উইকিশৈশব:বিচিত্র ধর্মমত/খ্রিস্টধর্ম

উইকিবই থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

কতজন মানুষ খ্রিস্টধর্ম অনুসরণ করেন?[সম্পাদনা]

বেগুনি রঙে দেখানো দেশগুলিতে ৫০% বা তার বেশি খ্রিস্টান রয়েছে; গোলাপী রঙে দেখানো দেশগুলিতে ১০% থেকে ৫০% খ্রিস্টান রয়েছে।

প্রায় আড়াই শত কোটি মানুষ কোনো না কোনো ধারার খ্রিস্টধর্ম অনুসরণ করে। এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং চীনে বসবাসকারী মোট জনসংখ্যার সমান সংখ্যক মানুষ।

খ্রিস্টধর্ম কোথায় চর্চা করা হয়?[সম্পাদনা]

সারা বিশ্বে খ্রিস্টধর্ম পালন করা হয়। উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া এবং সাব-সাহারান আফ্রিকা সহ বিশ্বের বেশিরভাগ অংশে এটি সংখ্যাগরিষ্ঠ ধর্ম এবং আফ্রিকা ও এশিয়ার বড় অংশে একটি সংখ্যালঘু ধর্ম। ভারতে ২.৩ শতাংশ বা ২.৭৮ কোটি মানুষ এই ধর্মের অনুসারী। বাংলাদেশের প্রায় ছয় লক্ষ লোক খ্রিস্টধর্ম পালন করেন যা দেশের ০.৪ শতাংশ।

খ্রিস্টধর্মের মূল বিশ্বাসগুলি কী কী?[সম্পাদনা]

খ্রিস্টধর্ম একটি একেশ্বরবাদী ধর্ম: এটি শেখায় যে ঈশ্বর আছেন, তিনি একজনই। এটি শেখায় যে, প্রায় দুই হাজার বছর আগে ঈশ্বরের পুত্র‌ যীশু খ্রিস্ট কুমারী মা মরিয়মের কাছে মানবরূপে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। ক্রুশবিদ্ধ হয়ে‌ তিনি নিহত হলেও মৃত দেহ থেকে পুনরুত্থিত হন এবং স্বর্গে ফিরে আসেন। তার মৃত্যুকে মানবতার পাপের প্রায়শ্চিত্ত হিসাবে গণ্য করা হয়, যা মানুষকে রক্ষা করতে দেয়।

খ্রিস্টধর্ম বলে যে যারা রক্ষা পাবে তারা ঈশ্বরের সাথে স্বর্গের রাজ্যে প্রবেশ করবে। খ্রিস্টধর্মের বিভিন্ন রূপ কে রক্ষা পাবে সে সম্পর্কে বিভিন্ন জিনিস শেখায়। একটি খুব সাধারণ শিক্ষা হল যে যারা ভাল জীবন যাপন করে তারা মারা গেলে স্বর্গে প্রবেশ করবে। অন্য কিছু শিক্ষা হল যে প্রত্যেকে সংরক্ষিত হবে, যারা মৃত্যুর আগে তাদের পাপ স্বীকার করে তারা রক্ষা পাবে, বা যারা পরিত্রাণ পাবে তা আমাদের জন্মের আগেই নির্ধারণ করা হয়েছে।

একটি অলঙ্কৃত খ্রিস্টান ক্রস। কেন্দ্রের ছবিটি হল খ্রিস্ট, এবং ক্রুশের চারটি বিন্দুতে ছবিগুলি হল নিউ টেস্টামেন্টের গসপেলস-এর লেখকদের।

ক্রুশবিদ্ধকরণ হল মৃত্যুদন্ডের একটি রূপ যা প্রাচীন রোমান সাম্রাজ্যে অনুশীলন করা হযত। যে ব্যক্তিকে হত্যা করা হবে তাকে ক্রুশের সাথে বেঁধে বা আটকে (প্রায়ই পেরেক দিয়ে) ফেলা হতো এবং না মারা যাওয়া অবধি রেখে দেওয়া হয়। একটি ক্রস খ্রিস্টধর্মের একটি সাধারণ প্রতীক। ক্রুশ সাধারণ আকৃতিতে দেখানো হতে পারে, অথবা এটির সাথে সংযুক্ত যীশু খ্রীষ্টের একটি মূর্তি দিয়ে দেখানো হতে পারে। একটি খ্রিস্টান ক্রুশ যার সাথে যীশুর অনুরূপ মূর্তি আঁটা থাকে তাকে ক্রুশিফিক্স বলা হয়।

