কুরআনের বঙ্গানুবাদ/সূরাহ্ আলে-ইমরান

উইকিবই থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

মাদীনাঃ আয়াত ২০০ ঃ রুকূ ২০ পরম করুনাময়, পরম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি রুকূ-১ আয়াত-১:আলিফ-লাম-মীম।

আয়াত-২: নেই কোন উপাস্য আল্লাহ ছাড়া, তিনি চিরঞ্জীব, সবকিছুর ধারক।
আয়াত-৩: তিনি আপনার প্রতি সত্যসহ কিতাব নাযিল করেছেন যা তার পূর্ববর্তী কিতাবের সত্যায়ন করে। আর তিনি নাযিল করেছেন তাওরাত ও ইঞ্জিল। 

আয়াত-৪: ইতিপূর্বে, মানুষদের হেদায়াতের জন্য এবং সত্য-মিথ্যা পার্থক্যকারী কোরআনও নাযিল করেছেন। নিশ্চয় যারা আল্লাহর আয়াতসমূহকে অস্বীকার করে তাদের জন্য রয়েছে কঠোর শাস্তি। আল্লাহ পরামক্রমশালী, দন্ডদাতা।

আয়াত-৫: নিশ্চয়ই আল্লাহ্ এমন যে, আসমান ও জমিনের কোন কিছুই তার কাছে গোপন নেই।
আয়াত-৬: তিনিই আপনার প্রতি এ কিতাব নাযিল করেছেন। এতে আছে কতক দ্ব্যর্থহীন সুস্পষ্ট আয়াত, সেগুলো হল গ্রন্থের আসল অংশ। আর অন্যগুলো হল রূপক। সুতারাং যাদের অন্তরে বক্রতা-কুটিলতস রয়েছে কেবল তারাই ফিতনা সৃষ্টি  ও অপব্যাখার উদ্দেশ্যে যা রূপক তার অনুসরণ করে। আর তার ব্যাখা আল্লাহ ছাড়া কেউ জানেনা। আর যারা জানে সুগভীর তারা বলেঃ আমরা এতে ঈমান এনেছি, এসবই আমাফের প্রভুর তরফ থেকে এসেছে। জ্ঞানবানরা ছাড়া কেউ উপদেশ গ্রহণ করেনা।
আয়াত-৮: হে আমাদের পরওয়ারদেগার! সরল-সঠিক পথ আমাদের প্রদর্শনের পর তুমি আমাদের অন্তরকে আবার সত্য লংঘনে প্রবৃত্ত করনা। আর আমাদের দাও তোমার অপার করুণা। তুমি তো মহাদাতা।
আয়াত-৯: হে আমাদের পরওয়ারদেগার। তুমি তো মানব জাতিকে একদিন অবশ্যই একত্র করবে, এতে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই। নিশ্চয়ই  আল্লাহ তার ওয়াদার ব্যতিক্রম করেনা।