কম্পিউটারের ইতিহাস/মাইক্রো কম্পিউটারের উত্থান

উইকিবই থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

আলটেয়ার[সম্পাদনা]

এমআইটিএস আলটেয়ার ৮৮০০ হল একটি মাইক্রোকম্পিউটার। এটি তৈরি হয়েছিল একটি নতুন মাইক্রোপ্রসেসর ইনটেল ৮০৮০ কে ভিত্তি করে এবং ১৯৭৫ সালে এর আত্মপ্রকাশ ঘটেছিল। ১৯৭৫ সালে পপুলার ইলেকট্রনিক্স পত্রিকার জানুয়ারি সংখ্যায় এটির আত্মপ্রকাশের ঘোষণা হয়েছিল। এরপর যা অর্ডার এসেছিল তা পূরণ করতে আলবুকার্ক-ভিত্তিক প্রস্তুতকারকের চার মাস লেগে গিয়েছিল।

'আলটেয়ার' গৃহে ব্যবহৃত প্রথম কম্পিউটার হিসাবে বিবেচিত হয়। এই কম্পিউটারের একমাত্র ইনপুট হিসাবে ব্যবহৃত হত সামনের প্যানেলের পরপর কিছু সুইচ। তবে এতে ইন্টারফেজ লাইনের সাথে সংযুক্ত একটি মাদারবোর্ড ছিল, যার মাধ্যমে রেজিস্টারের সাথে সংযোগ করার জন্য অন্যান্য কোম্পানিদের কীবোর্ড, টেপ রিডার এবং অন্যান্য যন্ত্র ব্যবহার করা যেত।

হার্ভারডের একদল ছাত্র এমআইটিএস-এর বোঝার মত করে বেসিক ভাষায় প্রোগ্রাম লিখেছিলেন। এই ছাত্ররা হলেন স্টিভ বালমার, পল অ্যালেন এবং বিল গেটস। তাঁরা প্রোগ্রামিংয়ের বিকাশের দিকে মনোযোগ দেবার জন্য হার্ভারড ত্যাগ করেন এবং কিছুদিন পরেই মাইক্রোসফট তৈরি করেন।

রেডিও শ্যাক[সম্পাদনা]

টিআরএস-৮০ মডেল ২

টিআরএস-৮০ ক্রমের কম্পিউটারগুলি তৈরি হয়েছিল জিলগ জেড৮০ প্রসেসরের উপর ভিত্তি করে, এটি চলত টিআরএস-ডস অপারেটিং সিস্টেমে এবং এর মনিটর ছিল একরঙা। প্রথমে এটিতে ফ্লপি ডিস্ক ব্যবহার করা হত এবং তারপরে প্রযুক্তি ব্যবহার করে হার্ড ড্রাইভও ব্যবহার করা গিয়েছিল।

রঙিন গ্রাফিক্স সহ টিআরএস-কোকো ক্রমের কম্পিউটার হোম কম্পিউটার হিসাবে তৈরি করা হয়েছিল এবং টিআরএস-৮০ সিরিজ ব্যবসাক্ষেত্রে ব্যবহারের উদ্দেশ্যে বাজারজাত করা হয়েছিল। কোকো-তে খরচ বাঁচাতে মনিটর হিসেবে টিভি সেট ব্যবহার করা হত এবং সেটি আটারি ৪০০ ও ৮০০ এবং কমোডোর ৬৪ ক্রমের কম্পিউটারের সাথে প্রতিযোগিতা করার চেষ্টা করেছিল। কোকো-তে ৬৮০৯ মটোরোলা প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছিল এবং এর অপারেটিং সিস্টেম ছিল ওএস৯ (ম্যাক ওএস ৯ এর সাথে কোন সম্পর্ক নেই)।

ট্যান্ডি ১০০০ সিরিজটি আইবিএম পিসিজুনিয়র গ্রাফিক্স এবং সাউন্ড চিপসের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছিল, এতে সম্প্রসারণ স্লট ব্যবহার করা হয়েছিল কিন্তু এর পিনগুলি পিসি এবং "এটি আইএসএ" সম্প্রসারণ স্লটের চেয়ে আলাদাভাবে তার দ্বারা যুক্ত ছিল। এর অপারেটিং সিস্টেম ছিল ট্যান্ডি ডসের অধীনে জিইউআই বা গুই (গ্রাফিক্যাল ইউজার ইন্টারফেস) হিসাবে ডেস্কমেট (এটি একটি পরিবর্তিত এমএস-ডস, এটি এমনকি ডস ইন্টারাপ্টগুলিকেও পরবর্তন দিত যাতে এটি শুধুমাত্র ট্যান্ডি সিরিজের কম্পিউটারগুলিতেই চালানো যায়।) অনেক এমএস-ডস ভিডিও গেম সিজিএ, ইজিএ, ও ট্যান্ডি গ্রাফিক্স দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল এবং ট্যান্ডি সংস্করণে ধ্বনি বেশ উন্নত ছিল। পরে আরও উন্নত অ্যাডলিব এবং সাউন্ড ব্লাস্টার এর মত আইএসএ সাউন্ড কার্ড এসেছিল। অবশেষে ভিজিএ গ্রাফিক্স সহ আইবিএম পিএস/২ সিরিজের উদ্ভাবন হয় এবং তখন কেউ আর ট্যান্ডি সিরিজের পিসির প্রতি আগ্রহী হত না। উইন্ডোজ ৩.এক্স-এর ব্যবহার ব্যাপক হয়ে গেলে রেডিও শ্যাক কোম্পানী ট্যান্ডি ১০০০ সিরিজ বিক্রি বন্ধ করে দেয়। এরপর তারা অবশেষে নিজেদের তৈরি পিসি ব্যবসা থেকে বেরিয়ে আসে এবং ডেল বা কমপ্যাকের মতো অন্যান্য কোম্পানির তৈরি পিসি বিক্রি করা শুরু করে। তারপরে অবশেষে তারা কম্পিউটার বিক্রি বন্ধ করে দেয়।

