ন, উৎপাদন এবং বিতরণ। গবেষণা ও উন্নয়ন পর্যায়ে বেঞ্চ-সাইড(bench-side) গবেষণা এবং ইন-ভিট্র(in vitro) অধ্যয়নের মাধ্যমে টিকার গঠন নির্ধারণ করা হয়। এই গবেষণা থেকে পরবর্তীতে মানবীয়(in vivo) ক্লিনিক্যাল গবেষণা করে এটি নিশ্চিত করা হয় যে মানুষের উপর কোনো ক্ষতিকারক প্রভাব নেই এবং এরপর এটি ফেডারাল সংস্থা দ্বারা অনুমোদিত করা হয়। একবার অনুমোদিত হলে এই টিকাগুলোর উন্নয়ন পর্যায় শুরু হতে পারে। এই পর্যায়ে টিকার গনউৎপাদন এবং ---- হয়। পরবর্তীতে, এই টিকাগুলো বিভিন্ন সংস্থায় বিতরণ করা হয়, যারা নির্ধারণ করবে যে কারা টিকা পাবে এবং কখন টিকা দেয়া হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরে বিতরণ[সম্পাদনা]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ভ্যাকসিন বিতরণ নির্ধারণ[সম্পাদনা]

রাজ্য/স্থানীয় ভ্যাকসিন বিতরণ নির্ধারণের কার্যপদ্ধতি[সম্পাদনা]

বৈশ্বিকভাবে বিতরণ[সম্পাদনা]

কোভাক্স (COVAX)[সম্পাদনা]

বিতরণ[সম্পাদনা]

টিকা জাতীয়তাবাদ[সম্পাদনা]

টিকা উপলব্ধি এবং সমাজ[সম্পাদনা]

টিকার প্রবণতা[সম্পাদনা]

টিকার অনুপ্রেরণা[সম্পাদনা]

আর্থিক অনুপ্রেরণা[সম্পাদনা]

ক্ষমতাগত অনুপ্রেরণা[সম্পাদনা]

টিকা দ্বিধা[সম্পাদনা]

উপসংহার[সম্পাদনা]

কোভিড-১৯ মহামারীর প্রতিক্রিয়া হিসেবে বিশ্বজুড়ে সকল সরকার প্রাদেশিক ও বৈশ্বিক পর্যায়ে পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়েছে। উদাহরণসরূপ, যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রমের মাধ্যমে অগ্রাধিকারভিত্তিক বিতরণ নির্ধারণ করা হয়েছে। কোভাক্স নামক একটি আন্তর্জাতিক আন্দোলন আর্থিক অবস্থা নির্বিশেষে সকল রাষ্ট্রে টিকা সরবরাহের গতিপথ তত্ত্বাবধানে রাখছে। এসব উদ্যোগ থাকা সত্ত্বেও, বুদ্ধিবৃত্তিক তথ্য বিতরণে অনাগ্রাহী টিকার জাতীয়তাবাদ এবং সামাজিক বিশ্বাস সকল ক্ষেত্রে কার্যকরী টিকা বিতরণ রোধ করে চলেছে। নির্ধারিত ডোজের পরিমাণের অনুরূপ বিভিন্ন বিতারণ সম্পর্কিত প্রতিকুলতার মধ্য দিকে মহামারীর সত্য একই থাকে: টিকা নয়, টিকা প্রদান জীবন বাচায়।