বিষয়বস্তুতে চলুন

উইকিশৈশব:পরিবার পরিজন/পরিবার ও সমাজ

উইকিবই থেকে

সমাজ কী?[সম্পাদনা]

মানুষ সমাজবদ্ধ জীব। একদল মানুষ যখন কোনাে উদ্দেশ্য সাধনের জন্য সংঘবদ্ধ হয়ে বসবাস করে তখন তাকে সমাজ বলে। অন্যভাবে বলা যায়, পরস্পর নির্ভরশীল হয়ে গড়ে ওঠা জনসমষ্টিকে সমাজ বলে।

সমাজ সম্পর্কে বিশিষ্ট জনেদের মত কী?[সম্পাদনা]

সমাজবিজ্ঞানী গিডিংস বলেছেন, সমাজ হল অনেক সমমনা ব্যক্তির সমষ্টি যারা তাদের মত-মানসিকতা জানে এবং উপভোগ করে এবং তাই সাধারণ উদ্দেশ্যের জন্য একসাথে কাজ করতে সক্ষম। (Society is a number of like - minded individuals who know and enjoy their like - mindedness and are therefore able to work together for common ends.)

অধ্যাপক আর. এম. ম্যাকাইভার তার সমাজ নামক গ্রন্থে সমাজের সংজ্ঞা দিতে গিয়ে বলেন, সমাজ হল সামাজিক সম্পর্কের ব্যবস্থা যার সাহায্যে আমরা বেঁচে থাকি। (Society is the system of social relationships in and through which we live.)

সমাজবিজ্ঞানী কিম্বল ইয়ং-এর মতে, সমাজ সামাজিক সম্পর্কে বসবাসকারী ব্যক্তিদের জন্য সাধারণ শব্দ। (Society is the general term for persons living in social relations.)

অধ্যাপক লিকক বলেন, সমাজের সঙ্গে ভূখণ্ডের সম্পর্ক নেই। সমাজ রাজনৈতিক সংগঠন না হলেও সমাজের মধ্যে রাজনৈতিক সংগঠন গড়ে উঠে এবং সমাজ তাকে লালন করে।

ম্যাকাইভার বলেন, সমাজ মানুষের বহুবিধ সম্পর্কের এক বিশেষ রূপ।

সমাজের ব্যাপ্তি কত[সম্পাদনা]

সমাজের কোন নির্দিষ্ট ব্যপ্তি নেই। সমাজ ছােটও হতে পারে আবার বড়ও হতে পারে। এমনকি সমাজ বিশ্বব্যাপীও হতে পারে।

সমাজের বৈশিষ্ট্য কী?[সম্পাদনা]

সমাজের সঙ্গে দেখা করলে এর যা বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায় তা হল, ঐক্য

স্থায়িত্ব

সাধারণ উদ্দেশ্য

ভৌগোলিক সীমারেখা

বৈচিত্র্য

নৈতিক মূল্যবোধ

সমাজ কেন গুরুত্বপূর্ণ[সম্পাদনা]

আমরা জানি, সমাজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি আমাদেরকে বিশ্বের উন্নতির জন্য একত্রে কাজ করার একটি ব্যবস্থা। সমাজের সকলের মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা আমাদের জীবনযাত্রা ও সামাজিক অবস্থার উন্নতি করতে সক্ষম হয়েছি। আমরা মিলিত সামাজিক প্রচেষ্টার কারণেই আজ এগিয়ে চলেছি। তাছাড়া, সমাজে সামাজিক বিশ্বাস এবং নিয়ম রয়েছে যা মানুষকে কীভাবে আচরণ করা উচিত ও অনুচিত তা নির্ধারণ করতে সাহায্য করে।

একটি সমাজের উপাদান কি কি হতে পারে?[সম্পাদনা]

সমাজের প্রথম ও প্রধান উপাদান হলো মানুষ, যা সমাজের মূল একক। সমাজের আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো পরিবার। আর অনেকগুলি পরিবার নিয়েই সমাজ তৈরি হয়।

পরিবার কী?[সম্পাদনা]

পরিবার হলো একটি প্রাচীনতম সংগঠন। পিতামাতা সম্পর্কের উপর ভিত্তি করে এই সংগঠন গঠন করে, এবং সন্তান সন্তানাদি উৎপাদন ও লালন পালনের মাধ্যমে তার অস্তিত্ব ধরে রাখে।

পরিবার কত ধরনের[সম্পাদনা]

পরিবার দুধরনের হতে পারে একক পরিবার ও যৌথ পরিবার।

যে সমস্ত পরিবারের পিতা, মাতা, তার সন্তানাদি এবং সর্বাধিক তার ঠাকুরদা ঠাকুরমা থাকেন সেটি একক পরিবার আমার যে সমস্ত পরিবারে একাধিক ছোট ছোট নিজেদের মধ্যে রক্তসম্পর্ক যুক্ত পরিবার সহাবস্থান করে, তাকে বলে যৌথ পরিবার।