জেডএক্স স্পেকট্রাম, এবং সমঞ্জস সমূহ[সম্পাদনা]

অ্যাপল[সম্পাদনা]

অ্যাপল আইএনসি এর ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৭৬ সালে, দুই বন্ধু স্টিভ জবস এবং স্টিভ ওজনিয়াক চাকরি ছেড়ে দেন এবং ক্যালিফোর্নিয়ার কিউপারটিনোতে স্টিভের গ্যারেজে চলে যান। সেখানে তাঁরা একটি সস্তা এবং ব্যবহারকারী-বান্ধব কম্পিউটার তৈরির ধারণা নিয়ে কাজ শুরু করেন। ওজনিয়াক প্রকৌশলী ছিলেন, তিনি একটি আবদ্ধ সার্কিট বোর্ডে কাজ করছিলেন যেখানে সুইচ সহ ফ্ল্যাশিং লাইট ছিল। জবস জোর দিয়ে বলেন যে তিনি এবং ওজনিয়াক এই খেলনাটি কম্পিউটার-প্রেমীদের কাছে বিক্রি করার চেষ্টা করবেন। এটির নাম দেওয়া হয় অ্যাপল ১। সেই দিন জন্ম হয়েছিল অ্যাপল কম্পিউটারের এবং বাকিটা ইতিহাস।

অ্যাপল ২[সম্পাদনা]

Apple II IMG 1107.jpg

অ্যাপল কম্পিউটার অ্যাপল ২-এর উৎপাদন করেছিল। এখানে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে ব্যবহার হত বেসিক এবং এটিকে বাড়িতে ব্যবহারের জন্য বাজারজাত করা হয়েছিল। আসল অ্যাপল ১ কম্পিউটারটি স্টিভ ওজনিয়াক এবং স্টিভ জবস একটি গ্যারেজে তৈরি করেছিলেন। উভয়েই ছিলেন কলেজ পালানো ছাত্র এবং তাঁদের উদ্দেশ্য ছিল $১০০০ এর নিচে রঙিন পর্দা সহ একটি মাইক্রো কম্পিউটার তৈরি করা। স্টিভ ওজনিয়াক একটি তালিকা থেকে সাবধানে প্রয়োজনীয় চিপ বেছে নিয়েছিলেন যাতে তিনি সেরা মূল্য এবং গুণমান নিশ্চিত করতে পারেন। তিনি এমওএস ৬৫০২ প্রসেসর বেছে নিয়েছিলেন, যেটি আসলে মোটোরোলা ৬৮০০ ক্লোন। কপিরাইট আইন এড়ানোর জন্য এর কিছু পিন পরিবর্তন করা হয়েছিল। এমওএস ৬৫০২ প্রসেসর সস্তা ছিল এবং তার ফলে অ্যাপল ১ এবং তারপরে অ্যাপল ২ সিরিজের দাম অনেক কম পড়েছিল। আসল অ্যাপল ১-এর দাম ছিল $৬৬৬। সেগুলি প্রয়োজন অনুযায়ী কাঠের বাক্সে রেখে বিক্রি করা হয়েছিল। এত মেশিন বিক্রি হয়েছিল যে তার থেকে শুধুমাত্র ঋণ ফেরত নয়, অ্যাপল ২ ক্রমের কম্পিউটার তৈরিতেও সাহায্য হয়েছিল। অ্যাপল ২ সিরিজে অ্যাপল ডস এবং পরে প্রো ডস ও বেসিকের একটি সংস্করণ ব্যবহার হত। এটিতে ফ্লপি ড্রাইভ কন্ট্রোলার, মডেম এবং এছাড়াও সিপিএম-৮০ সফটওয়্যার চালানোর জন্য জেড৮০ সিপি/এম কার্ড এর মত অন্যান্য জিনিসগুলি লাগানোর উদ্দেশ্যে সম্প্রসারণ স্লট ছিল। একটি বিমান দুর্ঘটনায় পড়ে স্টিভ ওজনিয়াকের বেশিরভাগ স্মৃতি নষ্ট হয়ে গিয়েছিল এবং তিনি অ্যাপল থেকে বাদ পড়েছিলেন। অ্যাপল এরপর অ্যাপল ৩ সিরিজ তৈরি করার চেষ্টা করেছিল কিন্তু এটি অ্যাপল ২ এর মত হয়নি। এটিতে আলগা চিপসের মতো সিরিজ হার্ডওয়্যার সমস্যা ছিল। অ্যাপলের সমাধান ছিল চিপগুলিকে চেয়ার থেকে ছয় ফুট নিচে ছুঁড়ে ফেলে নিজের জায়গায় বসিয়ে দেওয়া। গৃহ কম্পিটারের বাজারে অন্যদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিঁকে থাকতে সাহায্য করার জন্য অ্যাপল ২, অ্যাপল ২+, অ্যাপল ২ই-এর পরে, অ্যাপল ২সি তৈরি করা হয়েছিল। বাজারে তখন এসে গেছে কমোডোর ৬৪, আটারি ৮০০, এবং আইবিএম পিসিজুনিয়র। ম্যাকিনটোশ এবং অ্যামিগার পরে ৬৫সি৮১৬ ১৬ বিট সিপিইউ দিয়ে অ্যাপল //জিএস তৈরি করা হয়েছিল, অ্যাপল ২ কোড এবং উন্নততর অ্যাপল ২জিএস কোড চালানোর জন্য। অ্যাপল ২জিএস-কে নির্মান করা হয়েছিল ম্যাক ফাইন্ডার গুই এর উপর ভিত্তি করে। পরে এর জায়গায় এসেছিল ম্যাকিনটোশ ২ সিরিজ। ম্যাকিনটোশ ২ নুবাস স্লটে অ্যাপল ২ সফটওয়্যার চালানোর জন্য একটি অ্যাপল ২ এমুলেটর কার্ড (যেটি অনুকরণ করতে পারে) ছিল। অ্যাপলের স্লোগান ছিল "অ্যাপল ২ ফরএভার" (অ্যাপল ২ চিরকাল), কিন্তু অবশেষে ম্যাকিনটোশ সিরিজের জন্য তারা অ্যাপল ২ সিরিজ পরিত্যাগ করে।

