উইকিশৈশব:সৌরজগৎ/শনি/ফোবে

উইকিবই থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
ফোবের ক্যাসিনি চিত্র

ফোবে হল শনির একটি উপগ্রহ।

এটি কত বড়?[সম্পাদনা]

ফোবে প্রায় ২২০ কিলোমিটার চওড়া। যাইহোক, যেহেতু ফোবে আকারে খুব একটা গোলাকার নয়, তাই এটির কিছু স্থান চওড়া এবং কিছু স্থান সংকীর্ণ।

এর পৃষ্ঠতল কেমন?[সম্পাদনা]

ফোবের একটি বড় গর্ত

ফোবের পৃষ্ঠতল অন্ধকার এবং গভীর গর্তযুক্ত। গর্তগুলি ৮০ কিলোমিটার পর্যন্তও হয়ে থাকে, যার মধ্যে একটির গভীরতা ১৬ কিলোমিটার।

এর দিন কত বড়?[সম্পাদনা]

ফোবের একদিন পৃথিবীর ৯ ঘন্টা ১৬ মিনিট ৫৫.২ সেকেন্ডের সমান। শনির অন্যান্য উপগ্রহের মতো ফোবের পরিবর্তনশীল কক্ষপথ নেই। এর অর্থ হল ফোবে একবার ঘুরতে যে সময় নেয়, তা ফোবের শনির চারপাশে একবার প্রদক্ষিণ করার সময় থেকে আলাদা।

শনির চারপাশে এর কক্ষপথের স্থায়িত্ব কত?[সম্পাদনা]

শনির চারপাশে একটি কক্ষপথের স্থায়িত্ব ৫৫০.৬ দিন বা সাড়ে ১ বছরের সমান! ফোবের কক্ষপথ পশ্চাদগামী। অর্থাৎ এটি রিয়া বা টাইটানের মতো চাঁদের বিপরীত দিকে চলে।

এটি কি দিয়ে তৈরি?[সম্পাদনা]

ফোবের নিকট থেকে ধারণকৃত চিত্র

ফোবের গাঢ় রঙের কারণে বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করত যে, এটি একটি বন্দী গ্রহাণু। তবে ক্যাসিনির ধারণকৃত সাম্প্রতিক ছবিগুলি দেখায় যে ফোবের গর্তগুলি উজ্জ্বলতায় প্রচুর পরিবর্তন হয়েছে। অর্থাৎ এর অন্ধকার পৃষ্ঠের নিচে প্রচুর পরিমাণে বরফ রয়েছে। এবং এর পৃষ্ঠে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ শনাক্ত করা হয়েছে, যা কোনও গ্রহাণুতে কখনও পাওয়া যায়না। এটা বিশ্বাস করা হয় যে ফোবে প্রায় ৫০% শিলা দ্বারা গঠিত, যা শনির অন্যান্য উপগ্রহের মতো নয়, যেগুলো প্রায় ৩৫% শিলা দ্বারা গঠিত। সেসব কারণে বিজ্ঞানীরা এখন মনে করেন যে, ফোবে একটি বন্দী সেন্টোর এবং কুইপার বেল্টের একটি বরফযুক্ত গ্রহ যা বৃহস্পতি এবং নেপচুনের মধ্যে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে।

এর মাধ্যাকর্ষণ শক্তি কেমন?[সম্পাদনা]

আপনি যদি ফোবের উপর দাঁড়ান, তাহলে আপনি পৃথিবীর ওজনের মাত্র ১/২৫ ভাগ ওজন হবে! উদাহরণস্বরূপ, পৃথিবীতে একজন ১০০ পাউন্ড ব্যক্তির ওজন হবে ফোবের উপর মাত্র ৪ পাউন্ড।

এর নামকরণ কিভাবে করা হয়?[সম্পাদনা]

গ্রিক পুরাণের চরিত্র টাইটানের নামানুসারে ফোবের নামকরণ করা হয়েছে। তিনি ছিলেন অ্যাপোলো এবং আর্টেমিসের দাদী এবং লেটো এবং অস্টেরিয়ার মা।

এটি কে আবিষ্কার করেন?[সম্পাদনা]

১৮৯৯ সালের ১৭ই মার্চ উইলিয়াম হেনরি পিকারিং ফোবে আবিষ্কার করেছিলেন একটি ফটোগ্রাফিক প্লেট থেকে, যার কাজ ১৮৯৮ সালের ১৬ আগস্ট তারিখে পেরুর আরিকুইপার ডে লিসলে স্টুয়ার্ট কর্তৃক শুরু হয়েছিল। এটি ছিল প্রথম উপগ্রহ, যা চিত্রের মাধ্যমে আবিষ্কৃত হয়েছিল।