একটি ছোট ক্রুশিফিক্স

খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের অধিকাংশ যীশুকেই ঈশ্বর বলে মনে করে, তিনি ত্রিত্বের (ট্রিনিটি) দ্বিতীয় ব্যক্তি হিসেবে গণ্য। এই মতবাদ অনুযায়ী ঈশ্বর তিন ব্যক্তি: পিতা, পুত্র (যীশু খ্রীষ্ট), এবং পবিত্র আত্মা। তবুও এই তিনজনকে এক ঈশ্বর বলে মনে করা হয়।

খ্রিস্টধর্মের ঈশ্বরকে ইহুদি ধর্ম ও ইসলামের মতোই আব্রাহামের ঈশ্বর (আব্রাহাম'স গড) হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

খ্রিস্টানদের পবিত্র গ্রন্থ কি?[সম্পাদনা]

খ্রিস্টধর্মের পবিত্র বইগুলি বাইবেল নামে একটি বড় পাঠে একত্রিত হয়।

বাইবেলের দুটি অংশ রয়েছে: ওল্ড টেস্টামেন্ট এবং নিউ টেস্টামেন্ট। ওল্ড টেস্টামেন্টটি এসেছে ইহুদি ঐতিহ্য থেকে, এবং এটি ইহুদিদের প্রতি ঈশ্বরের ভালবাসার গল্প বলে। নিউ টেস্টামেন্ট মূলত খ্রিস্ট বিষয়ক এবং এটি যীশু খ্রিস্টের গল্প বলে। পলের মাধ্যমে খ্রিস্টধর্মের বিস্তার ঘটায় এটি। নিউ টেস্টামেন্টের চারটি বইকে গসপেলস বলা হয়, প্রতিটিই যিশু খ্রিস্টের গল্প বলে। চারটি গসপেলের লেখক ঐতিহ্যগতভাবে ম্যাথিউ, মার্ক, লুক এবং জন।

খ্রিস্ট ধর্মের কিছু পবিত্র দিন কী কী?[সম্পাদনা]

খ্রিস্টধর্মের প্রধান ছুটির একটি হল বড়দিন, যা খ্রিস্টের জন্ম উদযাপন করার দিন। এটি ২৫ ডিসেম্বর নাগাদ হয় এবং সাধারণত উপহার দান এবং পারিবারিক সমাবেশের সাথে উদযাপন করা হয়।

আরেকটি প্রধান খ্রিস্টান ছুটির দিন হল ইস্টার, মার্চ বা এপ্রিলের একটি রবিবার যা খ্রিস্টের পুনরুত্থানকে স্মরণ করে উদযাপন হয়। উদযাপনের অংশ হিসাবে "ইস্টার ডিম" প্রায়শই সজ্জিত করা হয়।

অনেক খ্রিস্টান প্রার্থনা করতে গির্জায় যায়। এটি প্রতি রবিবার করা হয়।

খ্রিস্টধর্মের ইতিহাস কি?[সম্পাদনা]

৩০ বছর বয়সে যখন যীশু খ্রিস্ট স্বর্গের বিষয়ে প্রচার শুরু করেন তখন এই ধর্মটির প্রতিষ্ঠা শুরু হয়েছিল। এর তিন বছর পরে, যীশু ক্রুশে মারা গিয়েছিলেন এবং খ্রিস্টান শিক্ষা অনুসারে, মৃতদেহ থেকে তিনি জীবিত হয়েছিলেন। এসময়েই এই ধর্মটির সত্যিকারের প্রচার শুরু হয়। সিরিয়ার অ্যান্টিওকে প্রথম খ্রিস্টানদের খ্রিস্টান বলে অভিহিত করা হয়।