অ্যাপল লিসা এবং ম্যাকিনটোশ[সম্পাদনা]

ম্যাকিনটোশ

অ্যাপল ২-এর সাথে অ্যাপল লিসা এবং তার পরে অ্যাপল ম্যাকিনটোশের পরে এল অ্যাপল কম্পিউটার। এই কম্পিউটারগুলি তাদের গ্রাফিক্যাল ইউজার ইন্টারফেসের (গুই) কারণে অনন্য ছিল, তাদের হাত ধরে এল আইকন, উইন্ডোজ, পুল ডাউন মেনু এবং মাউসের ধারণা। (গুই ধারণাটি আসলে জেরক্স থেকে নেওয়া হয়েছিল, জেরক্স স্টার এবং জেরক্স অল্টো এই দুটি কম্পিউটারের মাধ্যমে)। জেরক্স পরে অ্যাপলের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল, কিন্তু জেরক্স এই মামলায় হেরে যায় কারণ ম্যাকিনটোশ গুই জেরক্স স্টার গুই থেকে যথেষ্ট আলাদাই ছিল। আসল ম্যাকিনটোশের দাম ছিল $৪০০০ এবং তাতে মটোরোলা ৬৮০০০ সিপিইউ ব্যবহার করা হয়েছিল। তাতে ছিল ১২৮কে র‍্যাম, একটি ৪০০কে ৩.৫ ইঞ্চি ফ্লপি ড্রাইভ এবং একটি নয় ইঞ্চি সাদা-কালো মনিটর। এটি খুব ভাল বিক্রি হয়নি এবং স্টিভ জবসকে অ্যাপল থেকে বহিস্কার করা হয়েছিল। তিনি চলে গেলেন এবং যাবার সময় প্রধান কর্মীদের সঙ্গে করে নিয়ে গেলেন ও স্থাপনা করলেন নেক্সট আইএনসি.-এর। তিনি বিএসডি ইউনিক্স এবং ম্যাক কার্নেলে নেক্সটকিউব ও নেক্সটওএস ব্যবহার করলেন। অ্যাপল তৈরি করল ম্যাকিনটোশ ২ যাতে নুবাস সম্প্রসারণ স্লটের সঙ্গে কমোডোর অ্যামিগার মতো রঙিন গ্রাফিক্স ছিল। এটি কমোডোর ২০০০ এর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল কিন্তু দ্রুত গতির জন্য একটি ৩২ বিটের সিপিইউ ৬৮০২০ ছিল। অবশেষে ইনটেল ৮০৩৮৬ এবং তার ওপরের প্রসেসরের সাথে প্রতিযোগিতায় নামার জন্য, অ্যাপল, আইবিএম এবং মটোরোলার যৌথ প্রচেষ্টার মাধ্যমে ম্যাকিনটোশকে পাওয়ারপিসি প্রসেসরে উন্নত করার জন্য একটি প্রসেসরের বিকাশ করার চেষ্টা হল। নতুন ম্যাকিনটোশ সিরিজের নাম ছিল পাওয়ারম্যাকস, এটি বেশ কিছুদিন চলেছিল কিন্তু ম্যাক ওএস প্রাক-অনুভূতি দিয়ে একাধিক কাজ (মাল্টি-টাস্ক) করতে না পারায় এবং ত্রুটি পুনরুদ্ধার সিস্টেম না থাকার কারণে ও ধীরগতির হওয়ায় অ্যাপল ক্ষতির মুখ দেখতে শুরু করে, এবং অবশেষে এর উৎপাদন বন্ধ করে দিতে হয়। পাওয়ারপিসি একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে মটোরোলা ৬৮কে সিরিজকে অনুকরণ করার চেষ্টা করেছিল যাতে পাওয়ারম্যাকস ক্লাসিক ম্যাকিনটোশ সফটওয়্যার চালায়। অ্যাপল কোম্পানিকে বাঁচাতে স্টিভ জবসকে ফিরিয়ে আনা হবে কিনা সেই নিয়ে বিতর্কের মাঝে, তারা বিওএস-এর নির্মাতা বি আইএনসি. কেনার কথা এবং ভবিষ্যতে ম্যাকিনটোশ সিস্টেমে বিওএস ব্যবহারের কথা বিবেচনা করে। শেষ অবধি অ্যাপল স্টিভ জবসকে ফিরিয়ে আনে এবং নেক্সট আইএনসি. কেনার সিদ্ধান্ত নেয়। তারা ম্যাক ওএস ৯ এবং নেক্সটওএস কে একত্রিত করে ম্যাক ওএসএক্স তৈরি করে। স্টিভ জবস অ্যাপল নিউটন এবং অ্যাপল প্রিন্টার ও স্ক্যানারের মতো অলাভজনক পণ্যগুলিকে বাদ দিয়ে দেন এবং আইম্যাক নামে একটি নতুন কম দামের ম্যাক তৈরি করেন। এটি প্রকৃতপক্ষে একটি ১৫ ইঞ্চি মনিটরের ভিতরে একটি সম্পূর্ণ ম্যাকিনটোশ ছিল, এতে স্বচ্ছ প্লাস্টিকের রং ব্যবহার করা হয়েছিল এবং এর ডিজাইন ছিল পাওয়ারপিসি জি৩ প্রসেসরের মত। তারপরে অ্যাপল কুইকটাইম থেকে আইটিউনসের বিকাশ করে এবং এতে সঙ্গীত চালানোর জন্য আইপড তৈরি করে। পরবর্তী মডেলগুলিতে ভিডিও এবং চলচ্চিত্রও চালানো যেত। আইম্যাক এবং আইপড সফল হল এবং অ্যাপল ঘুরে দাঁড়িয়ে আবার মুনাফা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছিল। আইম্যাক সিরিজটি পাওয়ারপিসি জি৪ এবং জি৫ প্রসেসরে উন্নীত করা হয়েছিল এবং সেখানে একটি এলসিডি সমতল পর্দা মনিটর ব্যবহার করা হয়েছিল। ম্যাক ওএস এক্স অবশেষে শেষ হয়ে যায় এবং অ্যাপল মেশিনের উন্নতি ঘটিয়ে আরও বেশি লাভ করতে থাকে। তারা কার্বন লাইব্রেরি এবং অনুকরণের মাধ্যমে ক্লাসিক ম্যাক সফটওয়্যারের ব্যবহার করেছিল। পিসি ব্যবহারকারীদের ম্যাক এ নিয়ে আসার জন্য $৫৯৯ মূল্য দিয়ে ম্যাক মিনি তৈরি করা হয়েছিল। এটিতে কোন কীবোর্ড, মাউস বা মনিটর ছিল না, কিন্তু পিসি ব্যবহার করা যেত। অবশেষে অ্যাপল ইনটেল প্রসেসর ব্যবহার শুরু করে কারণ মটোরোলা চাহিদা পূরণ করতে পারেনি। অ্যাপল এর ম্যাকিনটোশ সিস্টেমের তুলনায় পাওয়ারপিসি প্রসেসরকে অগ্রাধিকার দিয়ে তারা ভিডিও গেম কনসোল তৈরি করে, এরা ইনটেল-এর গিগা-হার্জ লেভেলের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারেনি। পাওয়ারপিসি ম্যাকগুলিকে অনুকরণ করার জন্য ইনটেল ম্যাকগুলি রোসেটা সফটওয়্যার দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল, এবং তারপরে ম্যাক ওএসএক্স বাইনারি প্রকরণের উদ্ভাবন করেছিল যা পাওয়ারপিসি বা ইনটেল ম্যাকগুলিতে প্রোগ্রাম চালাত। আইপডের উপর ভিত্তি করে অ্যাপল আইফোন তৈরি করে, যেটি একটি টাচ স্ক্রিন সেল ফোন। তারপর তারা আইপড টাচ তৈরি করে যাতে আইফোনের মতো একটি টাচ স্ক্রিন ছিল কিন্তু এতে ফোন কল করা যেত না। ইন্টেল ম্যাক হার্ড ড্রাইভকে বুটে বিভাজন করার জন্য এবং তাতে মাইক্রোসফট উইন্ডোজ স্থাপন করার জন্য অ্যাপল একটি বুটক্যাম্প তৈরি করে, কারণ ম্যাকগুলিতে ছিল ইনটেল চিপ এবং সেগুলি এখন মূলত একটি পিসি ক্লোন। এইভাবে অ্যাপল ম্যাক ব্যবহারকারীদের ম্যাক ওএসএক্স দিয়ে বা উইন্ডোজ দিয়ে বুট করা এই দুটি বিকল্পই দিয়েছে।