পরিবারের সদস্য[সম্পাদনা]

আসুন আমরা একটি একক পরিবার এবং যৌথ পরিবারের সদস্যদের বিষয়ে জেনে নিই।

একক পরিবারের বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি বাবা বা ঠাকুরদা অর্থাৎ বাবার বাবা বা ঠাকুরমা অর্থাৎ বাবার মা হতে পারেন। পরিবারকে পরিচালনা করেন যিনি তিনি মা। এবার আমরা আরও অন্য কিছু সম্পর্ক জেনে নিই।

বাবা- বাবা, বাবামশাই আব্বা, আব্বু, বাপজান, আব্বাজান

মা- মা, আম্মা, আম্মু, আম্মাজান

বাবার বাবা- ঠাকুরদা, দাদা, দাদাজান

বাবার মা- ঠাকুরমা, দাদিমা

মায়ের বাবা- দাদামশাই, নানা

মায়ের মা- দিদিমা, নানি

বয়সে বড় সমপ্রজন্ম (পুং)- ভাইয়া, দাদা, দাদুদা

দাদার স্ত্রী- বৌদি, ভাবি

বয়সে বড় সমপ্রজন্ম (স্ত্রী) - আপু, আপি, দিদি, দিদিভাই, আপা

দিদির স্বামী- জামাইবাবু, দুলাভাই

বয়সে ছোট সমপ্রজন্ম (পুং)- ভাই

বয়সে ছোট সমপ্রজন্ম (স্ত্রী)- বোন

বাবার ছোট ভাই- কাকামশাই, চাচা

কাকামশাইয়ের স্ত্রী- কাকিমা, চাচি

বাবার বড় ভাই: বড় আব্বা, জ্যাঠামশাই

জ্যাঠামশাই এর স্ত্রী: বড়কাকি, চাচি, জেঠিমা

বাবার বোন বা দিদি: পিসিমা, ফুপু, ফুফু, বিতি

পিসিমার স্বামী: ফুপা, ফুফা, পিসেমশাই

মায়ের ভাই বা দাদা: মামামশাই

মামামশাইয়ের স্ত্রী: মামিমা, মাওইমা

মায়ের দিদি বা বোন: খালা, মাসিমা

মাসীমার স্বামী: খালু, মেসোমশাই

এরপর এমন কিছু সম্পর্ক দেখা যাক, যা আমাদের বড় কেউ অন্য কারোকে সম্বোধন করতে পারেন

স্বামী বা স্ত্রীয়ের বাবা: শ্বশুরমশাই

স্বামী বা স্ত্রীয়ের মা: শাশুড়িমা

স্ত্রীয়ের ছোট বোন: শালি বা শ্যালিকা

শ্যালিকার স্বামী- ভায়রাভাই

স্ত্রীয়ের ছোট ভাই- শালা বা শ্যালক

শ্যালকের স্ত্রী- শালাজ

স্ত্রীর বড় বোন- জেঠাস

জেঠাসের স্বামী- ঠাকুরভায়রা

স্ত্রীর বড় ভাই- সম্বন্ধী

সম্বন্ধীর স্ত্রী- সম্বন্ধীভাজ, বৌঠান

ভাইয়ের স্ত্রী- ভাইবউ, ভাজ (ভ্রাতৃজায়া)

বোনের স্বামী- ভগ্নীপতি

স্বামীর ছোট বোন- ননদ, ননদিনী

ননদিনীর স্বামী - নন্দাই

স্বামীর বড় বোন- ননাস

ননাসের স্বামী - ঠাকুরজামাই

স্বামীর বড় ভাই - ভাসুর, ভাসুরঠাকুর

স্বামীর ছোট ভাই- দেবর, ঠাকুরপো

ভাসুর ও দেবরের স্ত্রী - জা

বাবা বা শ্বশুরমশাইয়ের ভাই অথবা দাদার পরিবার - জ্ঞাতি, তরফবাটী, শরিকী

ভাই বা দাদার ছেলে- ভাইপো, ভাতিজা

ভাই বা দাদার মেয়ে - ভাইঝি, ভাতিজি

বোনের বা দিদির ছেলে - ভাগ্নে, ভাগিনা, ভাগিনেয়

বোনের বা দিদির মেয়ে - ভাগ্নী, ভাগিনেয়ী

ছেলে বা মেয়ের শ্বশুরমশাই - বিয়াই

ছেলে বা মেয়ের শাশুড়িমা - বিয়ান

বিয়াই ও বিয়ানের অন্যান্য ছেলে - পুতরা

বিয়াই ও বিয়ানের অন্যান্য মেয়ে - ঝিয়ারি

বাবা বা মায়ের বিয়াই - তালৈমশাই

বাবা বা মায়ের বিয়ান - মায়ৈমা