কিছু বিখ্যাত খ্রিস্টান ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

অ্যান্টনি দ্য গ্রেট

অগাস্টিন অব হিপো

ফ্রান্সিস অব আসিসি

থমাস অ্যাকুইনাস

মার্টিন লুথার

মাদার টেরেসা

মার্টিন লুথার কিং জুনিয়র

ডেসমন্ড টুটু

খ্রিষ্টধর্মের গল্প[সম্পাদনা]

এই ধর্মের গল্পগুলির মধ্যে একটি হল যীশু খ্রিস্টের জন্মের গল্প।

মেরি নামে এক মহিলার জোসেফ নামে একজনের সাথে বাগদান হয়েছিল, কিন্তু তারা তখনও বিবাহিত হয়নি। একদিন, ফেরেশতা গ্যাব্রিয়েল পৃথিবীতে এসে মেরিকে জানান যে তিনি ঈশ্বরের পুত্রের ধারণে গর্ভবতী। জোসেফ যখন জানতে পারলেন যে তিনি গর্ভবতী ছিলেন, তখন তিনি তাকে বিয়ে না করার সিদ্ধান্ত নেন, কিন্তু তিনিও একজন দেবদূতের সাক্ষাৎ পান যিনি তার মন পরিবর্তন করেন। যীশুর জন্মের ঠিক আগে, তাদের একটি আদমশুমারির জন্য বেথলেহেমে ভ্রমণ করতে হয়। যেহেতু ঐ সময়ে অনেক লোক বেথলেহেমেও ভ্রমণ করছিলেন তাই সরাইখানা পূর্ণ ছিল, এবং জোসেফ এবং মেরির থাকার জায়গা ছিল না। তারা একটি আস্তাবলে ঠাঁই নেন এবং সেখানেই যীশুর জন্ম হয়েছিল।

ক্ষমার গল্প

যীশু এই গল্পটি জোর দিয়ে বলেছিলেন যে আমরা যদি অন্যদের ক্ষমা না করি তবে আমাদের পাপও ঈশ্বর ক্ষমা করবেন না: একজন লোক তার মালিকের দশ হাজার তালেন্ত (মুদ্রা) ঋণী ছিল। কিন্তু সে টাকা দিতে না পারায় তার প্রভু আদেশ দিলেন যে তাকে, তার স্ত্রী ও সন্তানদের এবং তার যা কিছু আছে তাকে বিক্রি করে দিতে হবে এবং সেই অর্থ পরিশোধ করতে হবে। সেই ভৃত্যটি তখন তার সামনে উপুড় হয়ে বলল, ‘গুরু, আপনি ধৈর্য্য ধরুন, আমি আপনাকে সব শোধ করে দেব৷’ তখন সেই চাকরের মনিব মমতায় আপ্লুত হয়ে তাকে ছেড়ে দিলেন এবং তার ঋণ মাফ করলেন৷ কিন্তু সেই দাস বাইরে গিয়ে তার সহকর্মীর একজনকে দেখতে পেল যে তার কাছে মাত্র একশত দেনারি পাওনা ছিল৷ এবং তিনি তার গায়ে হাত রেখে তাকে গলা ধরে বললেন, 'তোমার পাওনা আমাকে পরিশোধ কর!'। তাই তার সহকর্মী তার পায়ের কাছে পড়ে তাকে অনুরোধ করে বলল, 'আমার জন্য ধৈর্য্য ধর, আমি তোমার সব টাকা দেব।' এবং তিনি রাজি না হয়ে তাকে কারাগারে নিক্ষেপ করেছিলেন যতক্ষণ না তিনি ঋণ পরিশোধ করবেন। মনিব একথা শুনে তাকে ডেকে বললেন, ‘হে দুষ্ট চাকর! তুমি আমার কাছে ভিক্ষা করেছিলে বলে আমি তোমার সেই সমস্ত ঋণ মাফ করে দিয়েছি। তোমারও কি তোমার সহকর্মীর প্রতি সহানুভূতি হওয়া উচিত ছিল না, যেমন আমি তোমার প্রতি করুণা করেছিলাম?’ বলে তার মালিক রাগান্বিত হয়ে তাকে নির্যাতনকারীদের হাতে তুলে দিলেন যতক্ষণ না সে তার সমস্ত পাওনা পরিশোধ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]