কমোডর[সম্পাদনা]

কমোডর পেট[সম্পাদনা]

কমোডর ভিআইসি ২০[সম্পাদনা]

ভিআইসি ২০ একটি নিম্ন-স্তরের কম্পিউটার ছিল। এটিতে ৬৫০২ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছিল।


কমোডর ৬৪[সম্পাদনা]

কমোডর ৬৪

১৯৮১ সালে কমোডোর ৬৪-এর আত্মপ্রকাশের পর প্রায় এক বিপ্লব উপস্থিত হয়েছিল, ভিক ২০-এর ৮টি রঙের বদলে এখানে চমকপ্রদ ১৬টি রঙ পাওয়া গিয়েছিল এবং স্ক্রীন রেজোলিউশন বৃদ্ধি পেয়ে ৪০টি কলাম এবং ২৫টি লাইন হয়েছিল। সবার ওপরে পাওয়া গিয়েছিল ৩টি ধ্বনি সংশ্লেষক (সিন্থেসাইজার)।

সেই সময়ে কমোডোর ৬৪ ছিল বাজারে সবচেয়ে জনপ্রিয় হোম কম্পিউটারগুলির মধ্যে একটি, এখানে হাজার হাজার গেম এবং ব্যবসায়িক প্রয়োগ (অ্যাপ্লিকেশন) পাওয়ার সুবিধা ছিল। (আমার কাছে এখনও সি৬৪ এর জন্য মাইক্রোসফট মাল্টিপ্ল্যানের একটি অনুলিপি রয়েছে)

এর অন্তর্নির্মিত বেসিক ভাষা ও পত্রিকার সমাহার (জেডজেডএপি৬৪, কমোডর, কম্পিউট'স গেজেট) এবং পাঠকদের প্রবেশের জন্য প্রোগ্রাম, অনেক মানুষকে বেসিক এবং এমনকি মেশিন কোড শিখতে সক্ষম করেছিল।

১৯৮৬ সালে, সি৬৪সি চালু করা হয়েছিল, এর পরিবর্তনগুলি (একটি হালকা রঙের আবরণী এবং একটু ভিন্ন আকৃতি) প্রধানত সৌন্দর্যবর্ধক ছিল কিন্তু এটি তখনও আগের সমস্ত সংযুক্তি এবং সফটওয়্যারের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ছিল।

সি৬৪-র এর আরেকটি সংস্করণ ছিল এসএক্স-৬৪। এটি কমোডোর৬৪-এর একটি বহনীয় ("পোর্টেবল") সংস্করণ ছিল। আমি পোর্টেবল শব্দটি খুব শিথিলভাবে ব্যবহার করেছি, আদতে এই জিনিসটি ভারী ছিল। এটিতে একটি ৫-ইঞ্চি রঙিন ক্যাথোড রে টিউব (সিআরটি) মনিটর এবং একটি অন্তর্নির্মিত ডিস্ক ড্রাইভ ছিল। কীবোর্ডটি এই ইউনিটের ঢাকনা হিসাবেও ব্যবহার হত।

সেই সময় কমোডোর ৬৪ আবশ্যক জিনিসগুলির মধ্যে একটি ছিল।

এই কম্পিউটারে পাওয়া যাচ্ছিল:

  • বিস্ময়কর ৬৪কে র‍্যাম
  • অন্তর্নির্মিত বেসিক ভাষা
  • অন্তর্নির্মিত টিভি অ্যাডাপ্টার
  • একটি কার্ট্রিজ সম্প্রসারণ পোর্ট
  • ৩-চ্যানেল অডিও (এসআইডি চিপের মাধ্যমে)
  • ২ x ডি ৯-পিন ইনপুট পোর্ট
  • সিরিয়াল পোর্ট
  • ঐচ্ছিক এক্সটার্নাল ফ্লপি ড্রাইভ (১৫৪১)
  • ঐচ্ছিক টেপ ড্রাইভ (সাধারণত কম্পিউটারের সাথে সরবরাহ করা হয়)

কমোডোর ১২৮[সম্পাদনা]

কমোডোর প্লাস/৪[সম্পাদনা]

অ্যামিগা[সম্পাদনা]

একটি অ্যামিগা ৫০০ সিস্টেম।

সেই সময়েরর অন্যান্য কম্পিউটারের তুলনায়, অ্যামিগা মাইক্রোকম্পিউটারটি গ্রাফিকাল প্রসেসিং, প্রদর্শন (ডিসপ্লে) এবং দক্ষতাসহকারে ব্যবহারের ক্ষেত্রে অনেক বেশি উন্নত ছিল। অ্যামিগা সিরিজটি অডিও, ভিডিও এবং ইনপুট/আউটপুট এর জন্য কাস্টমাইজড সহ-প্রসেসরের সাথে ৬৮০০০ সিরিজের মটোরোলা প্রসেসর ব্যবহার করেছিল। সিরিজটি অনেকদিন চলেছিল, তারপর অ্যামিগা ওয়ান-এর জন্য আইবিএম/অ্যাপল/মটোরোলা পাওয়ারপিসি সিরিজ চলে এল।

আসল অ্যামিগা কম্পিউটার অ্যামিগা ১০০০-এর আত্মপ্রকাশের সময়, এতে অ্যামিগা ১০২০ ৫.২৫ ইঞ্চি ফ্লপি ড্রাইভ ছিল। এটি যে পিসি-ট্রান্সফরমার সফটওয়্যারের সাথে এসেছিল সেটি একটি ৮০৮৮ আইবিএম একরঙা পিসির অনুসারী ছিল এবং তার এমএস-ডস ১.০ মেহা হার্জ ৮০৮৮ প্রসেসরের গতিতে চলত। এটিই একমাত্র মেশিন ছিল যেখানে হ্যাম-১২ বা হোল্ড অ্যান্ড মডিফাই-১২ বিন্যাস (ফরম্যাট) ব্যবহার করে ১২ বিট রঙ প্রদর্শন করানো যেত। এই বৈশিষ্ট্যের জন্য বহু বছর ধরে অ্যামিগা একমাত্র মেশিন ছিল, যেখানে একবারে স্ক্রীনে ৪০৯৬টির মতো রঙ থাকত।

এই মেশিনটির জায়গা নিল অ্যামিগা ৫০০, এটি অ্যামিগা ১০০০-এর একটি সামান্য উন্নত এবং সরলীকৃত সংস্করণ, কিছু কিছু একই ক্ষমতাযুক্ত, সেইসাথে কিছু ভিন্ন সম্প্রসারণ পোর্ট সহ। অ্যামিগা ৫০০ এর পর, অ্যামিগা ২০০০, ৩০০০, ৬০০, ৪০০০ এবং ১২০০ মেশিন এসেছিল, প্রতিটিতে আগের তুলনায় ছোটখাটো উন্নতি করা হয়েছিল। বর্তমানে, অ্যামিগা কর্পোরেশন একটি পৃথক কোম্পানির কাছে অ্যামিগা ওয়ান নামে একটি নতুন মডেলের উন্নয়ন হস্তান্তর করেছে। এই নতুন মেশিনটি ৮০০ মেগা হার্জ পর্যন্ত গতি দিতে পারবে, যেখানে অ্যামিগা ৪০০০ এর সর্বোচ্চ গতি ছিল ৬০ মেগা হার্জ। এর মধ্যে অ্যামিগা ৪০০০ এর জীবন চক্রের শেষের দিকে প্রকাশিত পিপিসি উন্নতকরণগুলি পড়ছে না, প্রোগ্রামিং কোম্পানিগুলির সমর্থনের অভাবের কারণে সেগুলি ভাল চলেনি।

অ্যামিগা ২০০০ এবং তার উপরের মেশিনগুলিতে উন্নত পিসি ব্রিজকার্ডস চলত, সেগুলির বেশিরভাগের মধ্যেই এমএস-ডস এবং উইন্ডোজ ৩.এক্স চালানোর জন্য ৮০৮৮, ৮০২৮৬, ৮০৩৮৬ প্রসেসর সহ পিসি ক্লোন ছিল। অ্যামিগাতে এমএস-ডস না চালানোর সময় সহ-প্রসেসর হিসাবে ব্রিজকার্ড সিপিইউ ব্যবহার করা যেত। এম্যাক্স প্রোগ্রাম ম্যাকিনটোশ প্লাস ব্যবহার করে বা বায়োস চিপের অধীনে ম্যাকিনটোশকে অনুকরণ করেছে এবং ম্যাকিনটোশ প্লাসের চেয়ে ভাল গ্রাফিক্স মোড পেতে অ্যামিগা রেজোলিউশন ব্যবহার করেছে। কমোডোর ৬৪, অ্যাপল //, আটারি ৮ বিট এবং অন্যান্য এমুলেটরও অ্যামিগার জন্য বিদ্যমান ছিল, এবং অ্যামিগা ছিল প্রথম কম্পিউটারগুলির মধ্যে একটি যা প্রায় যেকোনো সিস্টেমের জন্য এমুলেটর দিতে পারত। এখন অ্যামিগা ফরএভার এমুলেটর অ্যামিগা সফটওয়্যারে চলে। ওপেন সোর্সড ইউএই (ইউনিভার্সাল অ্যামিগা এমুলেটর) এবং সহযোগী প্রকল্পগুলিও অ্যামিগা সফটওয়্যার চালায়, তফাৎটা হল এই যে, লাইসেন্সের অংশ হিসেবে অ্যামিগা ফরএভারে কিকস্টার্ট ডিস্ক এবং রমের পাশাপাশি ওয়ার্কবেঞ্চ বুট ডিস্ক আছে এবং অন্যগুলিতে ব্যবহারকারীকে একটি অ্যামিগা থেকে অনুলিপি করতে হত বা অ্যামিগা, আইএনসি. থেকে কিনে নিতে হত।

