কুরআন ও আধুনিক বিজ্ঞান/প্রাণিবিদ্যা/মধুতে নিরাময়ের বৈশিষ্ট্য রয়েছে

উইকিবই থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

মৌমাছি বিভিন্ন ধরনের ফুল ও ফলের রস শোষণ করে এবং তার শরীরের মধ্যে মধু তৈরি করে, যা সে তার মোমের কোষে সঞ্চয় করে। মাত্র কয়েক শতাব্দী আগে মানুষ জানতে পেরেছিল যে মৌমাছির পেট থেকে মধু আসে। এই সত্যটি কুরআনে ১৪০০ বছর আগে নিম্নলিখিত আয়াতে উল্লেখ করা হয়েছিলঃ

অতঃপর প্রত্যেক ফল থেকে আহার কর, অতঃপর তোমার প্রতিপালকের (শিখানো) সহজ পদ্ধতি অনুসরণ কর। এর পেট থেকে রং-বেরং এর পানীয় বের হয়। এতে মানুষের জন্য আছে আরোগ্য। চিন্তাশীল মানুষের জন্য এতে অবশ্যই নিদর্শন আছে। [১৬:৬৯]


আমরা এখন সচেতন যে মধুর একটি নিরাময় বৈশিষ্ট্য এবং একটি হালকা অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। রাশিয়ানরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে তাদের ক্ষত ঢাকতে মধু ব্যবহার করত। ক্ষতটি আর্দ্রতা ধরে রাখবে এবং খুব সামান্য দাগ টিস্যু ছেড়ে যাবে। মধুর ঘনত্বের কারণে ক্ষতস্থানে কোনো ছত্রাক বা ব্যাকটেরিয়া জন্মে না।

একটি নির্দিষ্ট উদ্ভিদের অ্যালার্জিতে ভুগছেন এমন ব্যক্তিকে সেই উদ্ভিদ থেকে মধু দেওয়া যেতে পারে যাতে সেই ব্যক্তিটি সেই অ্যালার্জির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। মধু ফ্রুক্টোজ এবং ভিটামিন K-এর সমৃদ্ধ।

পশু জবাই নাকি পশুবলি কোনটি বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে যৌক্তিক?

সুতরাং মধু, এর উৎপত্তি ও গুণাগুণ সম্পর্কে কুরআনে যে জ্ঞান রয়েছে, তা নাযিল হওয়ার সময় থেকে অনেক এগিয়ে ছিল।


প্রাণিবিদ্যা 100% developed

পাখির উড়ান পদ্ধতি 100% developedমৌমাছি 100% developedমাকড়সার ঘর 100% developedপিঁপড়ার জীবনধারা এবং যোগাযোগ 100% developedমধুতে নিরাময়ের বৈশিষ্ট্য রয়েছে 100% developed