ইউরোপের কিছু অংশে অ্যামিগা সিরিজ এখনো জনপ্রিয়। পুরানো মটোরোলা ৬৮কে সিরিজের অ্যামিগা কম্পিউটারে সর্বশেষ অ্যামিগাওএস ৪.০ এবং তার উপরে অপারেটিং সিস্টেম চালানোর জন্য পাওয়ারপিসি আপগ্রেড বোর্ড নেওয়া যেতে পারে। ইতিহাস এবং পেটেন্ট আগ্রহীদের জন্য ১৯৯০ এর দশকের গোড়ার দিকে প্রশ্ন ও উত্তরের মাধ্যমে অ্যামিগার ইতিহাসের একটি লিঙ্ক এটি এবং স্ক্রিবড-এ একটি পিডিএফ নথিতে আসল অ্যামিগার পেটেন্ট

আটারি[সম্পাদনা]

আটারি ৮-বিট[সম্পাদনা]

আটারি ৪০০ কম্পিউটার।

আটারি আইএনসি. ১৯৭৯ সালে তাদের প্রথম ৮-বিট কম্পিউটার, ৪০০ এবং ৮০০ পিসিএস প্রকাশ করে। জে মাইনার এই কম্পিউটারের বিকাশের সঙ্গে অবিচ্ছেদ্যভাবে যুক্ত ছিলেন। এর পরে তিনি ৮০ এর দশকের গোড়ার দিকে আটারি ছেড়ে অ্যামিগাতে যোগ দেন এবং ৬৮০০০ ভিত্তিক লরিয়েন তৈরি করেন। এতে ছিল কাস্টম গ্রাফিক্স (সিটিআইএ/জিটিআইএ এবং অ্যান্টিক) ও সাউন্ড (পোকে) চিপ এবং একটি কাস্টম সম্প্রসারণ পোর্ট (এসআইও ইন্টেলিজেন্ট "প্লাগ অ্যান্ড প্লে" পোর্ট) সমন্বিত, সিস্টেমগুলি চলেছে ৬৫০২ সিপিইউ-কে কেন্দ্র করে। ৪০০ এর উদ্দেশ্য ছিল কমদামী গেমিং কম্পিউটারের বাজার এবং একটি মেমব্রেন, কীবোর্ড ও ১৬কে র‍্যাম দিয়ে গেম খেলা। অন্যদিকে, ৮০০ এর উদ্দেশ্য ছিল একটি সম্পূর্ণ টাইপরাইটার কীবোর্ড এবং ৪৮কে র‍্যাম সহ আরও গুরুত্বপূর্ণ কম্পিউটার। ১৯৮২ সালে, আটারি প্রকাশ করেছিল ১২০০এক্সএল যেখানে আবরণীর পরিবর্তন করা হয়েছিল, র‍্যাম বাড়িয়ে করা হয়েছিল ৬৪কে এবং ফাংশন কী যোগ করা হয়েছিল। সফটওয়্যার সামঞ্জস্যতার সমস্যার জন্য এটি কেবলমাত্র এক বছরের জন্য বাজারে ছিল, তারপরে এর জায়গায় এসে গেল ৬০০এক্সএল এবং ৮০০এক্সএল। ৬০০এক্সএল (১৬কে) এবং ৮০০এক্সএল (৬৪কে) এই দুটিই ১২০০এক্সএল এর মতই দেখতে ছিল, তবে তাদের এসআইও স্ট্যান্ডার্ড, প্যারালাল বাস ইন্টারফেস (পিবিআই) ছাড়াও একটি সম্প্রসারণ পোর্ট ছিল।

১৯৮৩-১৯৮৪ সালে, আটারির ভোক্তা বিভাগের ভিডিও গেম শাখাটি ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়। এটি পুরো কোম্পানিকে প্রভাবিত করে এবং আটারির মালিক ওয়ার্নার কমিউনিকেশন্স চেষ্টা করে কোম্পানিটিকে বিক্রি করে দিতে। কমোডোরের প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক ট্রামিয়েল, '৮৪ এর প্রথম দিকে কমোডর ছেড়ে যান এবং তারপর ১৯৮৪ সালের জুলাইয়ে আটারি কর্পোরেশন গঠনের জন্য আটারি কনজিউমারকে কিনে নেন। জ্যাক ১৯৮৫ সালে মডেল লাইনটিকে এক্সই সিরিজে উন্নত করে আটারি কর্পোরেশনের অধীনে বেশ কয়েকটি ৮-বিট কম্পিউটার প্রকাশ করেন। ৬৫এক্সই (৬৪কে) এবং ১৩০এক্সই (১২৮কে) নতুন আবরণী নিয়ে উপস্থাপিত হয়, এবং এনহ্যান্সড কার্টিজ ইন্টারফেস (ইসিআই) নামে একটি আধা-সামঞ্জস্যপূর্ণ বাসের পিবিআই-কে প্রতিস্থাপিত করে।

১৯৮৭ সালে, জ্যাক ৬৫এক্সই মডেলটিকে নিয়ে তার আচ্ছাদনটিকে নতুন শৈলী দিলেন, কীবোর্ডটিকে মূল কম্পিউটার থেকে বিচ্ছিন্ন করলেন এবং এটিকে এক্সই গেম সিস্টেম (এক্সইজিএস) হিসাবে প্রকাশ করলেন। যখন কীবোর্ডটি সংযুক্ত থাকছেনা, তখন এটির রমে মিসাইল কমান্ড দিয়ে এটিকে একটি গেম কনসোল হিসাবে কাজ করানো গেছে। যখন কীবোর্ডটি সংযুক্ত থাকে তখন এটি একটি সম্পূর্ণ ৬৫এক্সই কম্পিউটার হিসাবে কাজ করে, এর এসআইও পোর্টগুলি দিয়ে সমস্ত পেরিফেরাল যন্ত্রকে সমর্থন করে।

আটারি এস.টি[সম্পাদনা]

আটারি এস.টি

১৯৮৪ সালের জানুয়ারিতে কমোডোর ছেড়ে আসার পর, ১৯৮৪ সালের বসন্তকালের মধ্যেই জ্যাক কম্পিউটার ব্যবসায় ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এবং ট্রামেল টেকনোলজি লি. (টিটিএল) গঠন করেছিলেন। শীর্ষ প্রকৌশলী এবং ব্যবস্থাপক কর্মচারীরা কমোডর ছেড়ে জ্যাকের কাজে যোগ দিতে শুরু করেন, এবং ১৯৮৪ সালের মে মাসের প্রথম দিকে প্রাক্তন কমোডোর ৬৪ প্রকৌশলী শিরাজ শিবাজি জ্যাকের পরবর্তী প্রজন্মের কম্পিউটার তৈরির জন্য একটি দলের নেতৃত্ব দেন - যার নাম ছিল নামে রক বটম প্রাইস (আরবিপি)। প্রাথমিকভাবে ন্যাশনাল সেমিকন্ডাক্টর এনএস৩২০৩২ কে ভিত্তি করে নির্মিত হলেও নকশাটি অনতিবিলম্বেই একটি ৬৮০০০ ভিত্তিক সিস্টেমে পরিবর্তিত হয়। তারের মোড়কে আরবিপি আগস্টের শেষের দিকেই সম্পন্ন হয়ে গিয়েছিল এবং সেপ্টেম্বরে এটি ডিজিটাল রিসার্চ ইনকর্পোরেটেড (ডিআরআই) এর সাথে কাজ শুরু করে, এটির জিইএম গুই এবং নতুন উন্নত জেমডস দিয়ে টিওএস (অপারেটিং সিস্টেম) এর একটি অংশ হিসাবে চালানোর জন্য। সিক্সটিন-এর সংক্ষেপণও এসটি বলা যেতে পারে কারণ যে ৬৮০০০ এটিকে চালিত করছিল তার একটি ১৬ বিট আই/ও বাস ছিল। প্রথম এসটি সিরিজের মডেল, ৫২০এসটি, ১৯৮৫ সালে আত্মপ্রকাশ করে, এর পরের বছর আসে ১০৪০এসটি। পরে আটারি টিটি ৬৮০২০ এবং ৬৮০৩০ প্রসেসর ব্যবহার করে যেগুলো ছিল ৩২ বিট এর। আটারি ফ্যালকন বিকশিত হয়ে এসেছিল ১৯৯২ সালে, এটিতে একটি ৩২ বিট মাল্টিমিডিয়া সিস্টেম ছিল। এছাড়া এতে ছিল একটি ডিএসপি অডিও চিপ, উন্নত গ্রাফিক্স মোড এবং এর অপারেটিং সিস্টেম ছিল মাল্টি-টাস্কিং। অ্যামিগার মত, আটারি এসটি এবং তার উপরের মডেলগুলি তৃতীয় পক্ষের সফটওয়্যার সমর্থনের অভাব এবং সঠিক বিপণনের অভাবের সম্মুখীন হয়েছিল। যখন আইবিএম পিসি ক্লোনগুলি ৮০৩৮৬ ও তার উপরের প্রসেসর ব্যবহার করেছে এবং মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ৩.এক্স চালিয়েছে এবং ভিজিএ বা এসভিজিএ এবং সাউন্ড ব্লাস্টার বা অনুরূপ সাউন্ড কার্ড ব্যবহার করেছে, তারা অ্যামিগা বা আটারি সিরিজের কম্পিউটারের তুলনায় কম দামে দিতে পেরেছে এবং এর ফলে ওই কোম্পানিদুটি প্রায় দেউলিয়া হয়ে গিয়েছিল। আটারি বহুবার বিক্রি হয়েছে, এবং এখন এটি আধুনিক গেম কনসোল এবং উইন্ডোজ এবং ম্যাকিনটোশ কম্পিউটারের জন্য একটি ভিডিও গেম কোম্পানি। আটারি এস.টি সফটওয়্যারের একটি সংস্করণ আটারি এস.টি সিরিজের হার্ডওয়্যারের জন্য মিন্ট প্রকল্পের মাধ্যমে উপলব্ধ, উবুন্টুর (লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশন) অধীনে আটারি এস.টি সফটওয়্যার চালানোর জন্য মিন্ট-এর একটি উবুন্টু পোর্ট করা হচ্ছে। যখন উইন্ডোজ ৯৫ এবং তার উপরের সংস্করণ মানক হয়ে ওঠে তখন অনেক আটারি এসটি ব্যবহারকারী পিসি ক্লোনস এবং উইন্ডোজ এ চলে আসে, এবং অন্যরা ম্যাকিনটোশ-এ চলে যায়। আটারি এসটি-তে ম্যাজিক স্যাক নামে একটি ম্যাকিনটোশ এমুলেটর ছিল যেটি একটি ম্যাকিনটোশ প্লাস বা তার নিচের সিস্টেমের অনুকরণ করতে একটি পুরানো ম্যাকিনটোশ প্লাস ব্যবহার করেছে এবং বায়োস চিপের অধীনে কাজ করেছে।

আইবিএম[সম্পাদনা]

আইবিএম পিসি

আইবিএম পিসি ছিল ইনটেল ৮০৮৮ মাইক্রোপ্রসেসরকে ভিত্তি করে নির্মিত একটি ব্যক্তিগত কম্পিউটার (এটি ইনটেল ৮০৮৬ কে ভিত্তি করে মডেল করা হয়েছিল)। এটি মানক হয়ে উঠেছে, এবং আজ, বেশিরভাগ ব্যক্তিগত কম্পিউটার আইবিএম সংগতিপূর্ণ। আইবিএম শুরু হয়েছিল আইবিএম ডিসপ্লেরাইট ওয়ার্ড প্রসেসর দিয়ে, এবং পরে ইনটেল ৮০৮৮ প্রসেসরের উপর ভিত্তি করে আইবিএম ৫১৫০, অথবা বলা যায়, শুধু আইবিএম পিসি তৈরি হয়েছিল। আইবিএম-এর কাছে মাইক্রোসফটের লেখা আইবিএম পার্সোনাল কম্পিউটার ডস ১.০ ছিল এবং এর সাথে ডিআরআই-এর সিপি/এম-৮৬ এবং মাইক্রোসফট জেনিক্স সহায়ক অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে সংরক্ষিত ছিল। কিন্তু ডস ছিল সবচেয়ে জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম। আইবিএম তৈরি করেছিল আইবিএম পিসি/এক্সটি যা আইবিএম পিসির মতই ছিল কিন্তু তার সম্প্রসারণ স্লট বেশি ছিল এবং তারপরে আইবিএম পিসি/এটি ইনটেল ৮০২৮৬ ১৬ বিট প্রসেসর (ইনটেল ৮০১৮৬ কে বাদ দিয়ে) এবং ১৬ বিট আইএসএ বাসের উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছিল। মূলত আইবিএম-এর দুটি ডিসপ্লে ছিল- এমজিএ (সাদা-কালো) ৮০X২৫ টেক্সট গ্রাফিক্স, এবং সিজিএ (কালার গ্রাফিক অ্যাডাপ্টার) ৮০X২৫ টেক্সট মোড এবং ১৬টি রঙের, ১৬টি রঙের মধ্যে ৪টিতে ৩২০x২০০ এবং ২টি রঙে ৬৪০x২০০ রেজোলিউশন। আটারি এবং কমোডোরের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য আইবিএম ঘরে ব্যবহারের উদ্দেশ্যে আইবিএম পিসিজুনিয়ার তৈরি করেছিল। এতে সফটওয়্যার লোড করা সহজ করার জন্য একটি তারবিহীন অবলোহিত (ইনফ্রারেড) কীবোর্ড এবং কার্টিজ স্লট থাকা সত্ত্বেও এটি ভাল চলেনি। প্রতিটি সম্প্রসারণের জন্য একটি করে সাইডবাস ব্যবহার হয়েছিল এবং এটিতে যত বেশি সাইডবাস অ্যাডাপ্টার যুক্ত হয়েছে এটি তত বড় হয়েছে। পিসিজুনিয়ার-এর গ্রাফিক্স আরও ভাল ছিল এবং সঙ্গে একটি সাউন্ড চিপ ছিল, অন্যদিকে আসল পিসি সিরিজে শুধুমাত্র সীমিত শব্দ সহ একটি পিসি স্পিকার ছিল, তাই পিসিজুনিয়ারে ভিডিও গেমগুলি আরও ভাল চলত, কিন্তু আইবিএম তাদের পিসিজুনিয়ার গ্রাফিক্সকে সাউন্ড ট্যান্ডি ১০০০ সিরিজের জন্য ট্যান্ডির কাছে বিক্রি করে দেয়। আইবিএম উদ্ভাবন করে ইজিএ গ্রাফিক্স, যা ৩২০x২০০ মোডে ১৬টি রঙ এবং ৬৪০x২০০ মোডে ৪টি রঙ ব্যবহার করেছে। অবশেষে আইবিএম চলে যায় পিএস/২ সিরিজ এবং ওএস/২-এ, ব্যক্তিগত সিরিজ ২ কম্পিউটারে (পিএস/১ আইবিএম পিসির মত জায়গা দিয়ে তৈরি করা হয়েছিল কিন্তু তার গ্রাফিক্স কার্ড বা ভিজিএ ছিল ভাল) এবং পিএস/২ সিরিজের ভিজিএ গ্রাফিক্স ১৬ মিলিয়নের মধ্যে ২৫৬ রঙের এবং ৬৪০x৪৮০ গ্রাফিক্স পর্যন্ত। পিএস/২ সিরিজের বেশিরভাগেরই এমসিএ স্লট বা মাইক্রোচ্যানেল স্লট ছিল যা আসল আইবিএম পিসি (এবং পিএস/১) এর মত আইএসএ সংগতিপূর্ণ ছিল না। আইবিএম এটিকে তাদের "ক্লোন ঘাতক" হিসাবে বিবেচনা করেছিল কারণ পিসি ক্লোন নির্মাতারা ইআইএসএ কে চালানোর চেষ্টা করেছিল যেটি ৩২ বিট সম্প্রসারণ বাস কিন্তু ১৬ বিট আইএসএর সাথে পশ্চাদপদ সংগতিপূর্ণ। শেষ পর্যন্ত হয় একটি ধরা পড়ে এবং ইনটেলের পিসিআই বাস আইএসএ কে প্রতিস্থাপন করে এবং ইনটেলের ভিইএসএ লোকাল বাসটি ৩২ বিটের আরেকটি স্লট দিয়ে সেই বর্ধিত আইএসএ কে ধরে ফেলে, কিন্তু শেষ পর্যন্ত পিসিআই এবং পরে পিসিআই এক্সপ্রেস সবাইকে ছাড়িয়ে ওঠে। অল্প সময়ের জন্য ভিডিও কার্ডের একটি এজিপি ভিডিও স্ট্যান্ডার্ড ছিল, কিন্তু পিসিআই এক্সপ্রেস পরে এটিকে পরাজিত করে। আইবিএম আইএসএ স্লট ব্যবহার করে ভ্যালুপয়েন্ট সিরিজ এবং একটি ল্যাপটপ হিসাবে থিঙ্কপ্যাড তৈরি করেছিল, কিন্তু শেষ পর্যন্ত খরচ বাঁচাতে তাদের পিসি সিস্টেম তৈরি করার জন্য লেনোভোর কাছে কাজ বিভাজন করে দিয়েছিল।